স্বামী বিবেকানন্দের শিকাগো শহরের বিশ্ব ধর্ম সভায় যোগদান করার ১২৭ বছর পূর্তি

0
25

রনজিত কুমার পাল (বাবু), ঢাকা জেলা প্রতিনিধি: আজ থেকে ঠিক ১২৭ বছর আগে ১৮৯৩ খ্রিষ্টাব্দের ১১ই সেপ্টেম্বর আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো শহরের কলম্বাস হলে যে ধর্মমহাসভা শুরু হয়েছিল, সেই ধর্মমহাসভার অন্যতম ভারতীয় প্রতিনিধি ছিলেন স্বামী বিবেকানন্দ ৷ এই ধর্মমহাসভার দ্বিতীয় অধিবেশনে স্বামীজী বক্তৃতা দিতে উঠেই সম্বোধন করলেন “Sisters and Brothers of America”, সাথে সাথে কয়েক হাজার নরনারী হর্ষধ্বনিতে ফেটে পড়েছিল ৷ দু’মিনিট ধরে তাদের করতালি চলল ৷ স্বামীজী সংক্ষিপ্ত ভাষণ দিলেন যার মমার্থ, গুরুদেব শ্রীরামকৃষ্ণের সেই ‘যত মত তত পথ’ – এর সুমহান আদর্শ ৷ কোনো নির্দিষ্ট ধর্মের জায়গান করলেন না তিনি ৷ কারন, সব ধর্মই যে সমান সত্য ৷ ভারতবর্ষের মানুষের এই সনাতন বিশ্বাসকেই তিনি সবার সামনে তুলে ধরলেন ৷
.
তিনি বললেন, “আমি সেই ধর্মের অন্তর্ভুক্ত বলে গৌরব বোধ করি, যে ধর্ম জগৎকে শিখিয়েছে সহিষ্ণুতা ও সর্বজনীন গ্রহীষ্ণুতার আদর্শ ৷ আমরা শুধু সব ধর্মকে সহ্যই করি না, সব ধর্মকে আমরা সত্য বলে বিশ্বাস করি ৷ আমি সে জাতির অন্তর্ভুক্ত বলে গর্ববোধ করি, যে জাতি সব ধর্মের নিপীড়িত ও শরণার্থী মানুষকে আশ্রয় দিয়ে এসেছে ৷ হে ভগবান, নিজের রুচির বৈচিত্র্যের জন্য সরল জটিল নানা পথ ধরে যারা চলেছে তাদের সবার লক্ষ্যস্থল কিন্তু তুমিই…”

তিনি আরও বললেন “সাম্প্রদায়িকতা, গোঁড়ামি এবং তার ভয়াবহ ফল, ধর্মোন্মত্ততা বহু দিন ধরে সুন্দর পৃথিবীকে গ্রাস করে রেখেছে ৷ জগৎকে তারা হিংসায় পরিপূর্ণ করেছে ৷ মানুষের রক্তে সিক্ত করে দিয়েছে এবং জাতির পর জাতি এর ফলে হতাশায় নিমগ্ন হয়েছে ৷ এসব ভয়াবহ পিশাচ যদি না থাকত, মানবসমাজ এখনকার থেকে অনেক বেশি উন্নত হতো ৷”
.
সেই গৌরবময় দিনের পর দেখতে দেখতে ১২৬ বছর অতিক্রান্ত হয়ে গেল ৷ একদিকে যেমন সাম্প্রদায়িকতার বিষবাষ্প দেশকে ক্রমাগত আচ্ছন্ন করে চলেছে, তেমনই ক্রমবর্ধমান অসহিষ্ণুতা, অগ্রহিষ্ণুতা ক্রমাগত আঘাত করার চেষ্টা করে চলেছে ভারতের গৌরবময় সমন্বয়ী ঐতিহ্যের ভিত্তিমূলে ৷ এমনকী গুরুদেব শ্রীরামকৃষ্ণের “যত মত তত পথ” আদর্শের উদ্গাতা স্বামী বিবেকানন্দের সুমহান ভাবাদর্শকেও সাম্প্রদায়িকতার রঙে রাঙানোর হীন প্রচেষ্টাও চালানো হচ্ছে ৷ তাই আজ ১২৬ বছর পরেও স্বামী বিবেকানন্দের শিকাগো বক্তৃতার তেজোদীপ্ত বাণীগুলি আরও অনেক বেশী প্রাসঙ্গিক মনে হয় -“যদি কেহ এরূপ স্বপ্ন দেখেন যে অন্যান্য ধর্ম লোপ পাইবে এবং তাঁহার ধর্মই টিকিয়া থাকিবে, তবে তিনি বাস্তবিকই কৃপার পাত্র; তাঁহার জন্য আমি আন্তরিক দুঃখিত, তাঁহাকে আমি স্পষ্টভাবে বলিয়া দিতেছি, তাঁহার ন্যায় ব্যক্তির বাধাপ্রদান সত্ত্বেও শীঘ্রই প্রত্যেক ধর্মের পতাকার উপর লিখিত হইবে : বিবাদ নয়, সহায়তা; বিনাশ নয়, পরস্পরের ভাবগ্রহণ; মতবিরোধ নয়, সমন্বয় ও শান্তি ৷”(সংগৃহীত)