মাদ্রাসার মহাপরিচালক নিয়োগ নিয়ে উত্তেজনা, শফীর সঙ্গে সাক্ষাৎ বাবুনগরীর

0
39

হেফাজত ইসলাম বাংলাদেশের আমির ও হাটহাজারী মাদ্রাসার মহাপরিচালক শাহ আহম্মদ শফী অসুস্থ হয়ে পড়ার পর থেকে মাদ্রাসার মহাপরিচালক কে হবেন এ নিয়ে নানামুখী কথাবার্তা ও গুঞ্জন চলে আসছিল।শেষ পর্যন্ত নিয়ম লঙ্ঘন করে মাদ্রাসার মহাপরিচালক নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে এমন গুঞ্জনে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে মাদ্রাসায়।

মাদ্রাসার সহকারী মহাপরিচালক ও হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব হাফেজ জুনায়েদ বাবুনগরী কয়েকজন সহযোগীকে নিয়ে শনিবার সকালে মাদ্রাসার মহাপরিচালক ও হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমির আহম্মদ শফীর সঙ্গে তার কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করে নিয়ম মেনে মহাপরিচালক নিয়োগের প্রস্তাব করেন। এতে তিনি একমত পোষণ করেন।

এরপর একদল লোক শনিবার জোহরের নামাজ শেষে মাদ্রাসার মসজিদে মুসল্লিদের সঙ্গে আলাপের কথা বলে তাদের বসিয়ে জুনায়েদ বাবুনগরীকে নিয়ম অনুসারে মাদ্রাসার মহাপরিচালক হিসেবে প্রস্তাব করেন।

মহাপরিচালক নিয়োগের দাবি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন হাটহাজারী পৌরসভা ওলামা পরিষদের মহাসচিব মাওলানা জাফর ছাদেক, যুগ্ম-মহাসচিব মাওলানা মীর ইদ্রিস ও হাফেজ সাইফুল্লাহ।

হাটহাজারী পৌরসভার ওলামা পরিষদের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মীর ইদ্রিস জানান, তারা নানা মাধ্যমে শুনতে পারছেন শুরা কমিটির বৈঠক ছাড়াই বড় হুজুরের অনুপস্থিতিতে সহকারী মহাপরিচালক জুনায়েদ বাবুনগরীকে শুরা কমিটির বৈঠক না ডেকে অন্য লোককে নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, সর্তক করার জন্য নামাজের পরে মাইক নিয়ে উপস্থিত মুসল্লিদের বিষয়টি অবহিত করে শুরা কমিটির বৈঠক ডেকে মাদ্রাসার মহাপরিচালক নিয়োগের প্রস্তাব করেছেন। এ সময় কোনো বিশৃঙ্খলা হয়নি।

আহম্মদ শফীর ছেলে হেফাজতের ইসলামের প্রচার সচিব মাওলানা আনাস মাদানীর কাছে এ ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, মসজিদে জোহরের নামাজের পর একদল লোক মাইক নিয়ে বর্তমান সংকটময় মুহূর্তে সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ থাকলেও তারা কর্তৃপক্ষের অনুমতি না নিয়ে মসজিদে সভা করেন।

‘বড় হুজুর’ তথা আহম্মদ শফীর সঙ্গে হেফাজত মহাসচিবের সাক্ষাতের কথা নিশ্চিত করে তিনি বলেন, এ সময় বড় হুজুর কোনো বিভ্রান্তি ও গুজবে কান না দিয়ে তার অবর্তমানে শুরা কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক মাদ্রাসার মহাপরিচালক নিয়োগ দেওয়া হবে বলে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন।