বিশেষ প্রতিবেদন

গণস্বাস্থ্যের কিটের কী অবস্থা? কবে আসবে বাজারে?


অনেক বাধা-বিপত্তি পেরিয়ে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের উদ্ভাবিত করোনা ভাইরাস শনাক্তে ‘জিআর র‌্যাপিড ডট ব্লট’ কিটের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শুরু হয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে।

যদিও শুরুতেই নানা অভিযোগের পর কিট সঠিক পদ্ধতিতে কাজ করছে কিনা, তা পরীক্ষা করে দেখার অনুমতি দেয় বাংলাদেশ ওষুধ প্রশাসন অধিদফতর। এবার সেই অনুমতির ওপর ভিত্তি করে কিটের কার্যকারিতা যাচাইয়ে ৫ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করেছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ)।

সেই কিটের কার্যকারিতা নিয়ে আজ রবিবার (২৪ মে) সিদ্ধান্ত জানাবে বিএসএমএমইউ কর্তৃপক্ষ। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়ার কাছে জমা হবে। এরপর তিনি প্রতিবেদন পাঠাবেন ওষুধ অধিদফতরে। সেখান থেকে অনুমোদন মিললেই নিজেদের তৈরি কিটে করোনা পরীক্ষা শুরু করবে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র।

এরপরও দেশবাসীর প্রত্যাশিত এই কিট বাজারে আসতে অন্তত এক মাস লেগে যাবে। কারণ, এই সব ধাপ শেষ হতে একমাস লেগে যাবে। এরপরই অনুমতি মিললে বাজারে আনতে উদপাদন শুরু করা হবে।

তবে সেই পর্যন্ত অপেক্ষা করছে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র। আপাতত নিজেদের উদ্যোগেই কিটের ‘ক্লিনিকাল ট্রায়াল’ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। মঙ্গলবার (২৬) নাগাদ সীমিত পরিসরে ধানমন্ডির গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালে এ প্রক্রিয়া শুরু হবে। গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের সঙ্গে যুক্ত একাধিক দায়িত্বশীলের সঙ্গে আলাপকালে এসব তথ্য জানা গেছে।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের অন্যতম ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী জানান, ইতোমধ্যে এই প্রজেক্টে চার কোটির ওপর ব্যয় হয়েছে। যেহেতু সরকারের কোনও রকম আগ্রহ ছাড়া তিনি এই উদ্যোগ নিয়েছেন, সে কারণে আর্থিক বিষয়টি সামনে আনতে চান না।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তার সঙ্গে আলাপে জানা গেছে, বেশ কয়েকটি কারণে এই প্রতিষ্ঠানের কিট পরীক্ষার বিষয়টিকে দীর্ঘায়িত করা হয়েছে। অন্তত ১৩ দিন আগে বঙ্গবন্ধু মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছে কিটের ‘ইফেক্টিভনেস’ দেখতে দেওয়া হয়েছে। তারা পিসিআর-এর সঙ্গে তুলনা করে দেখছেন কিটের কার্যকরিতা। তবে, পুরো প্রক্রিয়াটিকে কেন বারবার পেছানো হচ্ছে তা নিয়ে মন্তব্য করতে কেউ রাজি হননি।

যদিও কর্মকর্তাদের কেউ কেউ দাবি করেছেন, গণস্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ বেশ কয়েকবার নিজেদের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত থেকে পিছেয়েছে। সর্বশেষ ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল রবিবার (২৫ মে) হওয়ার কথা থাকলেও বাতিল করা হয়েছে। সোমবার (২৫ মে) ঈদুল ফিতর হওয়ায় মঙ্গলবার সীমিত পরিসরে এটি শুরু করবে গণস্বাস্থ্যকেন্দ্র।

পরীক্ষা করার ক্ষেত্রে আইনি বাধা নেই বলে জানিয়ে জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের অনুমোদন দেয় বাংলাদেশ চিকিৎসা গবেষণা পরিষদ (বিএমআরসি)। ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের অনুমোদন হাসপাতাল তৈরির সময় নেওয়া হয়। এটা তো লিখিতভাবে গণস্বাস্থ্যের আছেই।তিনি বলেন, ‘যতক্ষণ পর্যন্ত ড্রাগ কন্ট্রোলার না দেয়, ততক্ষণ পর্যন্ত অনুনোমোদিত, কাজ করে কিন্তু সরকারের অনুমোদন পায়নি।’

উল্লেখ্য, ২৫ এপ্রিল গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের পক্ষ থেকে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সংস্থা সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (সিডিসি) এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিনিধিদের কাছে করোনা টেস্টের কিট হস্তান্তর করা হয়।

তবে বার বার চেষ্টা করেও সরকারের ওষুধ প্রশাসনের কাছে টেস্টের কিট হস্তান্তর করতে পারেনি গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র। গণস্বাস্থ্য অভিযোগ তোলে ওষুধ প্রশাসন কিটের ট্রায়ালের বিষয়ে সহায়তা করছে না, বরং বাধা সৃষ্টি করছে।

সরকারের পক্ষ থেকে কিট গ্রহণ না করায় এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন ভাবে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার সৃষ্টি হয়। পরে ৩০ এপ্রিল সরকারের ওষুধ প্রশাসন অধিদফতর থেকে বিএসএমএমইউ বা আইসিডিডিআর’বিতে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের উদ্ভাবিত কিটের কার্যকারিতা পরীক্ষার জন্য অনুমতি দেওয়া হয়।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button