যেসব কারণে করোনার এত সংক্রমণ পুলিশে

0
170

দেশে পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের মধ্যে নভেল করোনাভাইরাসের (কোভিড) সংক্রমণ ব্যাপকভাবে বাড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে শতাধিক পুলিশ এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। সর্বশেষ পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, ১ হাজার ১৫৩ জন পুলিশ সদস্য আক্রান্ত হয়েছেন। মঙ্গলবার পর্যন্ত দেশে করোনাভাইরাসে মোট আক্রান্তের ১১ দশমিক ৩৬ শতাংশ ছিল পুলিশ সদস্য।কিন্তু একটি সুশৃঙ্খল বাহিনীর সদস্যরা এমন গণহারে করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন কেন?এই প্রশ্ন অনেকের। আর এর উত্তরও অনেকটাই জানা বেশিরভাগ মানুষের।

পুলিশ সদস্যদের নিয়ে দেশে ক্ষোভ, হতাশা,সমালোচনা শেষ ছিল না কিছু দিন আগেও। কিন্তু করোনাভাইরাসের প্রকোপের পর ভিন্ন এক পুলিশকে দেখতে পেয়েছে জানি, যে পুলিশ অনেক মানবিক,অনেক দায়িত্বশীল, অনেক অনুগত। করোনা মোকাবেলায় এমন কোনো দায়িত্ব নেই যার সঙ্গে পুলিশের সম্পৃক্ততা নেই।করোনার বিস্তার ঠেকাতে সরকার সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে। কিন্তু মানছে না।তাদেরকে মানাতে মাঠে নেমেছে পুলিশ।করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ায় কোনো পাড়া মহল্লায় বা বাড়ি লকডাউন করতে হবে,আক্রান্তকে খুঁজে বের করতে হবে-ডাক পড়ছে পুলিশের।

রাস্তায় অসুস্থ বা মৃত কেউ পড়ে আছে,করোনার ভয়ে সাধারণ মানুষ,এমনকি স্বজনও কাছে আসছে না। এমন সময়েও পাশে দাঁড়িয়েছে পুলিশ।সন্দেহভাজনদের কোয়ান্টারিন,আক্রান্তদের আইসোলেশন, মৃতদের লাশ দাফন-সব জায়গায় ভূমিকা রাখতে হচ্ছে পুলিশ সদস্যদের।

এসব কারণে সাধারণ মানুষের সঙ্গে,যাদের মধ্যে অনেক করোনাভাইরাস বহনকারীও থাকেন,মিশতে হচ্ছে পুলিশ সদস্যদেরকে। কিন্তু এই মেলামেশা বা দায়িত্ব পালনের জন্য পর্যাপ্ত সুরক্ষা সামগ্রি মোটেও পায়নি তারা। এ কারণে তাদের মধ্যে সংক্রমণ বেড়ে চলেছে। করোনার সংক্রমণের পর অন্য অনেক পেশার মানুষের মধ্যে দায়িত্ব পালনে পিছ টান দেখা গেলেও এখন পর্যন্ত সাহসিকতা আর দায়িত্ববোধ নিয়ে একইরকমভাবে মাঠে আছেন পুলিশ সদস্যরা।

পুলিশ সদস্যদের ব্যাপকভাবে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার এমনই কিছু কারণ ব্যাখ্যা করেছে পুলিশ সদর দপ্তরও। মঙ্গলবার (৫ মে) রাতে পুলিশ সদর দফতরের জনসংযোগ ও গণমাধ্যম শাখার এ আই জি সোহেল রানা এক ভিডিও বার্তায় এই ব্যাখ্যা তুলে ধরেন। যদিও তিনি সুরক্ষা সামগ্রীর অপর্যাপ্ততার বিষয়টি এড়িয়ে গেছেন।

সোহেল রানা বলেন, ‘পুলিশিং একটি ইউনিক প্রফেশন। এই প্রফেশনে থেকে সাধারণ মানুষের সঙ্গে মেশার যে সুযোগ রয়েছে, তা অন্য কোনও প্রফেশনে নেই। বর্তমান পরিস্থিতিতে এই দিকটি অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ হয়ে উঠেছে। কোয়ারেন্টিন এবং আইসোলেশন নিশ্চিত করতে পুলিশকে মানুষের বাড়ি বাড়ি যেতে হয়েছে। এগুলো নিশ্চিতে মানুষের খুব কাছে যেতে হয়।’

তিনি বলেন, ‘রোগীকে হাসপাতালে নেওয়ার প্রয়োজন হলে তা পুলিশকেই করতে হচ্ছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে যানবাহনের একটু সংকট রয়েছে, তাই পুলিশের গাড়িতে করে রোগীদের পৌঁছে দিতে হচ্ছে। এমনকি তাদের চিকিৎসা নিশ্চিত করতেও পুলিশ কাজ করছে।’

পুলিশ সদর দফতরের জনসংযোগ ও গণমাধ্যম শাখার এই কর্মকর্তা বলেন, ‘দ্রব্যমূল্য, কালোবাজারি নিয়ন্ত্রণেও মানুষের খুব কাছে থেকে পুলিশ কাজ করে যাচ্ছে। ধর্মীয় কোনও অনুষ্ঠানে ব্যাপক মানুষের সমাগম, গার্মেন্টস কিংবা অন্য পেশার মানুষ যখন সমবেত হচ্ছেন, বিক্ষোভ করছেন—সেই পাবলিক অর্ডার ম্যানেজ করতে মানুষের মাঝে যেতে হচ্ছে পুলিশকে।’

সদর দফতরের পক্ষ থেকে তিনি বলেন, ‘আসামিকে গ্রেফতার করতে খুব কাছ থেকে তাকে স্পর্শ করতে হয়। তা ছাড়া ধরা সম্ভব নয়। করোনায় কেউ মারা গেলে তার সৎকার, জানাজা, দাফনে পুলিশকে যেতে হচ্ছে। কিন্তু তাৎক্ষণিক নিজেদের সুরক্ষা নিশ্চিত করা সম্ভব হচ্ছে না।’

সোহেল রানা ভিডিও বার্তায় আরও বলেন, ‘আমাদের কোনও সদস্য যখন আক্রান্ত হচ্ছেন, তখন অন্য সদস্যের মধ্যে সংক্রমণ ছড়িয়ে যাওয়ার সুযোগ তৈরি হচ্ছে। ‘ফোর্স’—যারা ব্যারাকে থাকেন, সেখানে স্বল্প স্পেসে থাকতে হচ্ছে। একসঙ্গে থাকা তাদের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে। চেষ্টা করা হচ্ছে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে তাদের নিরাপদ দূরুত্বে বিছানাসহ প্রয়োজনীয় সবকিছু দেওয়ার। তারপরও পেশাগত বৈচিত্র্যের কারণে বাড়তি কিছু ঝুঁকি থেকে যাচ্ছে। এসব কারণে পুলিশের করোনা সংক্রমণের হার বেশি।তিনি বলেন, ‘পুলিশ সদস্যরা দেশ ও মানুষকে ভালোবেসে ঝুঁকি নিচ্ছেন। সুরক্ষাসামগ্রী পেতে বিলম্ব হলেও তারা ঘরে বসে থাকছেন না।