কিশোরী অপহরণ; পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপ কামনা পরিবারের

0
21

আবু সাঈদ দেওয়ান সৌরভ, মুন্সীগঞ্জ: মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলায় ১৫ বছরের এক কিশোরী অপহরণের দুই মাস পরও উদ্ধার হয়নি। অপহরণের শিকার ফাতেমা আক্তারকে দ্রুত উদ্ধার করার জন্য পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন অপহৃত কিশোরীর পরিবার।

অপহৃত কিশোরী ফাতেমা আক্তার গজারিয়া উপজেলার বাউশিয়া ইউনিয়নের চর বাউশিয়া বড়কান্দি গ্রামের ফজলুর রহমানের কন্যা। সে চর বাউশিয়া শহীদ নজরুল উচ্চ বিদ্যালয় ৯ম শ্রেণীর ছাত্রী। এ ঘটনায় ওই অপহৃত কিশোরীর পরিবার গত ৮ সেপ্টেম্বর থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেছে।

তথ্য সুত্রে জানা যায়, উপজেলার বাউশিয়া ইউনিয়নের চর বাউশিয়া বড়কান্দি গ্রামের ফজলুর রহমানের কন্যা ফাতেমা আক্তার কে গত ৬ জুলাই সকালে চরবাউশিয়া বড়কান্দি গ্রামের রাস্তা থেকে নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁও উপজেলার হাম সাদী গ্রামের নাসিরের ছেলে বশির উদ্দিন ও সহযোগী ৪ থেকে ৫ জন মিলে অপহরণ করে। পরে অপহৃতা কিশোরীর খোঁজ পেয়ে বড় ভাই জহিরুল ইসলাম, মামাতো ভাই শাহাবুদ্দিন, আল-আমিন, হৃদয় ও আবু বক্কর গত ৮ সেপ্টেম্বর সোনারগাঁও উপজেলার হাম সাদী গ্রামের বশির উদ্দিনের বাড়িতে গেলে অপহরণকারী বশির উদ্দিন তাদের কে মারধর করে গুরুতর আহত করে। বর্তমানে আল-আমিন, হৃদয় ও আবু বক্কর ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন আছেন। পরে ৮ সেপ্টেম্বর বিকালে বড় ভাই জহিরুল ইসলাম বাদী হয়ে গজারিয়া থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেন।

অপহৃতা কিশোরীর বড় ভাই জহিরুল ইসলাম বলেন, গত ৬ জুলাই তার ছোট বোন ফাতেমা আক্তার সকালে বাড়ির পাশে রাস্তা দিয়ে হাটার সময় অভিযুক্ত বশির উদ্দিন সহ ৪ থেকে ৫ জন যুবক জোরপূর্বক ভাবে মাইক্রোবাসে করে অপহরণ করে অজ্ঞাত স্থানে আটকিয়ে রাখে। অনেক খুঁজাখুঁজির ২ মাস পর খবর পেয়ে হামসাদী গ্রামের বশির উদ্দিনের বাড়িতে গেলে অপহরণকারী বশির উদ্দিন তাদের মারধর করে। পরে গত ৮ সেপ্টেম্বর তিনি বাদী হয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।

অপহরনের ব্যাপারে থানায় এজাহারের বিষয়ে ডিউটি অফিসার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।