দেশজুড়ে

খুলনা ও দক্ষিণাঞ্চলে আম্ফানের প্রভাব

  • 3
    Shares

খুলনা প্রতিনিধি : সুপার সাইক্লোন আম্পান খুলনা সহ পুরো দক্ষিণ অঞ্চলে ব্যপক প্রভাব ফেলেছে। আবহাওয়া
অধিদপ্তর মোংলা এবং পায়রা সমুদ্রবন্দরে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত দেখিয়ে যেতে বলেছে।
ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে ১০ থেকে ১৫ ফুট জলোচ্ছ্বাস হতে পারে বলেও সতর্ক করা হয়েছে।

এদিকে ঘূর্ণিঝড় আম্পানের প্রভাবে এখন বৈরি আবহাওয়া বিরাজ করছে খুলনাঞ্চলজুড়ে। বৃষ্টির সঙ্গে বইছে দমকা হাওয়া। ক্ষণে ক্ষণে ভারী বৃষ্টিও হচ্ছে বিভিন্ন এলাকায়। নদীতে বাড়ছে জোয়ারের পানি এবং উত্তাল অবস্থা বিরাজ করছে। মোংলা বন্দরসহ আশপাশের নদীর নৌ-যানগুলো নদীর পাড়ে নিরাপদ আশ্রয়ে রাখা হয়েছে। সকাল থেকেই ভারী বৃষ্টিপাত এবং দমকা হাওয়া শুরু হয়েছে ।

জেলার কয়রা উপজেলার কয়রা সদর, উত্তর বেদকাশী এবং দক্ষিণ বেদকাশী ইউনিয়নের কয়েক জায়গা দিয়ে বেড়িবাঁধ উপচে পানি প্রবেশ করেছে লোকালয়ে। স্থানীয় মানুষ বেড়িবাঁধের ওপর মাটি দিয়ে পানি আটকানোর চেষ্টা করেছে। বুধবার রাতে অমাবশ্যার জোয়ারে বাঁধ ভেঙে যাওয়ার আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন স্থানীয় লোকজন। সুন্দরবন সংলগ্ন খুলনা জেলার কয়রা, দা‌কোপ ও পাইকগাছা উপ‌জেলাসহ আশপা‌শের এলাকায় ব‌য়ে চ‌লে‌ছে দমকা হাওয়া, হ‌চ্ছে বৃ‌ষ্টিপাত। বুধবার বেলা ২ টার দিকে এ রিপোর্ট লেখার সময় স্থানীয় নদ-নদীর পা‌নি স্বাভা‌বি‌কের চে‌য়ে ২-৩ ফুট উচ্চতায় ব‌য়ে চ‌লছিল ।

এ‌দি‌কে দা‌কোপ ও কয়রা উপ‌জেলার প্রত্যন্ত এলাকার জনসাধারণ আশ্রয়কে‌ন্দ্রে অবস্থান নি‌য়ে‌ছেন।

খুলনা জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, ঘূর্ণিঝড় আম্পান মোকাবিলার জন্য খুলনায় প্রস্তুত রাখা হয়েছে ৩৪৯টি সাইক্লোন শেল্টার। এছাড়াও জেলার প্রত্যন্ত এলাকায় যেসব পাকা ভবন ও স্কুল কলেজ ভবন রয়েছে সেগুলোকেও শেল্টার হিসেবে প্রস্তুত করা হয়েছে। এসব সাইক্লোন শেল্টারে আশ্রয় নিতে পারবেন প্রায় ৫ লাখ মানুষ। এছাড়া খুলনা সিভিল সার্জন অফিস ৯টি উপজেলায় ১১৬টি মেডিক্যাল টিম গঠন করেছে। লোকজনকে নিরাপদ আশ্রয়ে যেতে মাইকিং চলছে। মানুষ নিরাপদ আশ্রয়ে যেতে শুরু করেছে।

খুলনা আবহাওয়া অফিসের সিনিয়র আবহাওয়াবিদ মো. আমিরুল আজাদ বলেন, মঙ্গলবার দুপুর ১টা থেকে বুধবার সকাল ৯টা পর্যন্ত ২৮ মি‌লি‌মিটার বৃ‌ষ্টিপাত রেকর্ড করা হ‌য়ে‌ছে।


  • 3
    Shares

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button