দেশজুড়ে

শিক্ষক দম্পতি হত্যাকারি ৬জনের ফাঁসির আদেশ, স্বজন ও এলাকাবাসী  সন্তোষ প্রকাশ

আশিকুর রহমান,টাঙ্গাইল প্রতিনিধি : টাঙ্গাইলে চাঞ্চল্যকর শিক্ষক অনিল কুমার দাস ও তার স্ত্রী কল্পনা রানী দাস হত্যা মামলায় ছয় আসামির মৃতুুদণ্ডের আদেশ হওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করেছেন নিহতদের স্বজন ও এলাকাবাসী। এ রায় যাতে দ্রুত কার্যক্রর হয় সেই দাবি জানিয়েছেন তারা। রোববার ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইবুনালে চাঞ্চল্যকর এ মামলার রায় হয়। রায়ে  ছয় আসামির প্রত্যেককেই মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তারা হলেন- স্বপন কুমার দাস, জাহিদুল ইসলাম, মো. ফরহাদ, মো. মনিরুজ্জামান ভুঁইয়া, মঞ্জুরুল ইসরাম ও শয়ান মিয়া। তাদের মধ্যে স্বপন নিহত অনিল কুমারের সৎ ভাই। এরা সবাই সদর উপজেলার রসুলপুর গ্রামের বাসিন্দা। এলাকাবাসী জানায়, ২০১৭ সালের ২৬ জুলাই টাঙ্গাইল সদর উপজেলার গালা ইউনিয়নের রসুলসপুর গ্রামের নিজ বাড়িতে শিক্ষক অনিল কুমার দাস ও তার স্ত্রী কল্পনা রানী দাসকে হত্যা করে মরদেহ সেপটিক ট্যাংকে ফেলে রাখে দুর্বৃত্তরা। পরদিন তাদের মরদেহ উদ্ধার হয়। এ ঘটনার দু’দিন পর ২৮ জুলাই নিহতদের ছেলে নির্মল কুমার দাস বাদী হয়ে টাঙ্গাইল মডেল থানায় হত্যা মামলা করেন। এ মামলার তদন্ত শেষে ২০১৮ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর পুলিশ ওই ছয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করে। ২০১৯ সালের ৭ আগস্ট মামলার বিচার শুরু হয়।

রোববার দুপুরে সরেজমিন শিক্ষক অনিল কুমার দাসের রসুলপুর গ্রামের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, কেউ নেই ওই বাড়িতে। স্থানীয় বাছিরুন্নেছা উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক অনিল কুমার দাস ও তার স্ত্রী দোতলা বাড়িতে বসবাস করতেন। তার
ছেলে ঢাকায় একটি বেসরকারি ব্যাংকে চাকুরি করেন। মেয়ে যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী। অনিল কুমার দাস খুন হওয়ার পর থেকে বাড়িটি শুন্য পড়ে আছে। ছেলে মাঝে মাঝে এলেও কখনো বাড়িতে অবস্থান করেন না। মেহেদী হাসান নামের এক  কেয়ার টেকার বাড়িটি দেখাশোনা করেন। রায় ঘোষনার সংবাদ শুনে এলাকাবাসী ভীড় করে বাড়িটির সামনে। বিচার পাওয়ায় তারা সন্তোষ প্রকাশ করেন।

বাছিরুন্নেছা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক নিবারন দাস জানান,       নিহত অনিল কুমার দাস তার স্কুলেই শিক্ষকতা করতেন। খুব ভালো মানুষ ছিলেন। তার কোন শত্রু ছিল না। তার পরেও তাকে নির্মমভাবে হত্যার শিকার হতে হলো। তাই হত্যাকারিদের সর্বোচ্চ সাজা হওয়া তিনি সন্তুষ্ট। ওই এলাকার সীতা নাথ দাস জানান, এ হত্যাকান্ডের পর মানুষ আতংকিত ছিল। খুনিদের সাজা হওয়ায় মানুষ কিছুটা হলেও স্বস্তি পাবে।

মামলার বাদী ও নিহতের ছেলে নির্মল কুমার দাস মুঠোফোনে জানান, বাবা-মাকে কোনদিন ফিরে পাবো না। সারাজীবন আমাদের এ কষ্ট বয়ে বেড়াতে হবে। এলাকার সবাই খুনিদের সর্বোচ্চ সাজা হোক আশা করেছিল। খুনিদের যতটুকু সাজা হওয়া
উচিৎ ছিল, আদালত তা দিয়েছেন।

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button