কৃষি তথ্য

দিশেহারা বীরগঞ্জের মরিচ চাষিরা


রনজিৎ সরকার রাজ ,বীরগঞ্জ(দিনাজপুর) প্রতিনিধি : দিনাজপুরের বীরগঞ্জে মরিচের ভালো ফলনেও হাসি নেই চাষিদের মুখে। প্রাণঘাতী নভেল করোনাভাইরাসের কারণে অবিক্রিত রয়েছে অধিকাংশ মরিচ। এতে করে ক্ষতির আশঙ্কা করছেন স্থানীয় মরিচ চাষিরা। বীরগঞ্জ উপজেলার ১১টি ইউনিয়নে উৎপাদিত মরিচ স্থানীয় চাহিদা পূরণ করে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানের বাজারে বিক্রি করা হয়।

এবার আবহাওয়া অনুকূল ভালো থাকায় মরিচের বাম্পার ফলন হলেও করোনাভাইরাসের কারণে দাম না থাকায় দিশেহারা হয়ে পড়েছে মরিচ চাষিরা। কয়েক সপ্তাহ আগেও বীরগঞ্জ আড়তে মরিচের মণ বিক্রি হতো ৬০০-৮০০ টাকা দরে। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে প্রতি মণ মরিচ বিক্রি করতে হচ্ছে ২৮০-৪০০ টাকায়। অন্যদিকে প্রতি মণ মরিচ ক্ষেত থেকে তুলতে মজুরি দিতে হচ্ছে ২০০ টাকা। এতে উৎপাদন খরচই উঠছে না মরিচ চাষিদের।

বীরগঞ্জ উপজেলার নিজপাড়া ইউনিয়নের বলরামপুর গ্রামের খলিলুর রহমানের ছেলে হাফিজুর রহমান জানান, প্রতি কেজি মরিচ ক্ষেত থেকে তুলতে ৫ টাকা করে পারিশ্রমিক দিতে হয়। তারপর বাজারে গাড়ী ভাড়া দিয়ে তা বিক্রি করতে হয় ৭-১০ টাকা কেজি দরে।

সার, কীটনাশক ও পরিচর্যা খরচ হিসেব করলে ক্ষতি ছাড়া আর কিছু চোখে পড়ে না। মরিচ সংরক্ষণের জন্য সরকারি বা বে-সরকারিভাবে কোন হিমাগার না থাকায় আমরা বাধ্য হয়েই কম দামে মরিচ বিক্রি করছি।

বীরগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আবুরেজা মোঃ আসাদুজ্জামান জানান, আবহাওয়া অনুকূল ভালো থাকা এবং পরিশোধিত বীজ,প্রয়োজনীয় সার,কীটনাশক পাওয়ায় চলতি মৌসুমে মরিচের উৎপাদন ভালো হয়েছে।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

আরও পড়ুন
Close
Back to top button