বিবিধ

চীন থেকে খাদ্য আমদানি কতটা নিরাপদ?

  • 10
    Shares

ধারণা করা হয় চীনের একটি সি ফুড মার্কেট থেকে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। এ ঘটনার পর থেকে একটি নতুন প্রশ্ন দেখা দিয়েছে- চীন থেকে খাদ্য আমদানি করা কতটা নিরাপদ?

চীনের এসব খাবারের বাজারের কয়েকশ ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। সেসব বাজারের অবস্থা দেখে চীন থেকে আমদানি করা খাবারের মান নিয়ে সারা বিশ্বের মানুষ উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে।

সংবাদমাধ্যম সিংগাপুর পোস্টের প্রতিবেদনে বলা হয়, এসব বাজারে স্বাস্থ্যবিধি এবং পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা একেবারেই মানা হয় না। ব্যবসায়িকভাবে লাভবান হওয়ার জন্য চীন এসব বাজারে কার্যকর মূল্যায়ন এবং আইন প্রয়োগও করেনি। এর ফলও ভোগ করছে চীন। দেশটির হাজার হাজার মানুষ খাদ্যে বিষক্রিয়ার কারণে মারা গেছে।

চীন তার জিডিপির একটি বড় অংশ ভারতসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পণ্য রপ্তানি করে অর্জন করে। চীনা পণ্যগুলো সব ধরনের বাজারে ছড়িয়ে পড়েছে, খাদ্যের বাজারও তার ব্যতিক্রম নয়। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মানুষ প্রায়শই তাদের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের ক্ষেত্রে চীনা পণ্য ব্যবহার করে।

গত কয়েক বছরে চীন থেকে ভারতে খাদ্যপণ্য আমদানি বহুগুণ বেড়েছে। ২০০৮ থেকে ২০১৮ সালের মধ্যে মোট আমদানি মূল্য ৪৫.১৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার থেকে বেড়ে ১৪৮.৫৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে উন্নিত হয়েছে। এর মধ্য দিয়ে ভারতের বাজারে সস্তা উপাদানের ও নিম্ন মানের খাদ্য ঢুকে পড়েছে। এছাড়াও নিম্নমানের উপাদান বিশেষ করে সস্তা চীনা মিষ্টান্ন ও ক্ষতিকারক পচনরোধক অবৈধভাবে ভারতে আমদানি হচ্ছে।

চীন থেকে অবৈধভাবে আমদানি করা এসব পণ্য ভারতের বাজারের জন্য বড় হুমকি, কারণ এটি দেশীয় খাদ্য ও পানীয়ের বাজারকে ক্ষতিগ্রস্ত করছে। ভারতের বাজারে সয়লাব হওয়া চীনা পণ্যের মধ্যে শিম, বাঁশ, ইনস্ট্যান্ট নুডলস ইত্যাদি অন্যতম। অবৈধভাবে আমদানি করা এই পণ্যগুলোর গুণমান নির্ণয় করার জন্য কোনো ব্যবস্থাও নেই।

আরও একটি বড় আমদানি করা পণ্য হলো জেনেটিকালি মডিফাইড (জিএম) বীজ যা বিশেষ ধরনের প্রক্রিয়াজাত শস্যের বীজ। এটি চীনে ব্যবহৃত হয় এবং চীনা কারখানায় উৎদিত হয়। গবেষণায় দেখা যায়, এই জিএম বীজে পুষ্টির হার উন্নত, কীট-প্রতিরোধ ক্ষমতা বেশি এবং উচ্চ ফলনশীল। তবে এই বীজের স্বাস্থ্যের ওপর ব্যাপক প্রভাব পড়ে। এই ধরনের বীজে ক্ষতিকারক দিকগুলো গোপনীয় থেকে যায়।


  • 10
    Shares

Related Articles