গণমাধ্যম

শিমুলিয়ায় ঘরমুখো মানুষের ভিড়, করোনা ধার ধারছে না কেউ


পবিত্র ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে শিমুলিয়া ঘাটে সকাল থেকেই ঘরমুখো মানুষের চাপ দেখা গেছে। কোভিড-১৯ সংক্রমণের ঝুঁকি উপেক্ষা করে হাজার হাজার মানুষ পরিবার নিয়ে গ্রামে ঈদ উদযাপনের লক্ষ্যে পদ্মা নদী পার হচ্ছিলেন।

মারাত্মক সংকটের সময়েও এ অঞ্চলে উৎসব বরাবরই অগ্রাধিকার পেয়েছে এবং আজকের অবস্থায় এটি আবারও প্রমাণিত হয়েছে। ফেরিগুলোতে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি না মেনে গাদাগাদি করে যাত্রীদের গন্তব্যে যেতে দেখা গেছে। সবগুলো ফেরিগুলোতেই যাত্রীদের উপস্থিতি অনেক বেশি আছে। স্পিডবোট বন্ধ থাকার কথা থাকলেও সেগুলো চলাচল করতে দেখা গেছে।

বিআইডব্লিউটিসি’র শিমুলিয়া ঘাটের সহকারী ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) মোহাম্মদ ফয়সাল জানান, শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে বর্তমানে ৪টি রো রোসহ ১৫টি ফেরি চলাচল করছে। ভোর থেকেই যাত্রীদের অনেক চাপ রয়েছে।

করোনাভাইরাস ছড়িয়ে দেয়া থেকে মানুষকে বিরত রাখতে কর্তৃপক্ষ প্রথমে ঈদযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও মহাসড়কে যানবাহন কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ শুরু করেছিল।

এর আগে মঙ্গলবার পদ্মায় মাওয়া ফেরি ঘাট এলাকা থেকে পুলিশ বাড়ি ফেরা লোকদের ফেরত পাঠিয়েছিল। কিন্তু শুক্রবার সরকার শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নদীপথে ফেরি পরিষেবা চালু করে এবং মানুষকে নদী পার হতে এবং ঈদ উদযাপনের জন্য বাড়ি যেতে অনুমতি দেয়। সেই সাথে সরকার তার কঠোর অবস্থান থেকে সরে এসে গণপরিবহন চলাচল স্থগিত রেখে ব্যক্তিগত যানবাহনে ঈদে বাড়ি যাওয়ার অনুমতি দিয়েছে।

এদিকে শনিবার বাংলাদেশের কোথাও চাঁদ দেখা না যাওয়ায় সোমবার পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপিত হবে।দেশে এ পর্যন্ত ৩২ হাজার ৭৮ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং ৪৫২ জন মারা গেছেন। সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকির মধ্যে হাজার হাজার মানুষ যখন ঈদ উদযাপন করতে বাড়ি যাচ্ছে তখন গতকাল দেশে রেকর্ড সংখ্যক ১ হাজার ৮৭৩ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button