পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে গেলে ফেরি বন্ধ করবে প্রশাসন

0
26

করোনা ভাইরাসের মধ্যেও প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া নৌরুট দিয়ে যাতায়াত করছেন। মানছেন না সামাজিক দূরত্ব।

ঘাট কর্তৃপক্ষ বলছে, ঈদ সামনে তাই বাড়ছে ঘরমুখো যাত্রীদের চাপ। প্রশাসন বলছে, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে গেলে বন্ধ করে দেয়া হবে ফেরি চলাচল।

করোনার ঝুঁকি মাথায় নিয়ে কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া নৌরুট দিয়ে চলাচল করছেন যাত্রীরা। স্বাভাবিক সময়ে প্রতিদিন ৩০ হাজার মানুষ এই নৌরুট ব্যবহার করলেও বর্তমানে তা কয়েকগুণ বেড়েছে। গণপরিবহন বন্ধ, তাই বিভিন্ন উপায়ে বাড়তি ভাড়া দিয়ে ঘাটে পৌঁছান যাত্রীরা। যাতায়াতের সময়ে মাস্ক কিংবা হ্যান্ড গ্লাভস ব্যবহার তো দূরের কথা, মানছেন না নিরাপদ দূরত্ব টুকুও।

একজন বলেন, ‘গার্মেন্টসে কাজ করতাম। এখন ছাঁটাই করে দিছে। এজন্য বাড়ি চলে যাচ্ছি।’

সরকারি নির্দেশনায় এই নৌরুটে লঞ্চ ও স্পিডবোট চলাচল বন্ধ থাকায় যাত্রীদের চাপ বেড়েছে ফেরিতে। জরুরি প্রয়োজনে ৩ থেকে ৫টি ফেরি চললেও যাত্রীদের চাপে এখন চলছে ১২ থেকে ১৪টি ফেরি। পরিস্থিতি মোকাবিলায় হিমশিম খাচ্ছে ঘাট কর্তৃপক্ষ।

মাদারীপুর কাঁঠালবাড়ি ফেরিঘাট ব্যবস্থাপক আব্দুল আলিম বলেন, ‘সকলকে ঘরে থাকার কথা বললেও প্রতি মুহূর্তে যাত্রী আর গাড়ির চাপ রয়েছে ঘাটে।’

এদিকে মাদারীপুর জেলা প্রশাসক মো. ওয়াহিদুল ইসলাম বলেন, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে প্রয়োজনে বন্ধ করে দেয়া হবে কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া নৌরুট।

হাজার হাজার মানুষের যাতায়াত এখনই ঠেকানো না গেলে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যেতে পারে অভিমত জেলার স্বাস্থ্য বিভাগের।