অফিস দেখতে গিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়লেন কঙ্গনা

0
22

বলিউড অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাওয়াতের সঙ্গে বিরোধ চলছে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরের। পাল্টাপাল্টি কথা চালাচালি হচ্ছে। এরই মধ্যে গতকাল মুম্বাই পৌরসভার পক্ষ থেকে বেআইনি নির্মাণের অভিযোগে কঙ্গনার অফিস ভাঙার পর আজ সেই জায়গাটি পরিদর্শন করলেন অভিনেত্রী। তিনি বান্দ্রায় নিজের অফিসে যাওয়ার পর সেখানকার অবস্থা দেখে কান্নায় ভেঙে পড়েন।

কঙ্গনার আইনজীবী রিজওয়ান সিদ্দিকি জানিয়েছেন, ‘বিএমসি-র দল বেশ কয়েকটি দামী শিল্পকর্ম ও শৌখিন জিনিস ভেঙে দিয়েছে। কঙ্গনার নানা শিল্পকর্ম কেনার শখ রয়েছে। গতকাল তার অফিসে বিএমসি-র অভিযানে সেগুলি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কঙ্গনার দু’কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। যে কোনও মূল্যে ক্ষতিপূরণ আদায় করা হবে।’

আজ আবার শিবসেনা প্রধান তথা মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরেকে আক্রমণ করে শিবসেনাকে ‘সনিয়া সেনা’ বলে ট্যুইটে তোপ দেগেছেন কঙ্গনা। এই অভিনেত্রী ট্যুইটে লেখেন, ‘কুর্সির জন্য বালাসাহেব ঠাকরের নীতি আদর্শ জলাঞ্জলি দিয়ে শিবসেনা এখন সনিয়া সেনাতে পরিণত হয়েছে। মুম্বাই পৌরসভার ভূমিকাকে আক্রমণ করে কঙ্গনার ট্যুইট বার্তা, ‘যারা অফিস ভাঙে তাদের দয়া করে সিভিক বডি বলবেন না। সংবিধানের অপমান করবেন না।’

পাল্টা শিবসেনার মুখপত্র সামনায় সাংসদ সঞ্জয় রাউতের বিবৃতি প্রকাশিত হয়েছে। তাতে তিনি লিখেছেন, ‘প্রতিশোধ নেওয়ার মনোভাব থেকে কঙ্গনার অফিসে বৃহন্মুম্বই পুরসভা অভিযান চালায়নি। তবে কেন অফিস ভাঙা হয়েছে, তার জবাব দিতে পারবেন পৌরসভার কমিশনার। কেউ যদি আইন ভাঙে তাহলে পদক্ষেপ করতে হয়।’ সেই সঙ্গেই সঞ্জয় লিখেছেন, তারা বাবরি ধ্বংস করেছিলেন, কঙ্গনা তাদের কী শেখাবেন? সঞ্জয় বিবৃতিতে লিখেছেন, কঙ্গনা একজন শিল্পী যিনি মুম্বাইয়ে থাকেন। তিনি মুম্বাই সম্পর্কে অবমাননাকর মন্তব্য করেছেন। যদি তিনি মন্তব্য প্রত্যাহার করে নেন, তাহলে আর ঝামেলা থাকে না।