ঈদে টাঙ্গাইলের মহাসড়ক ও নৌ ঘাটে জনস্রোত

0
92

আশিকুর রহমান,টাঙ্গাইল প্রতিনিধি : গণপরিবহন বন্ধ থাকলেও বিকল্প পন্থায় গ্রামে ফিরছে সাধারণ মানুষ। সকাল থেকেই মহাসড়ক ও নৌ ঘাটে দেখা গেছে মানুষের জনস্রোত। এদিকে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে ঢাকা না ত্যাগের নির্দেশনা কার্যকর করতে মহাসড়কে বাড়ানো হয়েছে পুলিশের কঠোর নজরদারি। বঙ্গবন্ধু সেতু দিয়েও বন্ধ রয়েছে যাত্রী পরিবহন।

তবে এসব কোন কিছুই আমুলে নিচ্ছেননা গ্রামে ফেরা মানুষগুলি। ঈদ ঘনিয়ে আসায় সকাল থেকেই মহাসড়কে বেড়েছে ঢাকা ফেরত মানুষের সংখ্যা। ব্যক্তিগত ও অনুমোদনহীন যানবাহনে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক পাড়ি দিয়ে গন্তব্যে যাচ্ছেন অসংখ্য মানুষ। এদিকে বঙ্গবন্ধু সেতু দিয়ে যাত্রী চলাচল বন্ধ থাকায় উত্তরবঙ্গগামী হাজার হাজার মানুষ মারাত্মক দুর্ঘটনার ঝুঁকি নিয়ে ছোট ছোট ইঞ্জিনচালিত নৌকায় যমুনা নদী পাড় হচ্ছে।

সুপার সাইক্লোন আম্পানের সতর্কতার কোন তোয়াক্কা না করে ভূঞাপুরের গোবিন্দাসী নৌঘাট এবং কালিহাতীর গড়িলাবাড়ি ও নিউ ধলেশ্বরী ঘাট দিয়ে গাদাগাদি করে নৌকাযোগে স্বপরিবারে ছোট ছোট শিশু নিয়ে নারী-পুরুষ গন্তব্যে যাচ্ছেন।

আর এ সযোগে যাত্রীদের কাছ থেকে কয়েকগুন বেশি ভাড়া আদায় করছে নৌ মালিকরা। এভাবে নদী পাড় হতে গিয়ে সম্প্রতি নৌকা ডবির ঘটনা ঘটে। এতে তিনজন নিখোঁজ হয়। পরে তাদের লাশ উদ্ধার করে ফায়ার সার্ভিস।

এবিষয়ে ভূঞাপুরের গোবিন্দাসী নৌ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআাই আলআমিন জানান, মহাসড়ক দিয়ে লোকজন ট্রাক, মাইক্রোবাস, সিএনজিচালিত অটোরিকশা, ভ্যান ও পায়ে হেঁটে নৌঘাটে ভিড় জমাচ্ছে নদী পাড় হয়ে ওপারে যেতে। আমরা সতর্কাস্থায় রয়েছি, যাতে কেউ নৌঘাটে ভিড় জমাতে বা নদী পাড় না হতে পারে বলেও জানান তিনি।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর সদস্যরা বিভিন্নস্থানে চেকপোস্ট বসিয়ে নজরদারি করলেও কোনভাবেই থামনো যাচ্ছেনা এসব মানুষের স্রোত। ফলে করোনা সংক্রমন ঝুঁকি কয়েকগুন বেড়ে যাবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।