ময়মনসিংহে পাওয়ার গ্রিডে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় এখনও স্বাভাবিক হয়নি বিদ্যুৎ সরবরাহ

0
21

ময়মনসিংহের কেওয়াটখালী পাওয়ার গ্রিডে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে দুই দফায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় বিভাগের চার জেলায় বিদ্যুৎ সরবরাহ এখনও স্বাভাবিক হয়নি। গত তিনদিন ধরে ময়মনসিংহ, জামালপুর, নেত্রকোনা ও শেরপুর জেলার বাসিন্দারা বিদ্যুৎহীন অবস্থায় চরম ভোগান্তিতে রয়েছেন। ময়মনসিংহের বিভিন্ন এলাকায় অল্প সময়ের জন্য বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হলেও বেশিরভাগ সময়ই বিদ্যুৎবিহীন থাকছে গোটা জেলা। এসব এলাকার ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প-কারখানায় উৎপাদনও ব্যাহত হচ্ছে।

দুর্ঘটনার পর থেকে বিদ্যুৎ বিভাগের পক্ষ থেকে গ্রাহকদেরকে ধৈর্য্য ধারণের আহ্বান জানিয়ে নগরীতে মাইকিং করা হচ্ছে। শুক্রবার সাপ্তাহিক ছুটির দিন হওয়ায় দোকানপাট, বিপণিবিতান ও অফিস-আদালত বন্ধ থাকায় নগরীর রাস্তাঘাট অনেকটাই ফাঁকা ছিল। বিদ্যুৎ চালিত ইজিবাইক ও অটো রিকসায় চার্জ দিতে না পারায় বেশিরভাগই রাস্তায় বের হতে পারিনি। এ সুযোগে চালকরা অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করেছেন বলে অনেকেই অভিযোগ করেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মঙ্গলবার দুপুরে কেওয়াটখালি বিদ্যুৎ উপকেন্দ্রের ১৩২/৩৩ কেভি গ্রিডে শটসার্কিট থেকে মার্সেল বক্স হয়ে ট্রান্সফরমারে আগুন লাগে। ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। এরপর বৃহস্পতিবার সকাল দশটার দিকে আরেকটি ট্রান্সফরমার আগুনে পুড়ে যায়। শুক্রবার বিকেল পাঁচটায় এ রিপোর্ট লেখার সময় বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হয়নি।

পাওয়ার গ্রিড কোম্পানির নির্বাহী প্রকৌশলী মাসুদুল হক জানান, বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক করতে বিদ্যুৎ বিভাগ কাজ করছে। অগ্নিকাণ্ডের পর সঞ্চালন লাইন বন্ধ রেখে ইনসুলেটর পরিষ্কার করার কাজও চলছে। সিস্টেম রিইনস্টল করা হচ্ছে, যাতে দ্রুত বিদ্যুত সরবরাহ চালু করা সম্ভব হয়। আপাতত, তিনটি ট্রান্সফরমারের মধ্যে একটি ট্রান্সফরমারের মাধ্যমে রেশনিং করে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হচ্ছে। শুক্রবার রাতের মধ্যে আরো একটি ট্রান্সফরমার চালু করা সম্ভব হবে।

ময়মনসিংহ অঞ্চলের পিডিবির প্রধান প্রকৌশলী মো. রফিকুল ইসলাম জানান, অগ্নিকাণ্ডের কারণে ময়মনসিংহ বিভাগে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে যাবার পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। অগ্নিকাণ্ডে কি পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন পাওয়ার পর জানা যাবে। জেলা প্রশাসন ও বিদ্যুৎ বিভাগের পৃথক দুটি তদন্ত কমিটি কাজ করছে।