রাজধানী

গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরে মাছ চাষ করে হামিদা বেগম এখন স্বাবলম্বী

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি : গোপালগঞ্জ জেলার মুকসুদপুর উপজেলার ননীক্ষির গ্রামে মাছ চাষ করে হামিদা বেগম স্বাবলম্বী হয়েছে। শ্রম নিষ্ঠা সততা থাকলে কোন বাধাই পথে বাধা হতে পারে না। যেমন পারেনি মুকসুদপুর উপজেলার ননীক্ষির গ্রামের হামিদা বেগমের জীবন।

দুই ছেলে এক মেয়ে ও স¦ামী নিয়ে কোনো রকম ভাবে সংসার চলতো তাদের। এরপর কোন কূল কিনারা না পেয়ে বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট সোসাইটি (বিডিএস) সংস্থা থেকে হামিদা বেগম মাত্র ১০ হাজার টাকা ঋণ নিয়ে পোনা মাছ চাষের ব্যবসা শুরু করে। এরপর থেকে তাদের পরিবারের আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। মাত্র ১০ হাজার টাকা পরিশোধ করে ২০ হাজার এরপর ৩০ হাজার পরিশোধ করে ৫০হাজার টাকা ঋণ নিয়ে একের পর এক ব্যবসা বাড়াতে থাকেন তিনি। বর্তমানে তার ৬টা পুকুর লিজ নেওয়া আছে তাতে সব মিলিয়ে পুকুর গুলিতে ৬ থেকে ৭ লাখ টাকার মাছ আছে।

হামিদা বেগম সাংবাদিকদের জানান, যখন আমাদের সংসারের হাল বেহাল হয়ে পড়ে ছিলো তখন আমি বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট সোসাইটির (বিডিএস) সংস্থার মুকসুদপুর জলিরপাড় শাখা অফিস থেকে ঋণ নিয়ে মাছের পোনার চাষ শুরু করি। এরপর থেকে আমার সংসারের ভাগ্যের চাকা ঘুরতে থাকে। এখন আমার পরিবার নিয়ে আল্লাহ্র রহমতে খেয়ে পড়ে অনেক ভালো আছি।
তিনি আরো বলেন, আমি ৫ লাখ টাকা খরচ করে বাড়িতে থাকার জন্য একটি ঘর দিয়েছি ও ফসলি জমি কিনেছি বর্তমানে আমার ৬টা পুকুরে কাতল, সিলবার, বিভিন্ন মাছসহ ৬/৭ লাখ টাকার মাছ আছে। প্রতি মাসে পুকুর থেকে আয় আসে প্রায় ৪০ থেকে ৫০ হাজার টাকা।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট সোসাইটি (বিডিএস) সংস্থার মুকসুদপুর জলিরপাড় শাখা ব্যবস্থাপক বাসুদেব রায় সাংবাদিকদের বলেন, হামিদা বেগম খুবই পরিশ্রমী সে বিডিএস থেকে ঋণ নিয়ে মাছ চাষ করে স্বাবলম্বী হয়েছে। এ ভাবে বেকারদের কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে এগিয়ে আসা উচিত।

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.