‘আগামী ১৫ দিন করোনা সংক্রমণ আরও বাড়তে পারে’

0
29

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মিডিয়া সেলের প্রধান ও অতিরিক্ত সচিব হাবিবুর রহমান খান বলেছেন, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণে আমরা পিকের (সবোর্চ্চসীমা) কাছাকাছি চলে এসেছি। হয়তো ঈদের পর সেখানে পৌঁছে যাবো। ফলে আগামী ১৫ থেকে ১৬ দিন করোনা সংক্রমণের এই অবস্থা অব্যাহত থাকতে পারে।আজ বুধবার (২০ মে) স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মিডিয়া সেলের নিয়মিত মিডিয়া ব্রিফিংয়ে তিনি এসব কথা জানান। এসময় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

করোনা শনাক্তের পরীক্ষার বিষয়ে হাবিবুর রহমান খান বলেন, আমাদের ল্যাবের সংখ্যা ও পরীক্ষার সংখ্যা প্রতিনিয়ত বাড়ছে। প্রতিদিন ১০ হাজারের কাছাকাছি পরীক্ষা হচ্ছে।অতিরিক্ত সচিব বলেন, প্লাজমা থেরাপি নিয়ে বিশ্বের ৭টি দেশ কাজ করছে। যারা করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন তাদের শরীর থেকে প্লাজমা নিয়ে কাজ করছে। আমরা সেটা করতে যাচ্ছি। প্লাজমা থেরাপির জন্য ঢাকা মেডিক্যালে কাজ করছে। বর্তমানে প্লাজমা সংগ্রহ চলছে।

‘প্রাথমিকভাবে আমরা ৪৫ জন্য রোগীর ওপর পরীক্ষামুলক প্রয়োগ করা হবে। পরীক্ষায় ভালো ফল পাওয়া গেলে ঢাকাসহ সারা দেশের করোনা হাসপাতালে প্রয়োগ করা হবে৷ একজনের কাছ থেকে সংগ্রহ করা প্লাজম ২ জন রোগীর ওপর প্রয়োগ করা হবে।হাবিবুর রহমান খান বলেন, কয়েকটি ওষুধ নিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষা চলছে। দেশের ৫টি প্রতিষ্ঠান ওষুধ উৎপাদনে গিয়েছে। এ পর্যন্ত ৪২টি ল্যাবে করোনা শনাক্তকরণ পরীক্ষা চলছে। সপ্তাহে সাতদিন তারা কাজ করছেন। প্রতিদিন প্রায় ১০ হাজার পরীক্ষা হচ্ছে।

হাসপাতালের প্রস্তুতি নিয়ে তিনি বলেন, সারাদেশে করোনা রোগীর জন্য ১১০টি হাসপাতাল প্রস্তুত রয়েছে। এর মধ্যে ঢাকাতে সরকারি হাসপাতাল আছে ৯টি আর বেসরকারি আছে ৫টি। মোট ১৪টি হাসপাতালে করোনার চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। ঢাকায় করোনা রোগীর জন্য ৭/৮ হাজার বেডের ব্যবস্থা করা হয়েছে। বসুন্ধরা কনভেনশন সিটি হাসপাতালে কোনো সিরিয়াস রোগী যাবে না। বসুন্ধরা মূলত আইসোলেশন সেন্টারের কাজ করবে। তারপরও সেখানে পর্যাপ্ত বেড, অক্সিজেনের ব্যবস্থা রয়েছে। সেখানে থাকা কোনো রোগীর পরিস্থিতি জটিল হলে তাকে করোনা হাসপাতালে নেওয়া হবে।

তামাকজাত দ্রব্য ও বিড়ি-সিগারেট উৎপাদন-বিক্রির বিষয়ে হাবিবুর রহমান বলেন, করোনায় আপৎকালীন তামাকজাত দ্রব্য ও বিড়ি-সিগারেট উৎপাদন ও বিক্রি সাময়িক বন্ধ রাখার অনুরোধ বা সুপারিশ করা হয়েছে। এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত দেবে শিল্প মন্ত্রণালয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা তামাকজাত দ্রব্য ও ধুমপান থেকে বিরত থাকতে বলেছে। আমাদের প্রধানমন্ত্রীও ইতোমধ্যে ঘোষণা দিয়েছেন, আগামী ২০৪০ সালের মধ্যে বাংলাদেশ থেকে তামাকজাত পণ্য নির্মূল করা হবে।