দেশজুড়ে

শ্রীনগরে বিক্রি হচ্ছে রেডিমেট টিনের ঘর

শ্রীনগর (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি: শ্রীনগরে বিক্রি হচ্ছে রেডিমেট টিনের ঘর। বিক্রমপুর তথা মুন্সীগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী টিনের ঘর সারা দেশ জুড়ে এর পরিচিতি রয়েছে। এই অঞ্চলের জনপথে দেখা যায় নান্দনিক সব বাহারী রকমের নকসার টিন ও কাঠের ঘর। জেলার মধ্যে রেডিমেট এসব টিনের ঘর সবচেয়ে বশেী তেরী করা হয় লৌহজংয়ের বিভিন্ন এলাকায়। এছাড়াও শ্রীনগরেও ইডানিং কয়েক জায়গায় রেডিমেট টিনের ঘর বিক্রি করা হচ্ছে।

দেখা গেছে, শ্রীনগর উপজেলার সাতগাঁও, বালাশুরসহ বিভিন্ন স্থানে ঘর ব্যবসায়ীরা রেডিমেট টিনের ঘর বানাচ্ছেন। ঘরগুলো একটি বিভিন্ন বাগান বাড়ি কিংবা রাস্তার পাশে পরিত্যাক্ত স্থানে তৈরী ঘর ফিটিং করা হচ্ছে। মানুষের চাহিদা অনুযায়ী সতের বন্ধর ও সাতাইশের বন্ধরের বিভিন্ন ডিজাইনের ঘর বেশী তৈরী করেন ব্যবসায়ীরা। চৌচালা টিনের ঘরগুলো কাঠ ও টিনের ওপর নির্ভর করে এর দাম। এখানে সর্বনিম্ন ২ থেকে ৪ লাখ টাকার ঘরই বেশী বিক্রি হয়ে থাকে। লক্ষ্য করা গেছে, এখানে এক তলা, সোয়া তলা, দেড় তলা ও দু’তলা টিনের ঘরের গুরুত্ব সবচেয়ে বেশী।

হাবিবুর শেখ, এলেম হোসেনসহ কয়েক জনে ঘর ব্যবসায়ীর সাথে আলাপ করে জানা যায়, ঘর নির্মাণে নাইজেরিয়ান বা মালয়েশিয়ার লোহা কাঠের ব্যবহার হচ্ছে বেশী। এছাড়াও ঘরে বেড়ার নকশায় ও পাটাটনে অন্যান্য কাঠের ব্যবহারও হয়ে থাকে। তবে অনেকে নতুন ঘরের অর্ডার দিয়ে থাকেন। সেক্ষেত্রে ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী ঘরে কাঠ, টিন ও ডিজাইন করতে হয়। মূলত ভালমানের কাঠ, টিন ও নকশার ওপর ঘরের দাম হাকানো হয়। এক তলা সাতাইশের বন্ধরের একটি ঘর তৈরীতে কাঠ মিস্ত্রিদের প্রায় একশত রোজ বা একমাস সময় পর্যন্ত লাগতে পারে। স্থানীয়রা জানান, যদিও এই অঞ্চলে এখন প্রচুর দালন কোথা নির্মাণ হচ্ছে।

তারপরেও এখানকার জনপথে টিনের ঘরগুলো বিক্রমপুরের ঐতিহ্য বহন করে। এছাড়াও টিনের ঘরে থাকা আরাম দায়ক। অপরদিকে টিনের ঘর যেকোনও সময়ে স্থান্তর করা সহজ। তারা জানান, এক সময়ে এখানকার মানুষ কাঠ মিস্ত্রিদের রোজ হিসেব অনুযায়ী নিজেদের বাড়িতেই টিনের ঘর নির্মাণ করতো। তবে বর্তমান সময়ে বেশীর ভাগ মানুষ রেডিমেট ঘরই কিনতেই পছন্দ করছেন।

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button