দেশজুড়ে

যশোরে চাঁদাবাজিকালে সাংবাদিক পরিচয়ে দাপিয়ে বেড়ানো ৪ যুবক আটক

  • 6
    Shares

যশোর প্রতিনিধিঃ যশোরে চাঁদাবাজিকালে মানবাধিকার কর্মী ও সাংবাদিক পরিচয়দানকারী চারজনকে আটক করা হয়েছে। যশোর সদর উপজেলার কাশিমপুর মোল্লাপাড়ায় চাঁদাবাজি করতে গিয়ে তারা জনরোষের শিকার হয়।

এরা হলো- সদর উপজেলার বীরনারায়ণপুর গ্রামের সিরাজুল ইসলামের ছেলে শামছুর রহমান নীরব (৩২), জিকরগাছার বাঁকড়ার মৃত ওয়াহেদের ছেলে বিল্লাল হোসেন (৩২), মৃত আবুল কাশেমের ছেলে আব্দুল জব্বার (৩৫) এবং লিয়াকত আলীর ছেলে তারিফুল ইসলাম (২৮)।

এ ঘটনায় কাশিমপুর মোল্লাপাড়ার শহিদুল ইসলাম কোতয়ালি থানায় মামলা করেছেন। তিনি এজাহারে উল্লেখ করেছেন, তার বড় ভাই আব্দুল হাই সিদ্দিকী একজন রেজিস্ট্রার্ড কাজী। তার ওই কাজে তিনিও সহযোগিতা করেন। গত বছরের ৬ সেপ্টেম্বর ফুলবাড়ি গ্রামের শহিদুল ইসলামের লিটনের সাথে কেফায়েত নগর গ্রামের রবিউল ইসলামের মেয়ে আঞ্জলী খাতুনের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে লিটন শ্বশুর বাড়িতে থাকতেন। লিটনের একটি গরু বিক্রি করে তার শাশুড়ি ওই টাকা তার অন্য জামাইকে দেয়। এই নিয়ে লিটনের সাথে তার শ্বশুর বাড়ির সম্পর্কের অবনতি ঘটে। ফলে লিটন তাই স্ত্রীকে সাথে নিয়ে তার পিতার বাড়িতে চলে আসে। এরপর লিটনের শাশুড়ি প্রচার করে তার মেয়ের বাল্যবিয়ে হয়েছে।

এজাহারে আরো উল্লেখ করা হয়েছে, এই বিষয়টি পূঁজি করে আসামিরা গত শনিবার দুপুর সোয়া দুইটার দিকে তার বাড়িতে যায়। এবং নিজেদের মানবাধিকার কর্মী ও সাংবাদিক বলে পরিচয় দেয়। তাকে বলা হয়, ‘খুলনা বিভাগীয় অফিস থেকে তদন্ত করতে এসেছি। আপনাদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। মামলা নিস্পতি করতে হলে ১০ হাজার টাকা লাগবে।’ তাদের এই ধরনের কথাবার্তায় অনেকের সন্দেহ হয়। এবং পরিচয়পত্র দেখাতে বলে। কিন্তু কোন মানবাধিকার সংগঠনের পরিচয়পত্র দেখাতে পারেনি। পরে এলাকার লোকজন তাদের আটক করে স্থানীয় ফুলবাড়ি পুলিশ ক্যাম্পে সংবাদ দিলে পুলিশ ওই চারজনকে আটক করে।

ফুলবাড়ি পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ এসআই রকিব হোসেন জানিয়েছেন, চারজনকে হেফাজতে নেয়া হয়। তারা জনরোষের শিকার হয়েছিলেন। তাদের কাছ থেকে বিভিন্ন অখ্যাত সংবাদ মাধ্যমের পরিচয়পত্র পাওয়া গেছে। মানবাধিকার কর্মীর মিথ্যা পরিচয় দিয়ে তারা ওই গ্রামের আব্দুল হাই সিদ্দিকী নামে এক নিকাহ রেজিস্টার্ডকে ফাঁসাতে গিয়েছিলো। এ ঘটনায় কোতয়ালি থানায় একটি মামলা হলে রোববার তাদের আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।


  • 6
    Shares

Related Articles