মুক্তিযোদ্ধাদের চেতনা ও আদর্শকে ধারন করে দেশ নির্মান করতে হবে : সাদেক সিদ্দিকী

0
19

মুক্তিযোদ্ধারা সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ট সন্তান, জাতির অহঙ্কার ও গৌরবের চিহ্নি বলে মন্তব্য করে জাতীয় পার্টি-জেপি প্রেসিডিয়াম সদস্য সাদেক সিদ্দিকী বলেছেন, মুক্তিযোদ্ধারা নিজেদের জীবন উৎসর্গ করে দেশ স্বাধীন না করলে আজ আমরা কোনোভাবেই নিজেদের স্বাধীন জাতি ভাবতে পারতাম না, পরাধীনতার শিকল হয়তো আমাদের আজও তাড়া করে বেড়াত।

বৃহস্পতিবার (১০ সেপ্টেম্বর) প্রেসকাউন্সিল মিলনায়তনে সেক্টর কমান্ডার মেজর জনোরেল (অব.) সি আর দত্ত ও কর্ণেল (অব.) আবু ওসমান চৌধুরীর স্মরণে বাংলাদেশ জাতীয় গণতান্ত্রিক লীগ আয়োজিত স্মরণসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সি আর দত্ত ও কর্ণেল (অব.) আবু ওসমান চৌধুরীর এই দুই অগ্রসেনানী অসাম্প্রদায়িক শোষণমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে চেয়েছিলেন। তাদের সেই চেতনা ও আদর্শকে ধারন করে দেশ নির্মান করতে হবে।

সাবেক রাষ্ট্রদূত অধ্যাপক ড. নিম চন্দ্র ভৌমিকের সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা এম এ জলিল। আলোচনায় অংশগ্রহন করেন বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সহ সভাপতি অ্যাডভোকেট কাজী এম. সাজাওয়ার হোসেন, বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, জাতীয় স্বাধীনতা পার্টি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিজু, এনডিপি মহাসচিব মো. মঞ্জুর হোসেন ঈসা, বিশিষ্ট সাংবাদিক মানিক লাল ঘোষ, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগ নেতা আ স ম মোস্তফা কামাল, ন্যাপ ভাইস চেয়ারম্যান স্বপন কুমার সাহা, বাংলাদেশ জাসদ মহানগর দক্ষিন যুগ্ম সম্পাদক হুমায়ূন কবির, সাংবাদিক সৈয়দ শাহজাহান সাজু, বরিশাল বিভাগ সমিতির নেতা মো. শহীদুননবী ডাবলু প্রমুখ।

শুরুতেই সদ্য প্রয়াত দুই বীর মুক্তিযোদ্ধার প্রতি এক মনিট দাড়িয়ে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করা হয়।

প্রবীণ আইনজীবী অ্যাডভোকেট কাজী এম. সাজাওয়ার হোসেন বলেন, বীর সেনানীরা চলে গেলেও তাদের চেতনা ও আদর্শকে রক্ষা করতে হবে। আমাদের সবার দায়িত্ব এই দুই সেনানীর প্রতি শ্রদ্ধা জানানো। মুক্তিযোদ্ধারা আমাদের স্বাধীন দেশ উপহার দেওয়ায় আজ আমরা সামনে এগোনোর স্বপ্ন দেখছি। তারাই ছিলেন আমাদের এগিয়ে যাওয়ার আলোকবর্তিকা।

বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলেন, মুক্তিযুদ্ধের এই দুই মহানায়ক শুধু মুক্তযুদ্ধ করেই দায়িত্ব শেষ করেন নাই। আমৃতু্য তারা সমগ্র দেশেই লড়াই-সংগ্রাম করেছেন। দেশ স্বাধীনের পরও তারা দেশের জন্য কাজ করেছেন।

তিনি বলেন, এ জাতির প্রজন্মের পর প্রজন্ম মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে ঋণী থাকবে। যারা আমাদের স্বাধীনতার সূর্য এনে দিয়েছেন, প্রতিষ্ঠা করেছেন লাল-সবুজের পতাকা এবং প্রাণ দিয়েছেন তাদের স্মরণ রাখতে হবে। শুধু শোকসভা করলেই হবে না, তাদের চেতনা ধারণ করে দুর্নীতি ও দুবৃত্তায়ন মুক্ত বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় সফল হতে হবে। তাদের চেতনার আলোয় উদ্ভাসিত হয়ে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের ছোট-বড় সকল শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

স্বাগত বক্তব্যে মুক্তিযোদ্ধা এম এ জলিল বলেন, মুক্তিযোদ্ধারা জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে তারা মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ নিয়ে পাকিস্তানি বর্বর বাহিনীকে বিতাড়িত করার মাধ্যমে ‘বাংলাদেশ’ নামক একটি স্বাধীন রাষ্ট্র ছিনিয়ে এনেছে। মুক্তিযোদ্ধারা কখনও তাদের স্বার্থের কথা বিবেচনা করেননি। আমাদের ছেড়ে চলে যাওয়া দুই বীর সেনানী যে শোষণমুক্ত, দুর্নীতিমুক্ত অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখতেন তাদের সে স্বপ্ন পূরনে আমাদের ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে।

সভাপতির বক্তব্যে সাবেক রাষ্ট্রদূত ড. নিম চন্দ্র ভৌমিক বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধের অগ্রসেনানীরা এক একে চলে যাচ্ছেন না ফেরার দেশে। তারা শারীরিকভাবে আমাদের কাছ থেকে বিদায় নিলেও তাদের চেতনা বেঁচে থাকবে। সেই চেতনার পথ ধরেই শোষণমুক্ত, দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় আমাদের এগিয়ে যেতে হবে।