দেশজুড়ে

মামলাবস্থায় পুকুর ভরাট; বন্ধ করলো প্রশাসন

  • 239
    Shares

রাব্বি ইসলাম, স্টাফ রিপোর্টার: হাইকোর্টে সরকার পক্ষ থেকে আপিল করা স্বত্ত্বেও রাতারাতি সরকারি খাস পুকুর ভরাটের কাজে ব্যস্ত ছিলেন টাঙ্গাইল জেলা বিএনপির সাবেক সদস্য ও জেলা এবং মির্জাপুর উপজেলা ইটভাটা মালিক সমিতির সভাপতি ফিরোজ হায়দার খান। তবে গোপন তথ্যে গত শনিবার (১৬‘মে) অভিযান চালিয়ে মাটি ভরাট করার কাজ বন্ধ করে দেয় উপজেলা প্রশাসন।

জানা গেছে, উপজেলার গোড়াই মমিননগর এলাকার ২৮৬১ দাগের ০.৮৪ একর জমি নিয়ে হাইকোর্টে বর্তমানে মামলা চলছে। মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত উক্ত জায়গার শ্রেণি পরিবর্তন, কোনো অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ ও জনসাধারণের অনুপ্রবেশের নিষেধাজ্ঞা থাকলেও সরকারের এ আদেশ অমান্য করে রাতারাতি সরকারি খাস পুকুর ভরাট করে আসছিলেন প্রভাবশালী ফিরোজ হায়দার খান। এনিয়ে স্থানীয় এলাকাবাসীদের মাঝে ব্যাপক ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। যদিও গোপন তথ্যে অভিযান চালিয়ে মাটি ভরাটের কাজ বন্ধ করে দিয়েছে প্রশাসন। অভিযানের পর উক্ত জায়গায় টাঙিয়ে দেয়া হয়েছে নোটিশ বোর্ড।

নাম না বলা শর্তে কয়েকজন এলাকাবাসী অভিযোগ করে বলেন, প্রভাবশালী হওয়ায় জোর দখল করে মানুষের জায়গা-জমি হাতিয়ে নেয়াই ফিরোজ হায়দারের কাজ। টাকা দিয়ে অনেকের মুখই বন্ধ করে তিনি রিতিমতো অবৈধভাবে সরকারি খাস জমি ভরাট করছিলেন। আমরা এর উপর্যুক্ত বিচার চাই। এলাকায় শান্তি চাই।

এ বিষয়ে ফিরোজ হায়দার খানের সাথে কথা হলে উক্ত জায়গায় মামলা চলমান আছে বলে নিশ্চিত করেছেন।
জানতে চাইলে সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো. জুবায়ের হোসেন বলেন, উক্ত জায়গা নিয়ে সরকারের পক্ষ থেকে হাইকোর্টে আপিল করা হয়েছে। মামলা নিষ্পত্তি না হওয়ার পূর্বেই উক্তস্থানে মাটি ভরাটের কাজ চলছিলো।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উক্ত জায়গায় অভিযান চালিয়ে পুকুরে মাটি ফেলার কাজ বন্ধ করে দিয়েছি। সরকারের স্বার্থ যেখানে বিনষ্ট হবে কিংবা কেউ যদি বেআইনিভাবে সরকারি জমি আত্মসাৎের চেষ্টা করে তাহলে তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।


  • 239
    Shares

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button