আলুর দামে কৃষকের মুখে হাসি

0
20

আরিফুল ইসলাম শ্যামল: আলু বিক্রিতে এ বছর কৃষকের মুখে হাসি ফুটেছে। বর্তমান আলুর বাজার মূল্য ভাল হওয়ায় গত কয়েক বছরের লোকসান কাটিয়ে এই অঞ্চলের আলু চাষীদের চোখে মুখে আনন্দের ঝিলিক পড়েছে। করোনাকালীন সময়য়ে হিমাগারগুলোতে আলু বিক্রি করতে ব্যস্ত সময় পার করছেন এখানকার কৃষকরা। এমনটাই জানা গেছে মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরের কয়েকটি হিমাগারের ঘুরে। উপজেলায় এবছর আলুর চাষ হয়েছে ২৩’শ হেক্টর অধিক জমিতে। বর্তমান বাজারে প্রতি কেজি আলুর (পাইকারী) দাম ধরা হচ্ছে ৩০ টাকা। মণ হিসেবে ১২’শ টাকা করে। খুচরাভাবে আলু বাজারে বিক্রি হচ্ছে কেজি প্রতি ৩৫-৪০ টাকা।

জানা যায়, এবছর দাম ভাল পাওয়ায় আগামীতে আলু চাষে ইতিমধ্যেই অনেক কৃষক এখনই আবাদি জমির খোঁজে উঠে পরে লেগেছেন। জমির মালিকদের সাথে যোগাযোগ করছেন। এছাড়াও ভালমানের আলু বীজ পাওয়ার আশায় খোঁজ খবর নিচ্ছেন স্থানীয় চাষীরা। দর দাম ঠিক হলে চাহিদা অনুযায়ী হিমাগারে রক্ষিত বীজ আলুর বস্তা/দলিল হাত বদল হচ্ছে। বর্তমানে হিমাগারে রক্ষিত ৫০ কেজির বীজ আলুর বস্তা বিক্রি হচ্ছে ১৮’শ থেকে ২২’শ টাকায়।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, উপজেলার আটপাড়া ও সোন্ধারদিয়া এলাকার হিমাগারে স্থানীয় কৃষক ও পাইকারদের ভিড়। ক্রয়কৃত খাবার আলু হিমাগারে শোডিং কাজে ব্যস্ত সবাই। শতশত বস্তার আলু শোডিং শেডের মেঝেতে ঢেলে বাছাই করে পুনরায় বস্তাবন্দি করা হচ্ছে। এসময় কয়েকজন লেবার বলেন, হিমাগার থেকে ৫০ কেজি ওজনের বস্তাগুলো বের করার কাজ করেন তারা। প্রতিটি বস্তার জন্য তারা পান ২০ টাকা করে। পরে বস্তাগুলো শোডিং শেডের মেঝেতে ঢেলে দিনমজুররা বাছার কাজ করেন। এই কাজে দৈনিক রোজ হিসেবে তারা পান সাড়ে ৪০০ টাকা। আলুর দাম ভাল হওয়ায় এখানকার কৃষক, পাইকারসহ আলুর সাথে সংশ্লিষ্ট সকলের মুখেই আনন্দের হাসির ছাপ লক্ষ্য করা গেছে।

এসময় পাইকার নুর ইসলাম, মো. সুজন, মিরাজ বেপারী, মো. রিপনসহ অনেকের সাথে আলাপ করে জানা যায়, কৃষকের আলু কোল্ড ষ্টোর থেকে ক্রয় করেন তারা। বর্তমান বাজারে (১০ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার) পাইকারীভাবে প্রতি কেজি আলু ক্রয় করছেন ৩০ টাকা দরে। খুচরা বাজারে এই আলু কেজি হিসেবে বিক্রি হচ্ছে ৩৫-৪০ টাকায়। এখানকা থেকে আলুগুলো চট্রগ্রাম, খুলনা, শ্যাম বাজার, কাওরান বাজার, রাজশাহীসহ দেশের বিভিন্ন আলুর আড়তে নিয়ে যাবেন তারা। তারা বলেন, করোনা ও বন্যাকালীন সময়ে আলুর চাহিদা বেশী থাকায় দামও ভাল পাওয়া যাচ্ছে। অন্যান্য বছরের মত আলু নিয়ে বসে থাকতে হচ্ছেনা তাদের।

কৃষক আলম মোল্লা জানান, এবছর তিনি প্রায় ২০ লাখ টাকার আলু বিক্রি করেছেন। আগামীতে আরো পরিসরে আলু চাষ করা লক্ষে প্রস্তুতি নিচ্ছেন। ইতিমধ্যেই ভালমানের কিছু জমি বগড়া নিয়েছেন। প্রতি গন্ডা জমি (৭ শতাংশ) প্রায় ৩ হাজার টাকা করে।

আলু ঐতিহ্যবাহী বিক্রমপুরের অর্থকরি ফসল। আলুর চাহিদা বেশী থাকায় মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরসহ প্রায় উপজেলার হিমাগার থেকেই আলু যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন জেলায়।