বিনোদন

প্রেক্ষাগৃহে যুগলদের পাশাপাশি বসা নিয়ে শঙ্কা

  • 4
    Shares

প্রায় সাত মাস বন্ধ থাকার পর আজ শুক্রবার (১৬ অক্টোবর) স্বাস্থ্যবিধি মেনে খুলছে দেশের সিনেমা হল। তবে সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী ৫০ শতাংশ দর্শক ঢুকতে পারবেন প্রতিটি শো-এ। অর্থাৎ, ২০০ জনের আসন থাকলেও বসানো যাবে ১০০ জনকে। একটি টিকিটও বেশি বিক্রি করতে পারবেন না হল মালিকরা। স্পর্শজনিত সংক্রমণ ঠেকাতে মানা হবে সামাজিক দূরত্ব।

এক্ষেত্রে যুগলেরাও পাশাপাশি বসতে পারবেন কি না, তা নিয়ে রয়েছে শঙ্কা। করেনো বিধির শর্ত মানলে সিনেমা হলে অন্তত শুরুর পর্যায়ে এই দূরত্বটাও তাদের সহ্য করতে হবে।

বেশির ভাগ হল কর্তৃপক্ষই একসঙ্গে টিকিট কেটে আসা দর্শকদের পাশাপাশি বসার বিধি নিষেধ নিয়ে অস্বস্তিতে। তারা মনে করছেন, একই পরিবারের দুজন বা যুগলকে পাশাপাশি বসতে না দিলে অনেকেই হলবিমুখ হতে পারেন। তাদের আশা, চীন-জাপানের মতো অনেক দেশেই ধাপে ধাপে সিনেমা হলে দর্শক সংখ্যা বাড়ানোর অনুমতি মিলছে। এখানে কী হবে, তা নির্ভর করছে কোভিড পরিস্থিতির উপরে।

এদিকে, সরকারি নির্দেশ মতো সিনেমা হল খোলার নির্দিষ্ট দিনে দেশের প্রায় হল খুললেও বন্ধ থাকছে মধুমিতা, বলাকা, অভিসার ও জোনাকীর মতো দর্শকপ্রিয় হলগুলো। ভালো ছবি ছাড়া সিনেমা হল খুলতে নারাজ এসব হলের মালিকরা।

মধুমিতা হলের মালিক ইফতেখার উদ্দিন নওশাদ বলেন, যেনতেন ছবি নয়, শাকিব খানের সিনেমা দিয়ে হল খোলা উচিত। যেনতেন ছবি মুক্তি দিলে দর্শক সংখ্যা বাড়বে না বরং কমবে। এতে যে সিনেমা হল খোলা রয়েছে তাও অচিরে বন্ধ হয়ে যাবে। ভালো চলচ্চিত্র মুক্তি পেলে হলের সিট ভাঙ্গা থাকলেও দর্শক সিনেমা দেখবে। দর্শক ভালো মানের সিনেমা চায়। তাদের চাহিদা অনুযায়ী চলচ্চিত্র দিতে হবে।’

প্রসঙ্গত, সিনেমা হল খোলার প্রথম দিনেই আজ শুক্রবার মুক্তি পাচ্ছে আলোচিত-সমালোচিত আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলম অভিনীত ‘সাহসী হিরো আলম’ ছবিটি। এই ছবির প্রযোজকও তিনি। তবে হিরো আলমের ছবি দিয়ে হল চালু হওয়ায় শুরু হয়েছে বিতর্ক। এতে চলচ্চিত্রের সংকট আরও বাড়বে বলেই মনে করছেন অনেকে।


  • 4
    Shares

Related Articles