দেশজুড়ে

আম্ফানের প্রভাবে খুলনার উপকূলীয় এলাকা প্লাবিত


খুলনা প্রতিনিধি : ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের প্রভাবে খুলনা অঞ্চলের নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে । ফলে উপকূলীয় এলাকা বিশেষ করে , পাইকগাছা ও দাকোপ উপজেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ঘর-বাড়ি ডুবে গেছে।

স্থানীয় সূত্রগুলো জানিয়েছে, নদ-নদীর পানি বেড়ে যাওয়ায় উপকূলের লোকালয় প্লাবিত হচ্ছে। বিশেষ করে নদী তীরবর্তী এলাকার ঘর-বাড়ি পানিতে তলিয়ে গেছে। এসব এলাকার বাসিন্দাদের পাশ্ববর্তী আশ্রয় কেন্দ্রে সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

সুন্দরবন সংলগ্ন খুলনার দাকোপ উপজেলার সুতারখালী ইউনিয়নের কালাবগী গ্রামের বেশ কয়েকটি বাড়ির অর্ধেকটা পানিতে তলিয়ে গেছে। বিশেষ করে ‘ঝুলন্তপাড়া’ নামে পরিচিত নলিয়ান থেকে কালাবগি পযন্ত ৬, ৮, ৯ নং ওয়ার্ডের অধিকাংশ ঘর-বাড়িই পানি প্রবেশ করে বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়েছে ।

স্থানীয় ইউপি সদস্য জিএম ফয়সাল ইসলাম বলেন, প্লাবিত এলাকার লোকজনকে আমরা সরিয়ে আশ্রয় কেন্দ্রে পাঠিয়েছি। তবে অনেকেই আসবাবপত্র ছেড়ে যেতে রাজি হচ্ছে না। তারপরও জীবন আগে রক্ষার বিষয়টি বুঝিয়ে তাদের আশ্রয় কেন্দ্রে নিতে স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে কাজ করছেন তারা।

এদিকে দাকোপ উপজেলার একটি ঝুঁকিপূর্ণ বেড়িবাঁধ রক্ষায় এগিয়ে এসেছেন নারীরা। বুধবার সকালে পুরুষের সঙ্গে নারীরাও নিজেদের ঘর-বাড়ি-সম্পদ রক্ষায় বাঁধ ঠেকাতে কাজ করেছেন বলে জানা গেছে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, আম্ফানের প্রভাবে খুলনা অঞ্চলের অন্যান্য নদ-নদীর মত দাকোপ উপজেলার ঝপঝপিয়া নদীর পানিও বেড়ে গেছে। এ কারণে উপজেলার ১ নম্বর পানখালী ইউনিয়নের দক্ষিণপাড়া বেড়িবাঁধটি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। এ বাঁধ রক্ষায় বুধবার সকাল থেকে এলাকাবাসী স্বেচ্ছাশ্রমের মাধ্যমে মাটি কেটে বাঁধ মজবুত করার চেষ্টা করেন। এ অবস্থা দেখে পুরুষের পাশাপাশি নারীরাও কাজে নেমে পড়েন।

স্থানীয় পানখালী ইউপি চেয়ারম্যান শেখ আব্দুল কাদের বলেন, ঘুর্ণিঝড়ের প্রভাবে নদীর পানির উচ্চতা কয়েকফুট বেড়ে গেছে। এতে বাঁধও ক্রমেই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে। আর এ সময় কোনো শ্রমিকও পাওয়া যাচ্ছে না। সবাই নিজেদের রক্ষায় নিরাপদে যেতে ব্যস্ত। এ অবস্থায় এলাকার নারী-পুরুষরা স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতেই বাঁধ রক্ষায় কাজ করছেন।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button