আন্তর্জাতিক

নিজের স্বার্থেই তালেবান-বিরোধী অবস্থান বদলাতে হবে ভারতকে

  • 1
    Share

জালমাই খলিলজাদের সাম্প্রতিক নয়াদিল্লি সফর মারাত্মক হোচট খেতে খেতে এগিয়ে চলা আফগানশান্তি প্রক্রিয়ার ক্ষেত্রে সম্ভাব্য খেলোয়াড় হিসেবে ভারতকে সামনে নিয়ে এসেছে।খলিলজাদের বার্তা পরিস্কারভাবে যেটা বুঝিয়েছে সেটা হলো, কাবুলের সাথে নয়াদিল্লির বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক থাকার কারণেই ভারতকে শান্তি প্রক্রিয়ায় অন্তর্ভুক্ত করতে চায় যুক্তরাষ্ট্র। নয়াদিল্লিকে দিয়ে তারা কাবুলকে রাজি করাতে চায়, যাতে কাবুল মার্কিন-তালেবান শান্তি চুক্তি মেনে চলে এবং চুক্তিতে ঘোষিত সময়সীমার মধ্যে যুদ্ধের পরিসমাপ্তি টানতে পারে যুক্তরাষ্ট্র।

বার্তায় আরও বোঝা গেছে যে, কাবুলের উপর যদিও অর্থনৈতিক চাপ দিয়েছে ওয়াশিংটন, এরপরও তারা কাবুলকে চুক্তি মেনে চলার ব্যাপারে রাজি করাতে পারেনি। যদিও এটাও স্পষ্ট যে, যুক্তরাষ্ট্রকে বাদ দিলে কাবুলের এমন কোন সামরিক ও অর্থনৈতিক শক্তি নেই যেটা দিয়ে তারা টিকে থাকতে পারবে।

যুক্তরাষ্ট্র চাইলে কাবুলের উপর অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক চাপ আরও বাড়াতে পারে, কিন্তু তারা কাবুলকে বেশি দুর্বল করে দিতে চায় না। এতে যে পরিস্থিতির সৃষ্টি হবে, সেখানে তালেবানরা আরও শক্তিশালী অবস্থানে চলে যাবে। সে কারণে কাবুলের রাজনৈতিক অভিজাত শ্রেণীর উপর ভারতের প্রভাবকে কাজে লাগানোর চেষ্টা করছে যুক্তরাষ্ট্র।

এই প্রক্রিয়ার সাথে ভারতের অন্তর্ভুক্তি যদিও দিল্লির জন্য সুখবর মনে হতে পারে, তবে এটা একেবারে বিনা মূল্যে আসছে না। এ জন্য দিল্লিকে তাদের বহু দশকের পুরনো কূটনৈতিক নীতি থেকে সরে আসতে হবে, যে নীতি হলো – তারা তালেবানদের সাথে কোন ধরনের চুক্তি বা সম্পর্কের মধ্যে যাবে না। দিল্লি কট্টরভাবে মনে করে এই আফগান মিলিশিয়া গ্রুপটি পাকিস্তানের সৃষ্টি, যাদের কোন স্বাধীন নীতি কৌশল নেই।

অবশ্য এটা অস্বীকার করার উপায় নেই যে, ভারত এই ভূমিকা পালনে কোন বাস্তব পদক্ষেপ না নিয়ে এই চ্যালেঞ্জ থেকে সরে দাঁড়াতে পারে। ভারত যদি এ ধরনের সিদ্ধান্তের পথ বেছে নেয়, তাহলে সেটার কারণ হলো ভারতের দীর্ঘদিনের উদ্বেগ রয়েছে যে, তালেবানরা যদি রাজনীতিতে ফিরে আসে এবং আফগানিস্তান যদি পুরোপুরি পাকিস্তানপন্থী বাঁক নেয়, তাহলে আফগানিস্তানের ভেতর দিয়ে মধ্য এশিয়ার বাজারের সাথে যুক্ত হওয়ার যে ভারতীয় উচ্চাকাঙ্ক্ষা রয়েছে, সেটি বাধাগ্রস্ত হবে।

আফগানিস্তানে নিজেদের অবস্থান সত্যিই ফিরিয়ে আনতে হলে এবং তাদের রাজনৈতিক আওতা সম্প্রসারণের জন্য নয়াদিল্লিকে অবশ্যই তাদের তালেবান নীতি বদলাতে হবে। কিন্তু এতে কাবুলের সাথে তাদের সম্পর্কের অবনতির ঝুঁকি রয়েছে।

ভারতের প্রথম সারির সংবাদপত্র দ্য হিন্দুকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে খলিলজাদ বলেছেন, “ভারত আফগানিস্তানের একটি গুরুত্বপূর্ণ শক্তি এবং এই আলোচনাটা [ভারত-তালেবান] হলে সেটা হবে যথার্থ”।

কাবুল আর নয়াদিল্লির ঘনিষ্ঠতার একমাত্র কারণ এটা নয় যে, ভারত আফগানিস্তানের বৃহত্তম আঞ্চলিক দাতাদের একটি, বরং এর কারণ হলো নয়াদিল্লি ও কাবুল উভয়েই তালেবানদের রাজনীতিতে ফিরে আসা এবং আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সামরিক বাহিনীর প্রত্যাহারের সিদ্ধান্তের বিরোধী, যে প্রত্যাহারের কারণে তালেবানরা কমান্ডিং অবস্থানে চলে যাবে।

মজার ব্যাপার হলো, ভারতের নীতি নির্ধারকরা যেখানে নিয়মিত বলে এসেছেন যে, তারা আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহারের বিরোধী, সেখানে খলিলজাদ ভারতকে সুনির্দিষ্টভাবে যে বার্তা দিয়েছেন, সেটা হলো ভারতকে আফগানিস্তানে এমন একটা পরিস্থিতি সৃষ্টির জন্য ভূমিকা রাখতে হবে, যেটার মাধ্যমে দোহা চুক্তির নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে মার্কিন সামরিক বাহিনী তাদের সেনা প্রত্যাহার করে নিতে পারবে। তাই ‘করবো কি করবো না’র দ্বিধাদ্বন্দ্বের ব্যাপারে নয়াদিল্লিকে আগে একটা সমাধানে আসতে হবে।

খলিলজাদের মতে, নয়াদিল্লি তালেবানদের সাথে আলোচনায় বসে এবং তাদের কাছে সরাসরি ‘সন্ত্রাসবাদের মতো উদ্বেগজনক ইস্যুগুলো’ উত্থাপনের মাধ্যমে এই দ্বিধা-দ্বন্দ্ব থেকে বেরিয়ে আসতে পারে।

অন্যভাবে বললে, নয়াদিল্লিকে পরামর্শ দেয়া হয়েছে যাতে তারা তালেবানদেরকে পাকিস্তান থেকে স্বতন্ত্র অস্তিত্ব হিসেবে বিবেচনা করে সেরকম আচরণ করে এবং তাদের কাছ থেকে নিজেদের মতো করে প্রতিশ্রুতি আদায় করে নেয়, দোহা চুক্তির মাধ্যমে যেটা যুক্তরাষ্ট্র করেছে। চুক্তিতে সুনির্দিষ্টভাবে উল্লেখ রয়েছে যে, “আল কায়েদাসহ কোন গ্রুপ বা ব্যক্তি আফগানিস্তানের ভূখণ্ড ব্যবহার করে যুক্তরাষ্ট্র এবং তাদের মিত্র দেশের প্রতি কোন ধরনের নিরাপত্তা হুমকি সৃষ্টি করতে পারবে না”।

চুক্তিতে মার্কিন মিত্রদের কথা উল্লেখ রয়েছে – এবং ভারত যুক্তরাষ্ট্রের মিত্র শুধু নয়, তাদের কৌশলগত অংশীদার। কিন্তু এর পরও দিল্লির এ চুক্তির ব্যাপারে যে অনীহা, সেটার মাধ্যমে বোঝা যাচ্ছে যে, তাদের ‘সন্ত্রাসবাদের উদ্বেগ’ এভাবে কাটিয়ে ওঠা যাবে না এবং/বা এভাবে তারা তাদের উদ্বেগের নিরসন চায় না।

ভারতের জন্য আরেকটি উপায় হতে পারে – যেটা রাশিয়া, চীন এবং ইরানসহ অন্যান্য বেশ কিছু দেশ গ্রহণ করেছে: সেটা হলো তালেবানদেরকে রাজনৈতিক শক্তি হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া এবং তাদেরকে আফগানিস্তানের যুদ্ধ-পরবর্তী রাজনৈতিক পরিমণ্ডলের অপরিহার্য অংশ হিসেবে স্বীকার করে নেয়া।

নিজেদের নীতি পরিবর্তনে ভারতের প্রত্যাখ্যানের অর্থ হলো আফগানিস্তানে ভারতের ভূমিকা অন্ধকারেই রয়ে যাবে। এই ছায়া থেকে বেরিয়ে আসার জন্য ভারতের যে কোন প্রচেষ্টা – যেটা যুক্তরাষ্ট্র চায় – সেটা করতে গেলে কাবুলের রাজনৈতিক অভিজাত শ্রেণীর সাথে তাদের সম্পর্ক বিনষ্টের ঝুঁকি থাকবে, যারা এ যাবত আফগানিস্তানে তাদের একমাত্র জীবন সঞ্জিবনী হিসেবে চলে এসেছে।

আফগানিস্তানে ‘নতুন ভূমিকা’ রাখার জন্য খলিলজাদের প্রস্তাব তাই ভারতকে একটা কূটনেতিক দোলাচালে ফেলে দিয়েছে। এর প্রাথমিক কারণ হলো এই ‘নতুন ভূমিকা’ রাখতে গেলে কিছু মৌলিক বাস্তবমুখী পরিবর্তন আনতে হবে, যে পরিবর্তনগুলো ভারত দীর্ঘদিন ধরে প্রতিরোধ করে এসেছে।

সে কারণে ভারত আফগানিস্তানে কোন ভূমিকা রাখতে চায় কি না – এই প্রশ্নটি নির্ভর করছে তাদের নীতি পরিবর্তনের ইচ্ছা বা অনিচ্ছার উপর।

ভারত তালেবানদের সাথে রাজনৈতিক চ্যানেল উন্মুক্ত করবে কি না এবং এরপরও কাবুলের মিত্র থাকবে কি না, এগুলোর খুব সামান্যই প্রভাব পড়বে আফগানিস্তানের রাজনৈতিক সঙ্কটের উপর, যেটা কাবুলকে আষ্টেপিষ্টে জড়িয়ে রেখেছে এবং যুক্তরাষ্ট্র যে সঙ্কট সমাধানে নয়াদিল্লির সাহায্য চায়।সাউথ এশিয়ান মনিটর


  • 1
    Share

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button