আন্তর্জাতিক

চীন ছাড়ছে বিভিন্ন কারখানা: সুযোগটা কি নিতে পারবে বাংলাদেশ?

  • 5
    Shares

চীন থেকে বিভিন্ন কারখানা নিজেদের গুটিয়ে নিচ্ছে এবং এ অবস্থায় সেখান থেকে নিজেদের ভাগটা নেয়ার জন্য তৎপর হয়েছে ভিয়েতনাম, ভারত, ইন্দোনেশিয়াসহ আরও কিছু দেশ। তবে, বাংলাদেশকে তাদের ভাগটা পাওয়ার জন্য তেমন একটা সক্রিয় দেখা যাচ্ছে না।

জাপান, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপ ঘোষণা দিয়েছে যে, একটি মাত্র দেশের উপর নির্ভরতা থেকে বেরিয়ে আসার জন্য তারা তাদের কারখানাগুলো চীন থেকে সরিয়ে নেবে। জাপান তাদের উৎপাদন ইউনিটগুলোকে চীন থেকে সরে আসতে সহায়তার জন্য এরই মধ্যে ২.২ বিলিয়ন ডলার বরাদ্দও দিয়েছে। কোরিয়ান কোম্পানিগুলোও চীন থেকে সরে আসার পরিকল্পনা করছে।

বাংলাদেশে লকডাউন চলছে এবং অধিকাংশ সরকারী কর্মকর্তারা প্রায় দেড় মাসের দীর্ঘ ছুটিতে রয়েছে। তারা বিদ্যমান কাজের বোঝার পেছনে লুকিয়ে আছে। যে কাজের মধ্যে রয়েছে কোম্পানি ও দেউলিয়া আইন পুনর্গঠন এবং সার্বিক ব্যবসায়ী কর্মকাণ্ডের পুনর্গঠণ, বিদেশ থেকে বিনিয়োগ আকর্ষণের জন্য যেটা অতীব জরুরি।

এ পর্যন্ত দুটো বিনিয়োগ আকর্ষণী সংস্থা – বাংলাদেশ ইকোনমিক জোনস অথরিটি (বেজা) এবং বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ তাদের কর্মকাণ্ড সরকারের কাছে চিঠি দেয়ার মধ্যে সীমিত রেখেছে। কোভিড-১৯ পরবর্তী সময়ে বিদেশী বিনিয়োগ পেতে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হবে, এটুকুই তারা সরকারকে জানিয়েছে।

অন্যদিকে, ভিয়েতনাম আর ভারত এরই মধ্যে বহু জাপানি ও আমেরিকান ফার্মের সাথে কথা বলতে শুরু করেছে, যারা চীন থেকে সরে আসতে যাচ্ছে। ভারত সরকার এপ্রিলে এক হাজারের বেশি মার্কিন কোম্পানির সাথে যোগাযোগ করেছে এবং চীন থেকে ভারতে কারখানা সরিয়ে আনার জন্য তাদেরকে সহায়তা দেয়ার প্রস্তাব দিয়েছে।এশিয়ার তৃতীয় বৃহত্তম অর্থনীতি ভারত একইসাথে ভূমিও চিহ্নিত করার প্রক্রিয়া শুরু করেছে, যেখানে ব্যবসায়ীদেরকে জায়গা দেয়া হবে।

বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরী বলেছেন, মহামারীর মধ্যে ভোক্তা চাহিদা যেভাবে থমকে গেছে এবং সরবরাহ চেইন যেভাবে বাধাগ্রস্ত হয়েছে, সেটার অর্থনৈতিক প্রভাব সারা বিশ্বের বিনিয়োগের সম্ভাবনার উপর প্রভাব ফেলবে। এর ফলে বিভিন্ন সরকারের বিদেশী বিনিয়োগ আকর্ষণের প্রচেষ্টা বড় ধরণের বাধার মুখে পড়ে যাবে, টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য যেটা খুবই জরুরি।

বিজনেস স্ট্যান্ডার্ডকে তিনি সম্প্রতি বলেন, “বিদেশী কারখানাকে বাংলাদেশে নিয়ে আসতে হলে আমাদেরকে কিছু সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব দিতে হবে”।চৌধুরী বলেন, তবে এর আগে আমলাতন্ত্রকে তাদের মানসিকতা বদলাতে হবে যাতে শুধু ব্যবসাকে নিয়ন্ত্রণ বাদ দিয়ে সেগুলোকে সুবিধা দেয়ার মানসিকতা নিয়ে তারা কাজ করেন।

বিআইডিএ’র নির্বাহী চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলামও এ ব্যাপারে সচেতন রয়েছেন যে, কোভিড-১৯ পরবর্তী সময়ে বিনিয়োগ পরিস্থিতি সম্পূর্ণ বদলে যাবে এবং বিদেশী বিনিয়োগকারীদের মনোযোগ আকর্ষণের জন্য প্রত্যেক দেশকেই বিশেষ সুবিধার প্রস্তাব দিতে হবে।

ইসলাম বলেন, “বিদেশী বিনিয়োগকারীদের জন্য আমরা প্যাকেজ প্রস্তাবনা তৈরির জন্য কাজ করছি। তবে, আমাদের ক্ষমতা সুপারিশ করা পর্যন্ত সীমিত”।তিনি বলেন, তিনি দুটো জাপানি সংস্থার সাথে কথা বলছেন – জাপান ইন্টারন্যাশনাল কোঅপারেশান এজেন্সি এবং জাপান এক্সটার্নাল ট্রেড অর্গানাইজেশান। বাংলাদেশে তাদের বিনিয়োগের সম্ভাবনা নিয়ে কথা হচ্ছে তাদের সাথে।

ফেব্রুয়ারি নাগাদ বেজা ১৫১টি স্থানীয় ও বিদেশী ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে ২০.৫০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের প্রতিশ্রুতি পেয়েছে। এর মধ্যে বিভিন্ন বিশেষ অর্থনৈতিক জোন এলাকায় প্রায় ৩ বিলিয়ন ডলারের মতো বিনিয়োগ এরই মধ্যে করা হয়েছে।পিডাব্লিউসি বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পার্টনার মামুন রশিদ বলেন, “আমরা যুক্তরাষ্ট্র-চীনের বাণিজ্য যুদ্ধের সুবিধা নিতে ব্যার্থ হয়েছি”।তিনি প্রশ্ন করেন, “আমরা দ্বিতীয় একটা সুযোগ পেয়েছি। সেটা কি আমরা কাজে লাগাতে পারবো?


  • 5
    Shares

Related Articles