বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

অ্যান্টি-ভাইরাস কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা ম্যাকএ্যাফি গ্রেপ্তার

  • 12
    Shares

সুপরিচিত অ্যান্টি-ভাইরাস সফটওয়্যার কোম্পানির কর্ণধার জন ম্যাকএ্যাফিকে গ্রেপ্তার করেছে স্পেনের পুলিশ। নিজের নামে তৈরি ম্যাকএ্যাফি অ্যান্টি-ভাইরাস কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা তিনি।

বিবিসি জানায়, কর ফাঁকির এক মামলায় গ্রেপ্তার হন ম্যাকএ্যাফি। বিচারের জন্য তাকে যুক্তরাষ্ট্রের হাতে তুলে দেয়া হতে পারে।

ম্যাকএ্যাফির বিরুদ্ধে অভিযোগ, পরামর্শদাতা হিসেবে কাজ করে, বক্তৃতা দিয়ে, ক্রিপটোকারেন্সির ব্যবসা করে এবং নিজের জীবনী প্রকাশের কপিরাইট বিক্রি করে লাখ লাখ ডলার আয় করলেও চার বছর ধরে ট্যাক্স রিটার্ন জমা দেননি।

যদিও এসব আয়ের সঙ্গে তার ম্যাকএ্যাফি অ্যান্টি-ভাইরাস সফটওয়্যার প্রতিষ্ঠানের সম্পর্ক নেই এ প্রযুক্তি উদ্যোক্তার।

যুক্তরাষ্ট্রের বিচার বিভাগ এক বিবৃতিতে জানায়, ম্যাকএ্যাফি তার নিজের আয় তার মনোনীত অন্য লোকদের নানারকম অ্যাকাউন্টে জমা দিয়েছিলেন।

২০১৪ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত তিনি কর দেবার দলিল জমা দেননি। এ ছাড়া তার বিরুদ্ধে অন্যদের নামে থাকা প্রমোদতরী ও বাড়ি-জমির মতো সম্পদ গোপন করার অভিযোগ আছে।

জন ম্যাকএ্যাফি এসব অভিযোগের ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করেননি। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হলে তা ৩০ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে।

প্রযুক্তির জগতে ম্যাকএ্যাফি একজন বিতর্কিত ব্যক্তি হিসেবে পরিচিত।

১৯৮০ এর দশকে ম্যাকএ্যাফি ভাইরাসস্ক্যান নামে প্রথম বাণিজ্যিক অ্যান্টিভাইরাস সফটওয়্যার বাজারে ছেড়ে তিনি নজর কাড়েন। এটি পরে শত শত কোটি ডলারের এক শিল্পে পরিণত হয়।

ম্যাকএ্যাফি অবশ্য পরে সেই ব্যবসা ইনটেল কোম্পানির কাছে বিক্রি করে দেন। তবে তিনি এখনো তার নিজের উদ্যোগে বিভিন্ন সাইবার-সিকিউরিটি পণ্য তৈরি করছেন।

মধ্য আমেরিকার দেশ বেলিজে ২০১২ সালে তার প্রতিবেশীকে গুলিবিদ্ধ এবং মৃত অবস্থায় পাওয়া যাবার পর তিনি ছদ্মবেশ ধরে পালিয়ে গিয়েছিলেন।

যদিও তার দাবি ওই মৃত্যুর সঙ্গে তার কোন সম্পর্ক নেই। তবে পুলিশ এখনো তার ব্যাপারে খোঁজখবর নিচ্ছে।

ডমিনিকান রিপাবলিকে তাকে একবার কিছু সময়ের জন্য গ্রেপ্তার করা হয়েছিল, দেশটিতে অস্ত্র নিয়ে আসার অভিযোগে।

২০১৬ ও ২০২০ সালে ম্যাকএ্যাফি লিবার্টারিয়ান পার্টি থেকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রার্থী হবার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন।

অল্প বয়সেই অ্যালকোহল এবং মাদকে আসক্ত হয়ে পড়েন তিনি। পড়াশোনায় মেধাবি হলেও অন্য একজন ছাত্রীর সঙ্গে যৌনসম্পর্কের কারণে তার পিএইচডি বাতিল করা হয়।

তার বাবা ছিলেন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় ব্রিটেনে থাকা একজন মার্কিন সৈন্য। পরে অ্যালকোহলে আসক্ত হয়ে পড়ে নিজের গুলিতে আত্মহত্যা করেন তিনি।


  • 12
    Shares

Related Articles