আন্তর্জাতিক

নেপাল ও ভারতের ‘মানচিত্র যুদ্ধ’ শুরু


নেপাল বুধবার নতুন রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক মানচিত্র প্রকাশ করেছে। ১৮১৬ সালে সুগাউলি চুক্তির পর এটাই তাদের প্রথম নতুন মানচিত্র। এই মানচিত্র সেই স্থানগুলোকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে, নেপাল ও ভারত উভয়েই দীর্ঘদিন ধরে যে জায়গাগুলোকে নিজেদের হিসেবে দাবি করে আসছে। বিশ্লেষকরা দ্রুত এই পরিস্থিতিকে দুই দেশের মধ্যে ‘মানচিত্র যুদ্ধ’ হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন।

কালাপানি, লিপুলেখ এবং লিমিপিহুরাকে রাজনৈতিক মানিচত্রে অন্তর্ভুক্ত করে নেপাল এমন সময় মানচিত্র প্রকাশ করলো যখন মাত্র কয়েকদিন আগেই ১৭,০০০ ফুট উচ্চতার লিপুলেখ এলাকা দিয়ে চীনের তিব্বত স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চলের কৈলাস মানসরোবরের সাথে লিঙ্ক রোড উদ্বোধন করে নয়াদিল্লী।

কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ৩৩৫ বর্গকিলোমিটার ভূমি মানচিত্রে যুক্ত হওয়ায় নেপালে পুরো এলাকা এখন ১৪৭,৫১৬ বর্গকিলোমিটার, যেটা এতদিন ছিল ১৪৭,১৮১ বর্গকিলোমিটার। বুধবার নিয়মিত মিডিয়া ব্রিফিংয়ে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র অনুরাগ শ্রীবাস্তব এ সম্পর্কিত প্রশ্নের জবাবে বলেন যে, নেপাল একতরফাভাবে এটা করেছে।

শ্রীবাস্তব বলেন, “নেপাল সরকার একটি সংশোধিত মানচিত্র প্রকাশ করেছে, যেখানে ভারতের কিছু অংশকে যুক্ত করা হয়েছে। এই একতরফা সিদ্ধান্ত ঐতিহাসিকভাবে বস্তুনিষ্ঠ এবং প্রমাণনির্ভর নয়। সীমানা ইস্যুগুলো কূটনৈতিক আলোচনার মাধ্যমে সমাধানের যে দ্বিপাক্ষিক বোঝাপড়া রয়েছে, এই সিদ্ধান্ত তার পরিপন্থি। এই ধরনের কৃত্রিম ভূখণ্ডের দাবি ভারতের কাছে গ্রহণযোগ্য নয়”।

শ্রীবাস্তব আরও বলেন যে, নেপাল এ ব্যাপারে ভারতের অবস্থান জানে এবং তিনি নেপালের প্রতি জোর দাবি জানান যাতে তারা ‘অযৌক্তিকভাবে এ ধরনের মানচিত্র সম্প্রসারণ বন্ধ করে এবং ভারতের সার্বভৌমত্ব ও আঞ্চলিক অখণ্ডতার প্রতি সম্মান দেখায়”।

তিনি বলেন, “আমরা আশা করি যে, নেপালের নেতারা অমীমাংসিত সীমান্ত ইস্যুগুলো সমাধানের জন্য কূটনৈতিক আলোচনার একটি পরিবেশ তৈরি করবেন”।নেপালের নতুন রাজনৈতিক মানচিত্র প্রকাশের ছয় মাস আগে ভারতও তাদের নিজস্ব রাজনৈতিক মানচিত্র প্রকাশ করে, যেখানে কালাপানিকে ভারতের অন্তর্ভুক্ত দেখানো হয়েছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছে, একই ভূখণ্ডের উপর যেহেতু দুই দেশ আনুষ্ঠানিকভাবে দাবি জানিয়েছে, সেখানে সীমান্ত ইস্যু একটা নতুন পর্যায়ে প্রবেশ করেছে, যেটা আলোচনার জন্য আরও বেশি সহায়ক।

সার্ভে ডিপার্টমেন্টের সাবেক ডিরেক্টর জেনারেল দ্য পোস্টকে বলেন, “আমরা এখন একটা মানচিত্রের যুদ্ধে ঢুকে পড়েছি কারণ দুই দেশ একই ভূখণ্ডকে নিজেদের বলে দাবি করেছে। এটা দুই পক্ষের উপরই চাপ সৃষ্টি করবে এবং অচলাবস্থা ভেঙ্গে তাদেরকে আলোচনায় বসতে বাধ্য করবে”।

নেপালের সাথে আলোচনায় বসতে ভারত দীর্ঘদিন ধরে অনীহা প্রকাশ করে আসছে। চলতি মাসের শুরুর দিকে রোড লিঙ্ক চালু করে নয়াদিল্লী আবারও নেপালকে ক্ষুব্ধ করেছে। নেপালের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে দিল্লীকে সতর্ক করে দিয়েছে যাতে তারা নেপালের ভূখণ্ডে কোন তৎপরতা না চালায়। জবাবে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে যে, ভারত নিজের ভূখণ্ডের মধ্যেই সড়ক নির্মাণ করেছে।

কাঠমাণ্ডু এরপর ভারতীয় রাষ্ট্রদূত বিনয় কুমার কোয়াত্রাকে তলব করে তাকে কূটনৈতিক নোট দিয়েছে এবং লিপুলেখের ব্যাপারে নেপালের অবস্থানকে স্পষ্ট করেছে। ভারতীয় দূতাবাস অবশ্য এই নোটের স্বীকৃতি দিতে অস্বীকার করে বলেছে যে, রাষ্ট্রদূত বরং ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতির একটি কপি নেপালের পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রদীপ গিওয়ালিকে দিয়েছে।

বিবৃতিতে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় প্রথমবারের মতো স্বীকার করেছে যে, পররাষ্ট্র সচিব পর্যায়ে আলোচনার জন্য প্রস্তুতি চলছে এবং কোভিড-১৯ কেন্দ্রিক জরুরি অবস্থা কাটিয়ে ওঠার পরই আলোচনার সময় চূড়ান্ত করা হবে।

নতুন মানচিত্র প্রকাশ করে নেপাল প্রথমবারের মতো সুস্পষ্ট একটা পদক্ষেপ নিলো। ষাটের দশক থেকে যে স্থিতাবস্থা চলে আসছিল, এর মাধ্যমে নেপাল সেটা ভেঙ্গে ফেললো। এমন মন্তব্য করলেন নেপালের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী কামাল থাপা, ভারতের সাথে বিভিন্ন ইস্যুতে যার বহু দর কষাকষির অভিজ্ঞতা রয়েছে।

থাপা বলেন, “এই ঘটনার মধ্য দিয়ে নেপাল-ভারত সম্পর্কের পুরো চেহারাটাই বদলে যেতে পারে। সুগাউলি চুক্তির সময় থেকে দুই দেশের মধ্যে যে অবস্থা চলে আসছে, সেটা পুনর্বিবেচনায় সময় এসেছে এখন। ভারত কালাপানিতে কৌশলগত কারণে সেনা মোতায়েন করেছে, সে কারণে দর কষাকষিটা হবে কঠিন কিন্তু নেপালের এই ইস্যুটি এড়িয়ে যাওয়া উচিত হবে না”।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button