চীনে ইন্টারনেটভিত্তিক ব্যবসায় ধস

0
3

এটা ঠিক, নভেল করোনাভাইরাস মহামারী কিছু কিছু ক্ষেত্রে চীনের ডিজিটাল অর্থনীতিকে খানিকটা চাঙ্গাই করেছে। কিন্তু দেশটির ইন্টারনেটভিত্তিক ব্যবসা বেশ মার খাচ্ছে। কারণ, গোটা বিশ্ব এখন কার্যত বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছে। তাই নিজেদের ব্যবসা টিকিয়ে রাখতে কোনো কোম্পানি লে-অফে যাচ্ছে, কেউবা আবার কর্মীদের বেতন-ভাতা কমিয়ে দিচ্ছে।অনলাইন লজিং শেয়ারিং ও বুকিংয়ে চীনের খ্যাতিমান সাইট তুজিয়া মহামারী শুরুর আগে আশা করছিল, ২০২০ সালটি তাদের ব্যবসাসফল কাটবে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রতিষ্ঠানটির এক সাবেক কর্মী সাউথ চায়না মর্নিং পোস্টকে এ কথা বলেছেন।

সেই তুজিয়াকেই এখন ৮০০ কর্মীকে লে-অফ করতে হলো, যা কিনা তাদের মোট কর্মীর ৪০ শতাংশ। কোম্পানিটি এতটাই আর্থিক সংকটের মুখে যে জুন পর্যন্ত কর্মীদের বেতন পরিশোধের মতো যথেষ্ট অর্থও তাদের নেই। এমনকি মার্চ মাসে ছাঁটাই হওয়া এক কর্মী জানিয়েছেন, তার বেতনও পরিশোধ করা হয়নি। ওই কর্মী বলেন, ‘কভিড-১৯ না হলে এ বছর কোম্পানি লাভ করত।তুজিয়ার এক প্রতিনিধি অবশ্য কর্মীদের লে-অফ নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

নভেল করোনাভাইরাসের কারণে তুজিয়ার মতো চীনের এমন বহু প্রযুক্তিনির্ভর কোম্পানি মারাত্মকভাবে ক্ষতির মুখে পড়েছে। অথচ গেমিং, অনলাইন এডুকেশন ও খাবার সরবরাহের মতো ব্যবসা বেশ রমরমাই ছিল মহামারীর আগে। তখনকার চিত্রের সঙ্গে এখনকার মন্দার চিত্র কোনোভাবেই মিলছে না। কিন্তু এটাই যে বর্তমান বাস্তবতা।

অবশ্য করোনাভাইরাস মহামারী আসার আগে থেকেই এই আভাস ছিল, ২০২০ সালটি চীনের প্রযুক্তি খাতের জন্য চ্যালেঞ্জিং হয়ে উঠবে। বিশেষ করে, ২০১৯ সালের মে মাসে দেশসেরা টেলিকম কোম্পানি হুয়াওয়ে টেকনোলজিসকে কালো তালিকায় রাখার ঘোষণা দেয় যুক্তরাষ্ট্র বাণিজ্য বিভাগ। বিশেষ লাইসেন্স ছাড়া তাদের আমেরিকান কোনো কোম্পানির সঙ্গে ব্যবসার ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়। একই সময় নিষেধাজ্ঞায় পড়ে চীনের আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ফার্ম হিকভিশন, মেকভি, আইফ্লাইটেকের মতো কোম্পানি এবং এতে তাদের বিক্রি ও মুনাফা দুটোতেই পতন ঘটে।

চীনে বর্তমানে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৯০ কোটিরও বেশি। ইন্টারনেটের বিস্ফোরণের হাত ধরে ছোট-বড় বহু কোম্পানি ব্যবসায় দারুণ সফলতা পেয়েছে। কিন্তু বিশ্বজুড়ে নভেল করোনাভাইরাস হানা দেয়ার কারণে বড় কোম্পানিগুলোর সঙ্গে ছোট ছোট কোম্পানিও মুুখ থুবড়ে পড়েছে।

ই-কমার্স সাইট মোগু লাইল-স্ট্রিমিংয়ের মাধ্যমে জামাকাপড় বিক্রি করে। এ কোম্পানিটি ১৪০ কর্মীকে অব্যাহতি দেয়ার কথা নিশ্চিত করে, যা তাদের মোট কর্মীসংখ্যার ১৪ শতাংশ।অনলাইন রিক্রুটমেন্ট সাইট ঝাওপিনের ভাইস প্রেসিডেন্ট লি কিয়াং বলেন, ‘কিছু ইন্টারনেট এন্টারপ্রাইজ কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে যাচ্ছে। কেননা বিনিয়োগকারীরা এখন আর চীনা ইন্টারনেট কোম্পানির দিকে নজর দিচ্ছেন না, ফলে এ শিল্পের প্রবৃদ্ধিও দ্রুত কমে যাচ্ছে।’

চীনের এওএন হিউম্যান ক্যাপিটাল সলিউশন মোট ৩৩৯টি কোম্পানির ওপর সমীক্ষা চালায়। এ সমীক্ষায় তারা দেখতে পায়, প্রযুক্তি খাতের ৫ দশমিক ৪ শতাংশ কোম্পানি কর্মী ছাঁটাই করেছে আর ১২ দশমিক ৯ শতাংশ বলেছে, তারা কনট্রাক্টর, শিক্ষানবিশ, খণ্ডকালীন কর্মী ও বাইরের বিশেষজ্ঞ নিয়োগ কমিয়ে দিচ্ছে। অর্ধেকেরও বেশি কোম্পানি বলেছে, ভবিষ্যতে নতুন কর্মী নিয়োগের ক্ষেত্রে তারা খুবই সতর্ক থাকবে।সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট