দেশজুড়ে

ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়ে ঝুঁকিপূর্ণ যাত্রী বহন

  • 190
    Shares

শ্রীনগর (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি: ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়েতে সকাল সন্ধ্যা চলছে ভাড়ায় চালিত মোটর সাইকেলে করে যাত্রী পারাপার। আইন অমান্য করে মানা হচ্ছেনা সামাজিক দূরত্ব। প্রতিদিন দক্ষিনাঞ্চলের হাজার হাজার নারী পুরুষ প্রতি মোটর সাইকেলে চালকসহ ৩/৪ জন করে গাদাগাদিভাবে ঝুঁকিপূর্ণভাবে কাঁধে ও হাতে ব্যাগ নিয়ে হেলমেট বিহীন বাইকে চলাচল করছে। যে কোনও সময়ে দুর্ঘটনার স্বীকার হতে পারে।

লক্ষ্য করা গেছে, দিনব্যাপী একপ্রেসওয়েতে শতশত বাইকে মানুষ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ছুটছেন। চালক ব্যতিত আরোহীদের মাথায় নেই কোনও হেলমেট। বয়স্ক নারী পুরুষসহ শিশুদেরও বাইকে চেপে দ্রুত গতিতে যেতে দেখা যাচ্ছে। গত কয়েকদিন থেকে রোববার পর্যন্ত এমনি চিত্র দেখা গেছে শ্রীনগর উপজেলার বেজগাঁও, ছনবাড়ী ও ষোলঘর এলাকায় জুড়ে।

ছনবাড়ী ও ষোলঘরে হাইওয়ে পুলিশের রাউন্ডিং থাকায় মোটর সাইকেলগুলো ষোলঘর বাজার হয়ে মাওয়ার দিকে যাচ্ছে। অন্যদিকে ছনবাড়ী চৌরাস্তার ওভার ব্রীজসহ বিভিন্ন স্থানে পুলিশ থাকার ভয়ে বাইকগুলো শ্রীনগর চকবাজার হয়ে পুরাতন ফেরীঘাট দিয়ে এক্সপ্রেসওয়েতে উঠছে। এছাড়াও ছনবাড়ী থেকে কল্লিগাঁও হয়ে বাড়ৈগাঁও দিয়ে বিভিন্ন শাখা রাস্তা ব্যবহার করে বেজগাঁও বাস স্ট্যান্ডের দিক দিয়ে পুনরায় মহাসড়কে উঠে মাওয়ার দিকে যাচ্ছে। শুধু মোটর সাইকেলই নয়, দেখা গেছে এক্সপ্রেসওয়েতে নিষিদ্ধ ছাদ ও সিটবিহীন (মালবাহী ট্রাক) লেগুনাতেও বোঝাই করে নারী-পুরুষসহ শিশুরাও চলাচল করছে।

মহাসড়কের ছনবাড়ী চৌরাস্তায় এসয়ম যাত্রী হানিফ মিয়া (৬০) বলেন, ছোট ছোট দুই নাতি নাতনীসহ মোট ৬ জন তারা ঢাকা থেকে ভেঙে ভেঙে ট্রাকে করে ছনবাড়ী পর্যন্ত এসেছেন। এখানে পুলিশের বাঁধায় নামতে হচ্ছে। কুচিয়ামোড়া থেকে মাওয়া পর্যন্ত জনপ্রতি ১১০ টাকা করে মাওয়া যাবেন বলে কথা হয়েছিল জানান তিনি। এছাড়াও মোটর সাইকেল আরোহী আলীম হোসেন (৪৫), রেখা বেগম (৩৫) বলেন, ঢাকা থেকে মাওয়া পর্যন্ত মোটর সাইকেলে জনপ্রতি ৩০০ টাকায় যাচ্ছেন তার ফুরিদপুর যাবেন। সামনে পুলিশ তাই এখানে অপেক্ষা করছেন তারা। এসময় দেখা গেছে, প্রতি মোটর সাইকেলে চালক ও আরোহীসহ কমপক্ষে ৩ জন। কোনও কোনও মোটর সাইকেলে চালকসহ পুরুষ মহিলা ও শিশুসহ ৪/৫জন করেও চলাচল করছে। বরিশালের সামিউল হক (৪০) বলেন, তিনি মাওয়া যাচ্ছেন ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সায় করে। তিনিসহ আরো ৪ জন একসাথে গোয়ালীমান্দ্রা হয়ে মাওয়া ফেরীঘাট পর্যন্ত জনপ্রতি ৬০ টাকা ভাড়া দিবেন।

এখানে করোনা মোকাবেলায় কোনও রকমের সামাজিক দূরত্ব মানা হচ্ছেনা। ঝুকিপূর্ণভাবে সরকারের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে দল বেঁধে মানুষ ছুটছেই। সামাজিক দূরত্বের কোনও বালাই নেই! বিষয়টি অতি দুঃখজনক এমনটা মনে করছেন সুশিল মহল। এব্যাপারে জানতে চাইলে হাঁসাড়া হাইওয়ে থানার সার্জেন্ট সঞ্জয় কুমার বিশ্বাস জানান, হাই এক্সপ্রেসওয়ের ধলেস্বরীর এখানে একটি চেকপোষ্ট বসানো হয়েছে। দিনব্যাপী মাওয়া গামী প্রায় ৫’শতাধিক মোটর সাইকেল, কয়েক শতাধিক মাইত্রো ও প্রাইভেটকার ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে। তার পরেও মোটর সাইকেল ও প্রাইভেটকার গুলো বিকল্প লিংকরোড ব্যবহার করে বিভিন্ন দিক দিয়ে মাওয়ার দিকে যাচ্ছে। এসময় আমাদের কিছুই করার থাকেনা। তাছাড়া আমাদের ডিউটি শুধু মহাসড়কের মধ্যেই সীমাবদ্ধ। করোনা সংক্রমণের ঝুকি নিয়ে শতশত মানুষের ভীড়ে কাজ করছি। তারপরেও সবাই নিরাপদে থাকুক। এটাই আমাদের প্রত্যাশা। অথচ সাধারণ মানুষগুলো তা বুঝার চেষ্টাই করছেন না।


  • 190
    Shares

Related Articles