দেশজুড়ে

সুদিন ফিরুক মানবতার; পাশে আছে, “সন্ধানী ও সন্ধানীয়ান”


একবিংশ শতাব্দীর উন্নত বিশ্ব কখনো বিশ্বব্যাপী মহামারীর সম্মুখীন হবে, এ বিষয়টি আমাদের বেশিরভাগ মানুষের কাছে “করোনা ভাইরাস বা কোভিড-১৯” মহামারীর আগে অচিন্তনীয় ছিলো।

এই প্রতিষেধকবিহীন মহামারীকে রুখতে দেশের প্রথম সারির যোদ্ধা হিসেবে (ডাক্তার, নার্স ও স্বাস্থ্য সেবাকর্মী), আইনশৃঙ্খলাবাহিনী, সেনাসদস্যের পাশাপাশি বিভিন্ন জনসেবামূলক প্রতিষ্ঠানের মত পাশে দাঁড়িয়েছে সন্ধানী।

সন্ধানী, মেডিকেল ও ডেন্টাল শিক্ষার্থী কর্তৃক পরিচালিত একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। সংগঠনটি প্রতিষ্ঠালগ্ন ১৯৭৭ সাল থেকেই “রক্ত দিন, জীবন বাঁচান” এই শিরোনামে সুনিপুণভাবে কাজ করে আসছে। পরবর্তীতে সংগঠনটি তাদের কর্মপরিচালনাকে ব্যাপকভাবে বিস্তৃত করে।যার মাঝে অন্যতম, “মরোণত্তর চক্ষুদান, ভ্যাক্সিনেশন, সন্ধানী ড্রাগ ব্যাংক, সন্ধানী ডোনার ক্লাব, সমাজসেবার অংশ হিসেবে জাতীয় দূর্যোগে ত্রাণ বিতরণ, শীতবস্ত্র বিতরণ ইত্যাদি”।

বর্তমান করোনা ভাইরাস বা কোভিড-১৯ মহামারীতে সংগঠনটি তাদের কর্মপরিচালনাকে বিভিন্ন পরিসরে বিন্যস্ত করেছে-

# সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতকরণ, জনসমাগম, গনপরিবহণ পরিহার করা, সাবান পানি দিয়ে বার বার হাত ধোয়া, কাশি শিষ্টাচার মেনে চলা, ইত্যাদি বিষয় সম্পর্কে প্রতিষ্ঠানটি প্রান্তিক মানুষকে সচেতন করে তুলছে, এখন পর্যন্ত প্রায় ৩০০০ লিফলেট বিতরণের মাধ্যমে।
সেই সাথে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা সচেতনতামূলক প্রচারণা মানুষের কাছে পৌঁছে দিচ্ছে, কখনো বা স্বল্পদৈর্ঘ্যের ভিডিও অথবা
স্থিরচিত্রের মাধ্যমে।

# চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য সুরক্ষাসামগ্রী –
করোনা প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকেই অন্যান্য দেশের মতই বাংলাদেশেও রয়েছে পর্যাপ্ত সুরক্ষাসামগ্রীর সংকট। এমতাবস্থায় দেশের প্রথম সারির করোনা যোদ্ধারা নিজেদের স্বাস্থ্যঝুঁকি নিয়েই দিনরাত হাসপাতালে কর্মরত আছেন। ভবিষ্যৎ ডাক্তাররা তাদের সংগঠন সন্ধানীর মাধ্যমে এ সকল হাসপাতালে কর্মরত ডাক্তার, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন। এ বিষয়ে সন্ধানী কেন্দ্রীয় পরিষদের সভাপতি তানভীর হাসান ইকবাল জানান, সংগঠনটি সম্পূর্ন নিজ অর্থায়নে ইতিমধ্যে দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে
১. ২৬১৫ বোতল হ্যান্ড স্যানিটাইজার
২. মাস্ক ১৮০০ পিস
৩. পিপিই ১৫০ পিস
৪. লিফলেট ৩০০০ পিস
৫. ফেসশিল্ড ৩৫০ পিস
৬. গ্লাভস ১০০০ পিস
পৌঁছে দিয়েছে। এবং প্রক্রিয়াটি অব্যাহত রয়েছে।

# সন্ধানী ফ্রী এম্বুলেন্স সার্ভিস ও টেলিমেডিসিন সেবা –
করোনায় আক্রান্ত চিকিৎসক, মেডিকেল শিক্ষার্থী ও তাদের পরিবারের সদস্যদের জন্য সংগঠনটি ২৪ ঘন্টা জরুরি ফ্রি এম্বুলেন্স সেবা চালু করেছে । করোনা চলাকালীন সময়ে অন্যান্য অসুস্থতা বা স্বাস্থ্যসেবার জন্য রয়েছে সন্ধানী টেলিমেডিসন সেবা, এর মাধ্যামে ঘরে বসেই বিভিন্ন বিষয়ে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের পরামর্শ পাওয়া যাবে বিনামূল্যে।
# সন্ধানী ক্র্যাক-প্লাটুন ভলেন্টিয়ার্স টিম –
বর্তমানে লকডাউন চলাকালীন পরিস্থিতিতে, সন্ধানী তাদের কার্যক্রম সম্পাদনের জন্য তৈরি করেছে অভিনব ক্র্যাক-প্লাটুন টিম। এখন পর্যন্ত ৬৪ জেলায় ৪১ টি ক্র্যাক-প্লাটুন টিম কাজ করছে। এক্ষেত্রে মেডিকেল ও ডেন্টাল শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি সমাজের বিভিন্ন পর্যায়ের শিক্ষার্থীরা স্বেচ্ছায় অংশগ্রহণ করছে। ক্র্যাক-প্লাটুন টিম নিজ নিজ এলাকাভিত্তিক করোনা আপডেট তৈরি করছে এবং সমাজের প্রায় ২৩২২টি অসহায় পরিবারের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছে দেওয়ার পাশাপাশি, বিভিন্ন স্তরের মানুষের জন্য প্রদান করেছে ঈদ উপহার। বিভিন্ন জেলায় করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে ডাক্তাদের মাঝে পৌঁছে দিয়েছে ইফতার ও শুভেচ্ছা সামগ্রী । এছাড়াও জরুরি ভিত্তিতে রক্তসরবরাহের কাজে নিয়োজিত রয়েছে সন্ধানী ক্র্যাক প্লাটুন ভলান্টিয়ার টীমের সদস্যরা । সন্ধানীয়ানরা এভাবেই দেশের এ ক্রান্তিলগ্নে মানুষের পাশে আছে।

# প্লাজমা ডোনার পুল গঠন –
যেহেতু কোভিড-১৯ এর এখনো কোন নির্ভরযোগ্য প্রতিষেধক আবিষ্কার হয়নি, সেক্ষেত্রে বিভিন্ন দেশে প্লাজমা থেরাপির উপর পরীক্ষা ও ফলাফলের উপর জোর দেয়া হচ্ছে। বাংলাদেশেও প্রক্রিয়াটি পরীক্ষাধীন আছে। এক্ষেত্রে সন্ধানী কেন্দ্রীয় পরিষদের সভাপতি তানভীর হাসান ইকবাল জানান, প্লাজমা সংগ্রহের জন্য গঠিত জাতীয় টেকনিক্যাল টিমের সাথে কাজ করছে সন্ধানী। সন্ধানীর অনুপ্রেরণায় গত ১৪ই মে প্রথম নন মেডিকেল একজন ব্যক্তি প্লাজমা দিয়েছেন বলে সংবাদ মাধ্যমে জানানো হয়। এছাড়াও বর্তমানে সন্ধানীর প্লাজমা ডোনার পুল এর মাধ্যমে ডোনার সংগ্রহের কাজ চলছে।

এভাবেই বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে সন্ধানী কাজ করে চলেছে। সংগঠনটি দেশের প্রায় সব বড় বড় সরকারি হাসপাতালে তাদের কার্যসম্পাদনের মাধ্যমে মানুষের আস্থা অর্জন করেছে। প্রতিটি সন্ধানীয়ান দেশের মানুষের সেবার লক্ষে নিজেদেরকে নিয়োজিত করছে শুধু মাত্র সুস্থ বাংলাদেশ গড়ার লক্ষে।
জয় হোক মানবতার
জয় হোক সন্ধানী।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button