বিশেষ প্রতিবেদন

সম্মেলনের মাধ্যমে বিদায় নিতে চায় (সভাপতি) হাসান শিকদার

  • 6.1K
    Shares

মোঃ রনি খান, পটুয়াখালী জেলা প্রতিনিধি: পটুয়াখালী জেলা ছাত্রলীগের ( সভাপতি ) মোঃ হাসান শিকদার সম্মেলনের মাধ্যমে বিদায় নিতে চান এবং সুন্দর একটি কমিটি উপহার দিতে চান। দীর্ঘ তিন বছর যাবৎ পটুয়াখালী জেলা ছাত্রলীগের কমিটি পরিচালনা করে আসছেন (সভাপতি) মোঃ হাসান শিকদার। তরঙ্গ নিউজের সাথে একান্ত সাক্ষাতকারটি নিম্নে তুলে ধরা হলো

সাংবাদিক: উপজেলা পর্যায়ে পূর্ণাঙ্গ কমিটি কবে হবে?

হাসান শিকদার : সেন্টালের অনুুুুমতি আছে তবে আবহাওয়া ও করোনা পরিস্থিতি একটু স্বাভাবিক হলেই কমিটি হতে পারে বলে যানান। এবং যারা দির্ঘদীন সংগঠনের সাথে কাজ করে আসছেন তাদের তো মূল্যায়ন করতেই হবে। সেদিক বিবেচনা করে কমিটি দেয়া হবে।

সাংবাদিক: আপনি ছাত্রলীগের পূর্বের ও বর্তমান কমিটির মাঝে কি পার্থক্য দেখেন ?

হাসান শিকদার : পূর্বের ও বর্তমান ছাত্রলীগের নীতিগত কোনো পার্থক্য নেই। তবে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, আমরা সবাই বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতি করি। যারা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ছিলেন তারাও বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতি করে গেছেন। তবে আমাদের কিছু দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন করতে হবে।

সাংবাদিক: ছাত্রলীগে অনুপ্রবেশ ঠেকাতে আপনারা কি ধরনের পদক্ষেপ নেবেন ?

হাসান শিকদার :অনুপ্রবেশকারী বলতে কাকে বুঝছি তা আগে বুঝতে হবে। অনুপ্রবেশকারী বলতে আমি বুঝি যার মধ্যে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ নেই,,,,, কিন্তু তারা ছাত্রলীগ করছে, এরাই তো অনুপ্রবেশকারী। আমরা অনেক বিচার-বিশ্লেষণ করব, যারা ২০১৪ সালের প্রেক্ষাপটে মাঠে ছিলেন, এবং উড়ে এসে জুড়ে বসবে এ রকম নয়। কোথাও না কোথাও অবদান আছে, ছাত্রলীগের কোনো ইউনিটে কাজ করেছে,। সেখানে একটা ভাইটাল রোল প্লে করেছে। সেই দৃষ্টিকোণ থেকে আমরা বিচার করব।

সাংবাদিক: লেখাপড়ার পাশাপাশি বিভিন্ন পেশায় যারা আছেন তাদের মূল্যায়ন করা হবে কিনা?

হাসান শিকদার : , ব্যাবসায়ীদের ছাত্রলীগের কোন প্রয়োজন নেই বলেই মনে করেন। এবং ছাত্রলীগ করতে হলে পদ নিয়ে করতে হবে এটা খারাপ দিক। তবে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের গঠন তন্ত নিয়মের বাহিরে কোন প্রকার যাওয়া জাবে না যেমন : বিভাহিত, অ–ছাত্র, মাদকে আশাক্ত, সন্তাশ, চাদাবাজি,
টেন্ডার বাজি, মামলার আসামী, রাষ্ট্র বিরোধী, এসব বিষয়ে খুব সচোতন থাকার আহ্বান ।

সাংবাদিক : ছাত্রলীগকে কোন অবস্থায় দেখতে চান?

হাসান শিকদার : বঙ্গবন্ধু,মানে বাংলাদেশ ও মুক্তিযুদ্ধ এই ৩টি বিষয়কে যারা মনপ্রাণ দিয়ে ভালোবাসে তাদের নিয়েই ছাত্রলীগকে সাজাতে চাই। আমরা দেখতে চাই ছাত্রলীগের প্রত্যেক নেতাই হবেন আদর্শবান এবং দলের জন্য নিবেদিত প্রাণ। ছাত্রলীগের কর্মী নাম শুনলেই শুধু বাংলাদেশে নয় পুরো বিশ্বে যেন মূল্যায়িত হন সেজন্য প্ল্যাটফর্ম আমরা গড়ে তুলতে চাই।


  • 6.1K
    Shares

Related Articles