স্বাস্থ্য

হাত-পায়ের আঙুলে গরম এবং ব্যাথায় করণীয়

  • 5
    Shares

হাত ও পায়ের আঙুলের জোড়ায় প্রচন্ড গরম এবং ব্যাথা, হাটতে কস্ট হয়। দেখে মনে হয় ফুলে গেছে বা লাল হয়ে গেছে। এটিকে বলা হয় রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস। রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস বেশ যন্ত্রণার অসুখ। এ রোগে অনেকেরই জয়েন্টে তীব্র ব্যথা হয়। রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস রোগ সম্পূর্ণ ভালো হয় না। রোগের উপসর্গ দেখা দেয়ামাত্র চিকিৎসা শুরু করলে রোগ নিয়ন্ত্রণে রাখা যায় এবং রোগের মারাত্মক ঝুঁকি যেমন পঙ্গুত্ব থেকেনিজেকে রক্ষা করা য়ায়। এই আর্থাইটিস দু ধরনের। রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস ও অস্টিও আর্থ্রাইটিস।

রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস ও অস্টিও আর্থ্রাইটিসের মধ্যে কিছু পার্থক্য রয়েছ।

রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস একটি অটোইমিউন রোগ এবং অল্প বয়সে হতে পারে। অন্য দিকে অস্টিও আর্থ্রাইটিস একটি বয়স সম্পর্কিত রোগ, যা কার্টিলেজের ক্ষয় বা ছিঁড়ে যাওয়ার জন্য হয়।

রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস সাধারণত ২৫ থেকে ৫০ বছর বয়সের মধ্যে ঘটে থাকে, তবে এটা শিশুদেরও আক্রান্ত করে। অন্যদিকে অস্টিও আর্থ্রাইটিস সাধারণত ৩০ বছর বা ৪০ বছরের বেশি বয়সী লোকদের আক্রান্ত করে।

রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিসে প্রায় সমানভাবে শরীরের দু’পাশের অর্থাৎ ডান ও বাম দিকের অস্থিসন্ধিগুলো আক্রান্ত হয়। অন্য দিকে অস্টিও আর্থ্রাইটিসে শরীরের পৃথক পৃথক অস্থিসন্ধি আক্রান্ত হয় অথবা প্রথম দিকে শরীরের শুধু এক পাশের অস্থিসন্ধিগুলো আক্রান্ত হয়।

রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিসে আক্রান্ত অস্থিসন্ধিগুলো লাল ও গরম হয় এবং ফুলে যায়। অস্টিও আর্থ্রাইটিসে অস্থিসন্ধিগুলো সাধারণত লাল ও গরম হয় না।

রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস অনেক অস্থিসন্ধিকে আক্রান্ত করে, সাধারণত হাত ও পায়ের ছোট জোড়াগুলো বেশি আক্রান্ত হয়। এটা কনুই, কাঁধ, কবজি, হিপ, হাঁটু ও গোড়ালির গাঁটকেও আক্রান্ত করে। অন্য দিকে অস্টিও আর্থ্রাইটিস সাধারণত শরীরের ওজন বহনকারী অস্থিসন্ধিগুলোকে এবং যেসব অস্থিসন্ধি বেশি ব্যবহৃত হয় (যেমন হাঁটু ও হিপ) সেসব অস্থিসন্ধিকে বেশি আক্রান্ত করে।

রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিসে সকালবেলা দীর্ঘ সময় আক্রান্ত জোড়াগুলো শক্ত থাকে। অস্টিও আর্থ্রাইটিসে আক্রান্ত জোড়াগুলো সকালবেলা অল্প সময় শক্ত থাকে।

রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিসে মারাত্মক অবসন্নতা দেখা দেয়। অন্য দিকে অস্টিও আর্থ্রাইটিসে তেমন অবসন্নতা দেখা দেয় না।

রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিসে যেসব সমস্যা হতে পারে

অবসাদ

রক্ত কমে যাওয়া।

বেদনাদায়ক গাঁট।

মুখ শুকিয়ে যাওয়া

শক্ত মাংসপিন্ড কনুইতে, হাতে, হাঁটুতে এবং অন্যান্য গাঁটে।

গাঁটে লালভাব এবং ফোলা।

ওজন কমে যাওয়া

হাত পা এর আঙুল গুলো বাকা হয়ে যেতে পারে

এ রোগে যেসব খাবার খাওয়া যাবে না

লাল মাংস,গিলা, কলিজা,মগজ,মাছের ডিম, পালংশাক, পুইশাক, হাঁসের মাংস এবং ডিম, বিচী জাতীয় খাবার, সামুদ্রিক মাছ, টমেটো, বেগুন ইত্যাদি।

যেসব খাবার খেতে হবে

আনারস বাতের জন্য ভালো, চেরী, বেরী ফল, কাঁচা সালাদ, ফল- খাবেন। তিসির তেল কালোজিরে তেলে মিশিয়ে ব্যাথা জায়গায় লাগাতে পারেন।

কি করবেন এ সমস্যা হলে

প্রথমে আপনার সমস্যাগুলো নিশ্চিত করতে একজন অর্থপেডিক ডাক্তারকে দেখাবেন।

একজন ফিজিক্যাল মেডিসিন ডাক্তারকে দেখাবেন।

নিয়ম করে চললে বাতের সমস্যা কন্টোল এ রাখা যায় তাই নিয়ম মানতে হবে।

অবশ্যই হাঁটা চলা করা করতে হবে।

ফিজিওথেরাপি লাগলে ফিজিওথেরাপি নিতে হবে। শুধু ফিজিওথেরাপি নয়, সাথে ঔষধ খাবেন।

লেখক: রেবেকা সুলতানা রুমা, পুষ্টিবিদ, নিউজিল্যান্ড ডেইরি প্রডাক্টস বাংলাদেশ লিমিটেড ও ক্লিনিক্যাল ডায়েটিশিয়ান, এস.আই.বি.এল ফাউন্ডেশন হাসপাতাল ঢাকা


  • 5
    Shares

Related Articles