অর্থনীতি

ইস্পাত খাতে বছর শেষে ক্ষতি দাঁড়াতে পারে ১৫ হাজার কোটি টাকা


কভিড-১৯-এর প্রভাবে শুধু এ বছরের মার্চ ও এপ্রিলেই বাংলাদেশের স্টিল শিল্পে সম্ভাব্য লোকসানের পরিমাণ প্রায় ৩ হাজার কোটি টাকা। এ পরিস্থিতি চলমান থাকলে বছর শেষে খাতটিতে ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়াবে প্রায় ১৫ হাজার কোটি টাকা। এজন্য সংকট মোকাবেলায় স্বল্প সুদে দীর্ঘমেয়াদি ঋণের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ স্টিল ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিএসএমএ)।

গতকাল ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে বিএসএমএ নেতারা এসব দাবি জানান। সংগঠনের সভাপতি মনোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ। একই সঙ্গে আগামী বাজেটে স্ক্র্যাপ আমদানিতে আগাম কর (এটি) প্রত্যাহার, আমদানি শুল্ক ছাড়, অগ্রিম আয়কর (এআইটি) প্রত্যাহার, খুচরা বিক্রি পর্যায়ে ভ্যাট হ্রাস ও উেস আয়কর প্রত্যাহারের দাবি জানায় সংগঠনটি।

স্বাগত বক্তব্যে বিএসএমএ সভাপতি মনোয়ার হোসেন বলেন, গত দুই মাসে করোনার প্রভাবে এ সেক্টরে ৩ হাজার কোটি টাকা ক্ষতি হয়েছে। এ অবস্থা ডিসেম্বর পর্যন্ত চলতে থাকলে লোকসানের পরিমাণ ১৭-১৮ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে। আগামীকালও যদি করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হয়, তাহলেও স্টিল খাতকে আগের অবস্থায় ফিরে যেতে অন্তত দুই বছর সময় লাগবে।

তিনি বলেন, সংকট উত্তরণে ব্যাংকগুলোকে নিয়ে চিন্তা ও ভয় কাজ করছে। কিছু ব্যাংক সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিলেও বেশির ভাগ হাত গুটিয়ে নিয়েছে। উপরন্তু ঋণের ১৪ শতাংশ হারে সুদ দিতে চিঠি দিয়েছে। তিনি আরো বলেন, স্টিল সেক্টর জনগণের ট্যাক্সের টাকা অনুদান হিসেবে নিতে চায় না। আমরা স্বল্প সুদে দীর্ঘমেয়াদি ঋণ চাই। বিদ্যমান ঋণের মেয়াদ এবং এলসির লিমিট বৃদ্ধি চাই।

বাজেট শুল্ক-করসংক্রান্ত প্রস্তাব তুলে ধরে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ বলেন, করোনায় কোন সেক্টর কতটুকু ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, তা বিবেচনায় নিয়ে আগামী বাজেটে সহায়তা দিতে হবে। স্টিল খাতের কাঁচামাল শতভাগ আমদানিনির্ভরশীল। তাই স্ক্র্যাপ আমদানিতে আগাম কর (এটি) প্রত্যাহার, আমদানি শুল্ক ছাড়, অগ্রিম আয়কর (এআইটি) প্রত্যাহার, খুচরা বিক্রি পর্যায়ে ভ্যাট হ্রাস ও উেস আয়কর প্রত্যাহারের দাবি জানান তিনি।

নভেল করোনাভাইরাসের প্রভাবে বাংলাদেশের স্টিল শিল্প বর্তমানে ভীষণভাবে বিপর্যস্ত ও ক্ষতিগ্রস্ত। স্টিল শিল্প বাংলাদেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ শিল্প সেক্টর। দেশের অবকাঠামো ও আবাসন নির্মাণে স্টিল সেক্টরের ভূমিকা অপরিসীম। এ সেক্টরে বিনিয়োগের পরিমাণ প্রায় ৫০ হাজার কোটি টাকা এবং প্রায় তিন লাখ লোকের কর্মসংস্থান এ শিল্পের সঙ্গে সরাসরি সম্পৃক্ত।

সংগঠনটি জানিয়েছে, বাংলাদেশের স্টিল শিল্প ৯০% কাঁচামাল আমদানিনির্ভর। সমগ্র বিশ্বের স্টিল স্ক্র্যাপ সরবরাহব্যবস্থা সম্পূর্ণভাবে ভেঙে পড়েছে। গ্রীষ্মকালীন সংগ্রহনির্ভর এ কাঁচামাল এ বছর আর সংগ্রহ করা যাচ্ছে না। বিশ্বের সর্ববৃহৎ রফতানিকারক দেশ যুক্তরাষ্ট্র এবং সম্মিলিত ইউরোপে প্রচুর সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান এরই মধ্যে বন্ধ ঘোষণা করেছে। কনটেইনারের অভাবে শিপমেন্ট হচ্ছে না। ট্রান্সশিপমেন্ট পোর্টে জাহাজের অভাবে কনটেইনারের স্তূপ জমাট বাঁধছে। শুধু চায়নাতে আটকে আছে ৮০ লাখের বেশি খালি কনটেইনার অর্থাৎ বিশ্ববাজারে আগামী

বছর পর্যন্ত একটি শিল্পের প্রধান কাঁচামাল সরবরাহে ভয়াবহ সংকট থাকবে। আমাদের সেক্টরকে স্বাভাবিক পর্যায়ে ফিরিয়ে আনতে অন্ততপক্ষে ১৮ মাস সময় প্রয়োজন এবং আর্থিক ক্ষতি পুষিয়ে নিতে অন্ততপক্ষে পাঁচ থেকে ছয় বছর প্রয়োজন।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, বর্তমান পরিস্থিতির কারণে ২০২০ সালে যেকোনো শিল্পপ্রতিষ্ঠানের পক্ষে মুনাফা অর্জন করা অসম্ভব। এক্ষেত্রে আমদানি বা বিক্রয় পর্যায়ে অগ্রিম আয়কর কর্তন অমূলক ও অযৌক্তিক। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড স্টিল শিল্পের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে অগ্রিম আয়কর বাবদ অতিরিক্ত বিপুল অংকের টাকা কর্তন করেছে। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে প্রস্তাবিত বাজেটের পরিপ্রেক্ষিতে এনবিআর অযৌক্তিকভাবে বিপুল অংকের ভ্যাট আদায় করেছে। এ অর্থ ফেরত প্রদানের কথা থাকলেও তা অদ্যাবধি ফেরত পাওয়া যায়নি। বর্তমান অর্থ সংকটের কারণে ওই অতিরিক্ত কর্তনকৃত টাকা ফেরত প্রদানসহ অগ্রিম আয়কর ও আগাম কর আরোপ বন্ধ করার জন্য দাবি জানিয়েছে বিএসএমএ।

সম্ভাব্য লোকসানের পরিমাণ হ্রাস করতে অর্থ মন্ত্রণালয়, জ্বালানি মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ ব্যাংক বরাবর বেশকিছু প্রস্তাবনা উপস্থাপন করা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে সম্ভাব্য লোকসান এবং জিডিপিতে স্টিল শিল্পের অবদানের ভিত্তিতে সরকারের ঘোষিত ৩০ হাজার কোটি টাকার সরকারি প্যাকেজ থেকে স্টিল শিল্পকে ৩ হাজার কোটি টাকার ঋণ প্রদান; দেশের অর্থনৈতিক অবকাঠামো ঠিক রাখতে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে তেমনই সম্প্রসারণমূলক ব্যবসাবান্ধব এবং ত্বরিত সিদ্ধান্তে অগ্রসরমাণ ভূমিকা পালনের প্রয়োজনীয় নির্দেশ প্রদান; স্টিল শিল্পের জন্য চার মাসের সমপরিমাণ অতিরিক্ত এলসি লিমিটের অনুমোদন প্রদান প্রয়োজন। অর্থাৎ ননফান্ডেড সুবিধাদি প্রদান ও এ খাতের প্রতিটি উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী ও শ্রমিকদের চার মাসের বেতন-ভাতা ঋণ আকারে অন্তত ১২টি কিস্তিতে পরিশোধের অনুমোদন প্রার্থনা করছি।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

আরও পড়ুন
Close
Back to top button