রাত ৪:০৯ বৃহস্পতিবার ১৪ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

পলাশবাড়ীতে আমন ধানে ভাল ফলনের আশা কৃষকদের

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : নভেম্বর ২২, ২০১৭ , ৯:৫৬ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : কৃষি
পোস্টটি শেয়ার করুন

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধা: গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার পবনাপুর গ্রামের কৃষক রহমানের ৭ বিঘা জমিতে এবার আমন ধানের আবাদ ভালো হওয়ায় প্রায় ১০০ মন ধান ফলনের আশা তার। ভাল ফলন হওয়ার সম্ভাবনায় খুশি তিনি। একই ভাবে ফলন ভাল হওয়ার আশা করছেন, মহদীপুর ইউনিয়নের গোপালপুর গ্রামের কৃষক হাবিবুর হোসেন। তার দুই বিঘা জমিতে উচ্চ ফলনশীল জাতের (উফশি) বিআর-১১ ধান পাকা প্রায় শেষ। আবাদ ভালো হওয়ায় ওই জমি থেকে ৩০-৩২ মন ধান পাওয়া যাবে বলে আশা করছেন কৃষক তোফাজ্জল।

জাইতরবালা গ্রামের কৃষক আবুল হোসেন ও সাদা ইসলাম জানান, আবহাওয়া ভালো থাকায় এবার তাদের আমন আবাদের ফলন অনেক বেশি ভাল হবে। বুধবার বিকালে সরেজমিন দেখা গেছে, উপজেলার নুরপুর, গোয়ালপাড়া, শিমুলতলা, টেংরা, গনেশপুর ও দুর্গাপুর এলাকায় আমন ধান পাকা প্রায় শেষ।

উপজেলার মাঠে মাঠে এখন দিগন্তজোড়া পাকা আমন আবাদের সোনালী সমারোহ। অনুকূল আবহাওয়া, সময়োপযোগী সেচ এবং সারের মূল্যে কৃষকের হাতের নাগালে থাকায় এ উপজেলায় আমন আবাদে তেমন বেগ পেতে হয়নি কৃষককে।

কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা কৃষ্ণকুমার জানান, পুরো উপজেলায় ১২ হাজার ৮শ হেক্টর জমিতে আমনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। আবাদ হয়েছে ১০ হাজার ৮ শ ৫০হেক্টর জমিতে । শহিদা বেগম বলেন, কাজ করতে গিয়ে যা শিখেছি শুধু সে সব রোগের ওষুধ দেই। স্যাকমো কেন্দ্রে না থাকলে তখন বাধ্য হয়ে রোগীদের ওষুধ দিতে হয়। কেননা অনেক দূর-দুরান্তর থেকে অনেক রোগী আসেন। তাদেরকে তো আর ফেরত দিতে পারি না।

উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের তিনবিঘা জমি থাকলেও এখন দশ শতাংশেরও কম জায়গা রয়েছে। বাকিসব দখল হয়ে গেছে।সদর, মহদীপুর ও বেতকাপাা উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের মতো উপজেলার উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রেরই একই অবস্থা।এসব বিষয়ে গাইবান্ধার সিভিল সার্জন ডা. মো. আব্দুস শাকুর বলেন, জনবল সংকটের জন্য চিকিৎসা সেবা ব্যাহত হচ্ছে। জনবল চেয়ে কয়েকবার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করা হয়েছে। কিন্তু পাওয়া যাচ্ছে না।

Comments

comments