রংপুর

ঠাকুরগাঁওয়ে ক্ষতিকর উপাদান দিয়ে তৈরি করা হচ্ছে আইসক্রিম

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি : ঠাকুরগাঁওয়ে প্রায় ২০টি কারাখানায় ক্ষতিকর রং ও উপকরণ মিশিয়ে তৈরি হচ্ছে অস্বাস্থ্যকর, সস্তা ও নিম্নমানের আইসক্রীম। শীত মওসুম চলে যাওয়ায় শিশু ও স্কুল শিক্ষার্থীদের টার্গেট করে ক্ষতিকর কুলফি আইসক্রিম তৈরি করে বাজারজাত করা হচ্ছে জেলা শহরের বিভিন্ন প্রান্তে।
সরেজমিনে দেখা গেছে, ঠাকুরগাঁওয়ে নিউ কুলফি, লাবন্য কুলফি, মেট্রো কুলফি সহ আরো ১৫-২০ টি ফ্যাক্টরির অধিকাংশই নিম্নমানের সস্তা কুলফি আইসক্রিম তৈরি করছে। আর বিভিন্ন গ্রাম গুলোতে রং-বেরংঙ্গের প্যাকেট করে ছোট ছোট বাচ্চাদের কাছে বিক্রয় করা হচ্ছে।
এই কারখানাগুলোতে তিন থেকে দশ টাকা মূল্যের দুধ কুলফি, দই কুলফি, ঝালটক কুলফি, অরেঞ্জ কুলফি, লিচু কুলফি তৈরি হয়। সস্তা দামের এই আসক্রিম তৈরিতে নিম্নমানের ফুড কালার ও অত্যন্ত ক্ষতিকর উপকরণ ব্যবহার করা হচ্ছে। আইসক্রিম তৈরির জন্য যে সকল উপকরণ ব্যবহার করা হয় তাও স্বাস্থ্যসম্মত নয়। ফ্রিজ গুলোতে ময়লা পানি ব্যবহার করা হয়। কারখানার চারপাশে মাছি মশার উপদ্রবতো স্বাভাবিক বিষয়।
এই আইসক্রীম আবার ভ্যানে করে গ্রামে গ্রামে নিয়ে যাওয়া হয়। গ্রামে ছোট ছোট ছেলে-মেয়েরা এইসব আইক্রীম চাল, গম, ধান দিয়ে কিনে খায়।
ঠাকুরগাঁও হাজিপাড়া এলাকার বাসিন্দা মনোয়ার হোসেন নামে এক বাবার সাথে কথা হয় এ প্রতিনিধির। তিনি জানান, আমার ছোট ছেলেটি এবার ৪র্থ শ্রেণীতে ঠাকুরগাঁও সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে পড়ছে। সে প্রতিদিন টিফিন এর কথা বলে ১০ টাকা নেয় আমার কাছে। কয়েকদিন থেকে বাচ্চাটি আমার খুব অসুস্থ। জ্বর, গলাব্যাথা, পেট ব্যাথা। পরে ডাক্তার দেখানো হলে জানতে পারি সে প্রতিদিন কুলফি আইক্রিম খেত তাই ফুট পয়জন হয়েছে ও ঠান্ডা লেগেছে। খুব চিন্তায় আছি কি করবো এখন।
ঠাকুরগাঁও সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ইফতি জানায়, গরমের সময় আইসক্রিম অনেক ভালো লাগে। স্কুল ছুটির পড়ে গেটের সামনে আইসক্রিম দেখলে না খেয়ে ভালো লাগে না। তাই প্রতিদিন একটা হলেও খাওয়ার চেষ্টা করি। কিন্তু আইসক্রিম খেলে সমস্যা হয় তাও লোভ সামলাতে পারি না।
এ ব্যাপারে কথা হলে ঠাকুরগাঁও নিউ কুলফি আইসক্রিম কারখানার মালিক হাবিব ফুড কালার বা নিম্নমানের উপকরণ ব্যবহারের কথা অস্বীকার করেন। তিনি জানান, কেউ কেউ ওইসব উপকরণ বা ফুড কালার ব্যবহার করতে পারে, কিন্তু তিনি করেন না। এছাড়াও তার কারখানা হাইজিন নিয়ম মেনে চলা হয়।
ঠাকুরগাঁওয়ের বিশেষজ্ঞ শিশু ডাক্তার শাজাহান নেওয়াজ জানান, আইসক্রিম শিশুদের জন্য ক্ষতিকারক। এখন যেসকল কম দামি আইসক্রিম পাওয়া যাচ্ছে সেগুলো বাচ্চাদের খাওয়ার উপযোগি না। এগুলো খেলে পেটের ব্যাথা, ফুট পয়জন হওয়া স্বাভাবিক বিষয়। বাচ্চাদের আইসক্রিম পরিহার করা অতি জরুরী।
ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়াল জানান, সস্তাদামের এই আইসক্রিমে ক্ষতিকর দ্রব্যাদি মিশ্রনের অভিযোগ তিনি পেয়েছেন, খুব শিগগিরই এইগুলো বন্ধে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করবেন।তিনি বলেন, স্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ খাবারের সাথে কোনো ধরণের আপোষ করা হবে না।

Comments

comments

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.