যে ১০টি লক্ষণ বলে দেয় আপনার কিডনি ড্যামেজ হতে যাচ্ছে

0
31

দেহের একটি অত্যন্ত প্রয়োজনীয় অংশ কিডনি। তাই এই অঙ্গ সংক্রান্ত শারীরিক জটিলতাকে নীরব ঘাতক বলা হয়। চুপি চুপি এ রোগ দেহে বাসা বেঁধে আপনাকে একদম শেষ করে দিতে পারে। সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা যায়, মানুষ মারাত্মক স্বাস্থ্য জটিলতাগুলোর মধ্যে হার্ট অ্যাটাকের পরই অবস্থান করছে কিডনি ড্যামেজ ক্যানসার। গবেষণায় দেখা যায় কেবলমাত্র আমেরিকাতেই প্রায় ২৬ মিলিয়ন মানুষ কিডনি সমস্যায় ভুগছেন।

ভয়ের বিষয় হলো বেশিরভাগ মানুষই জানেন না যে তারা কিডনিজনিত সমস্যায় আক্রান্ত। ফলাফলস্বরূপ যথাসময়ে সঠিক চিকিৎসার অভাবে হারাতে হচ্ছে প্রাণ। কিছু সাধারণ লক্ষণে বুঝতে পারবেন আপনার কিডনিতে কোনো সমস্যা রয়েছে কি না। সেগুলো কী? চলুন জেনে নিই-

১. প্রস্রাবে সমস্যা-

তুলনামূলকভাবে কম প্রস্রাব কিডনি রোগের অন্যতম লক্ষণ। শুধু তাই নয়, রাতে ঘন ঘন প্রস্রাব করাও কিডনি জনিত সমস্যার লক্ষণ। এই ধরণের সমস্যা সাধারণত কিডনি ফিল্টার ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার কারণে হয়।

২. প্রস্রাবে রক্ত-

একটি স্বাস্থ্যকর কিডনি সাধারণত শরীরে প্রস্রাবের সাথে রক্তে বের হয়। কিডনি প্রতিবন্ধী হয়ে গেলে, প্রস্রাবের সাথে রক্তের কোষগুলিও বের হয়। কিডনিতে পাথর, কিডনির সংক্রমণে সাধারণত সমস্যা হয়। এছাড়াও, প্রস্রাবে খুব বেশি ফোম থাকলে বুঝতে হবে যে প্রোটিনটি প্রস্রাবের সাথে বের হচ্ছে। এটি প্রস্রাবে অ্যালবামিন নামে একটি প্রোটিনের উপস্থিতির কারণে ঘটে।

৩. প্রস্রাবের সময় ব্যথা-

প্রস্রাবে ব্যথা কিডনি জনিত সমস্যার আরেকটি লক্ষণ। প্রস্রাব প্রধানত ব্যথা, জ্বলন সংবেদন – এগুলি মূত্রনালীর সংক্রমণের লক্ষণ। এটি কিডনিতে ছড়িয়ে পড়লে জ্বর এবং পিঠে ব্যথা হয়।

৪. পায়ের গোড়ালি ও পায়ের পাতা ফুলে গেলে-

হঠাৎ পা এবং গোড়ালি ফোলা কিডনি রোগের অন্যতম লক্ষণ। কিডনির কার্যকারিতা হ্রাস হওয়ার সাথে সাথে শরীরে সোডিয়ামের পরিমাণ হ্রাস পায়, যার ফলে পা, গোড়ালি ফোলাভাব হয়।

৫. খাবারে অরুচি-

বিভিন্ন কারণে খাবারে ঘৃণা হতে পারে। তবে খাবারে ঘন ঘন বমিভাব এবং বমি বমি ভাব হওয়ার জন্য এটি এড়িয়ে যাবেন না। এই ধরণের সমস্যা শরীরে টক্সিন তৈরির কারণে হয়।

৬. চোখের চারপাশ ফুলে যাওয়া-

কিডনি থেকে প্রস্রাবে অতিরিক্ত প্রোটিন বের হয়ে গেলে তা চোখের চারদিকে ঘোরে অতএব, এই সমস্যাটিকে অবহেলা না করে অবিলম্বে চিকিত্সার পরামর্শ নেওয়া জরুরি।

৭. মাংসপেশিতে টান-

আপনি শুনে থাকতে পারেন যে ইলেক্ট্রোলাইট উপাদানগুলির ভারসাম্যহীনতা কিডনির সমস্যা সৃষ্টি করে। এবং যখন এই উপাদানটি হ্রাস পায়, তখন পেশী টান, চুলকানির সমস্যা হয়।

৮. ত্বকে র‍্যাশ এবং চুলকানি দেখা দেওয়া-

রক্তে খনিজ এবং পুষ্টিগুলি ভারসাম্যহীন হলে ত্বকের ফুসকুড়ি এবং চুলকানি দেখা দেয়। কিডনি যখন সঠিকভাবে কাজ করে না তখন শরীরে খনিজ এবং পুষ্টির মধ্যে ভারসাম্যহীনতা থাকে

৯. অনেক বেশি ক্লান্ত অনুভব হওয়া, মনোযোগ কমে যাওয়া-

কিডনির কার্যকারিতা হ্রাস রক্তে দূষক এবং টক্সিনের উত্পাদনের দিকে পরিচালিত করে। যার কারণে আপনি ক্লান্ত, দুর্বল বোধ করেন। আপনিও কাজের প্রতি মনোযোগ হারাবেন। এই সময়ে, রক্ত হ্রাস প্রদর্শিত হয়। নিরাপত্তাহীনতা বোধের অন্যতম কারণ এটি।

১০. ছোটো ছোটো শ্বাস-

কিডনি রোগ ফুসফুসে তরল জমা হতে থাকে। কিডনি রোগ শরীরে রক্তাল্পতাও সৃষ্টি করে। এই কারণে শ্বাস নিতে সমস্যা হয়, তাই অনেকে সংক্ষিপ্ত শ্বাস নেয়।

এই লক্ষণগুলি দেখা মাত্রই কিডনির পরীক্ষা বা ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া উচিত। কিছুটা অবহেলা আপনার জীবন কেড়ে নিতে পারে।