দেশজুড়ে

বাগমারায় লকডাউনে দিশেহারা ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের প্রায় হাজারো শ্রমিক

  • 53
    Shares

মোঃ আঃ আলিম সরদার,,বাগমারা: রাজশাহীর জেলার বাগমারা উপজেলায় করোনাভাইরসের থাবায় হুমকির মুখে পড়েছে ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্পের সাথে জড়িত প্রায় হাজারো শ্রমিক। গত ২৬শে মার্চ থেকে সকল প্রতিষ্ঠান, কারখানা বন্ধ হওয়ায় প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্পের প্রায় হাজারো শ্রমিক বেকার হয়ে পড়েছে। এলাকার শ্রমিকগন নিজ নিজ বাড়িতে অবস্থান করায় অনেকটা মানবতার জীবনযাপন করছেন তারা। ঘরে খাবার না থাকায় জীবিকার তাগিদে বের হলেও মিলছে না কোন কাজ।

গতকাল মঙ্গবার উপজেলার শ্রীপুর ইউপির বাঙ্গালপাড়ার পাল পাড়ায় গিয়ে দেখা যায় একসময়ে কাজে ব্যস্ত মানুষগুলি কাজ গুটিয়ে অলস সময় পার করছেন। স্থানীয় কুমার নিতাই পালের সাথে কথা বললে জানতে পারেন, লকডাউন করতে সরকারী সিদ্ধান্ত তারা মেনে চলছে। তবে পরিবার বাচাঁতে সরকারী অনুদান প্রয়োজন। অনেকে ত্রান দিলেও তাদের পক্ষে সংগ্রহ করা কঠিন হচ্ছে বলে জানান তারা। তিনি আরও জানান, পাল পাড়ায় প্রায় ৫০ জন শ্রমিক এই পেশার সাথে জড়িত আছে। দোকানপাট ও পরিবহন বন্ধের কারনে উৎপাদন বন্ধ থাকায় ব্যাপারীগন উৎপাদিত জিনিসগুলি ক্রয় করতে আসতে পারছে না ফলে বাড়ি থেকে বিক্রয়ের উপর নির্ভর করতে হচ্ছে । বিক্রয় কম হওয়ায় উৎপাদন বন্ধ রাখতে হয়েছে ফলে শ্রমিকগন অলস সময় কাটাচ্ছে। এদের অধিকাংশ পরিবারই মানবেতর জীবনযাপন করছে।

কামারশিল্পের সাথে জড়িত প্রায় ৫ শতাধিক শ্রমিক কর্মহীন হয়ে পড়েছে। এই সকল শিল্পের অধিকাংশ শ্রমিকই দিন আয়ের উপর নির্ভরশীল, কাজ বন্ধ থাকায় অর্থাভাবে দিন কাটাচ্ছে সকল শ্রমিক। নাম মাত্র কয়েকজন ত্রান পেলেও মিলছেনা সকলের জন্য সরকারী বরাদ্দকৃত ত্রাণ।

এসময় বেকার হয়ে যাওয়া নিয়ে আয়ের শ্রমিকদের জন্য সরকারি খাদ্য ও অর্থ সহায়তা, যা স্থানীয় সরকারের মাধ্যমে বিতরণ করা হয়েছে। কিন্তু উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে খোঁজ নিয়ে জানা যায় সরকারী বরাদ্দকৃত ত্রাণ দেয়া শুরু করলেও সকল শ্রমিকদের অর্ন্তভুক্ত করা হয়নি বলে অভিযোগ করেছেন অনেকে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শরিফ আহম্মেদ বলেন, বরাদ্দকৃত সরকারী ত্রাণ উপজেলা বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদেও মাধ্যমে বিতরণ করা হয়েছে। যে সকল ব্যক্তি বা শ্রমিকরা তালিকা থেকে বাদ পড়েলে পরবর্তীতে যাচাই বাচাই করে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের মাধ্যমে ত্রান প্রদান করা হবে।


  • 53
    Shares

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button