দেশজুড়ে

জরুরী সেবা ব্যতিত গাইবান্ধায় সকল দোকানপাট অনির্দিষ্টিকালের জন্য বন্ধের সিদ্ধান্ত

  • 9
    Shares

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধারঃকরোনা ভাইরাস মোকাবেলায় গাইবান্ধা জেলাবাসীর স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিতকরনের লক্ষে, আজ ১৮ মে ২০২০ বিকাল ৪ টা হতে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত জরুরী সেবা ব্যতিত জেলার সকল বানিজ্যিক মার্কেটসহ কাপড়ের দোকান, তৈরি পোশাকের দোকান, কসমেটিকস ও জুতার দোকানসহ সকল ধরণের দোকানপাট অনির্দিষ্টিকালের জন্য বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটি ।

আজ সোমবার দুপুরে জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে জেলা করোনার প্রতিরোধ কমিটির সভায় কমিটির সভাপতি জেলা প্রশাসক আবদুল মতিন এই ঘোষনা দেন।

এতে বলা হয়, ঔষুধ, কাচাবাজারসহ জরুরী সেবামূলক প্রতিষ্ঠান এই আওতার বাইরে থাকবে। এর আগে গত ১০মে থেকে ঈদ উপলক্ষে বিভিন্ন বিপণী কেন্দ্র ও দোকানপাট খোলার নির্দেশনা দেয়া হয়। কিন্তু ক্রেতা-বিক্রেতারা সামাজিক দুরত্ব ও স্বাস্থবিধী নামানায় এই সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়। ছবি ১

গোবিন্দগঞ্জে গৃহবধু ধর্ষণে ৪ দিনেও মামলা না হওয়ায় চরম নিরাপত্তাহীনতায ধর্ষিতার পরিবার

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার কামদিয়া ইউনিয়নের ছাতিয়ানচুড়া গ্রামের বেলালের স্ত্রী ২ সন্তানের জননী ধর্ষণের শিকার।

ধর্ষিতার পরিবার সুত্রে জানা গেছে, গত ১৪ মে মাগরিবের পর বাড়ীতে কেউ না থাকার সুবাদে একই গ্রামের আবুল কালামের ছেলে লম্পট হৃদয় (২৬) তাকে ধর্ষণ করে। এ সময ধর্ষিতার স্বামী হাতে নাতে ধর্ষককে ধরে ফেলে। স্থানীয় লোকজন গ্রাম্য শালিশ বৈঠকের কথা বলে ধর্ষক হৃদযকে ছেড়ে দেয়। কিন্তু গ্রাম্য শালিশ না হওয়া ধর্ষিতা গৃহবধুর পরিবার থেকে থানায় এজাহার দাখিল করেন। এজাহারটি আমলে নিয়ে দ্রূত আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণে বৈরাগীরহাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের এসআই নুরুল ইসলামকে দায়িত্ব দেওয়া হয়। তদন্তে যেয়ে তিনি ধর্ষিতার পরিবারকে আইনী সহায়তা না দিয়ে সমঝোতার দায়িত্ব দিয়ে আসেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধিকে।

এ দিকে থানায় মামলা না হওয়ায় ধর্ষক হৃদয় ধর্ষিতা সহ তার পরিবারকে মামলা না করতে হুমকি অব্যাহত রাখায় ধর্ষিতার পরিবার চরম নিরাপত্তাহীনতায় আছে।
সচেতন মহল ধর্ষিতা ওই গৃহবধুর ন্যায় বিচারের স্বার্থে পুলিশ প্রশাসনের জরুরী আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।


  • 9
    Shares

Related Articles