রাজধানী

দক্ষিণখানে নিহত তিন জনের পরিচয় মিলেছে

এস, এম, মনির হোসেন জীবন : রাজধানীর দক্ষিণখানের প্রেম বাগান এলাকার আশ্রয় নামে একটি বাড়ি থেকে তিনজনের মরদেহ উদ্ধার করেছে ডিএমপি দক্ষিণখান থানা পুলিশ। নিহতদের মধ্যে একজন ছেলে, একজন মেয়ে ও তার মা রয়েছে। তারা হলেন-মা মুন্নী (৩৯), ফারহান (১২) ও লাইভা (৩)। হত্যাকান্ডে ব্যবহূত একটি হাঁতুড়ি পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে উদ্বার করেছে। রাতে এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত এখনও পর্যন্ত কাউকে আটক কিংবা গ্রেফতার করতে পারেনি।

এদিকে একসাথে মা-মেয়ে ও ছেলের তিনটি মরদেহ উদ্বারের খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে পরিদর্শন করেছেন উত্তরা বিভাগের পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা সহ সিআইডির ক্রাইম সিনের একটি দল। তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন সহ বিভিন্ন আলামত সংগ্রহ করছেন।

শুক্রবার সন্ধ্যা পৌনে ৬টার দিকে রাজধানীর দক্ষিণখান থানার প্রেমবাগানে কেসি স্কুলের পেছনে বাড়ি নং ৮৩৮, আশ্রয় নামে বাড়ি থেকে দুই শিশু এবং এক নারীর মরদেহ উদ্ধার করেছে দক্ষিণখান থানা পুলিশ।

শুক্রবার রাতে উত্তরা ডিভিশনের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) নাবিদ কামাল শৈবাল ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, উদ্ধার হওয়া ওই নারীর নাম মুন্নী (৩৮)। বাকি দুটি মরদেহ ছেলে ও মেয়ে শিশুর। তাদের বয়স যথাক্রমে ফারহান (১২) ও লাইভা (৩) বছর। তাদের গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায়। তারা ২০১১ সাল থেকে এই বাড়িতে থাকতেন।

শুক্রবার রাতে ডিএমপি দক্ষিণখান থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. হযরত আলী এ সব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

দক্ষিণখান থানার ডিউটি অফিসার উপ-পরিদর্শক (এসআই) কে এম মনছুর আলী বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আমরা আজ সন্ধ্যার দিকে স্থানীয় এলাকাবাসিদের কাছ থেকে খবর পেয়ে জানতে পেরে ওই বাসা থেকে দুই শিশু ও এক নারী সহ মোট তিন জনের মরদেহ পুলিশ উদ্ধার করেছি। পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে আছেন। তিন জনের মরদেহ উদ্বারের বিষয়টি নিয়ে পুলিশ কাজ করছেন। তবে, কীভাবে তাদের মৃত্যু হয়েছে, তা এখনও জানা যায় নি।

দক্ষিণখানের প্রেমবাগান এলাকার বাসিন্দারা  বলেন, ওই বাসার মালিকের নাম রাকীব উদ্দিন আহমেদ। তিনি উত্তরার টেলিফোন শিল্প সংস্থা (টেশিস) কর্মরত আছেন। এটি একটি পরিকল্পিত হত্যাকান্ড বলে ধারনা করা হচেছ। ঘটনার পর থেকে বাসার মালিক নিখোঁজ রয়েছে। এক সাথে তিনজনের মরদেহ উদ্বারের খবর পেয়ে ওই বাসার সামনে শত শত নারী পুরুষ প্রচন্ড ভীড় জমায়।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) উত্তরা বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) নাবিদ কামাল শৈবাল বলেন, বাড়ির গৃহকর্তাকে এখনও খোঁজে পায়নি পুলিশ। এটি একটি হত্যা কান্ড বলে প্রাথমিক ভাবে ধারনা করা হচেছ। তদন্ত সাক্ষেপে তা বলা যাবে।

তিনি ঘটনাস্থলে সাংবাদিকদেরকে বলেন, এটি একটি হত্যাকান্ড। হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে ও শ্বসরোধে তাদেরতে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারনা করা হচেছ। শাথায় গুরুতর আঘাতের দাগ রয়েছে। ঘরের এক রুম থেকে মা ও মেয়ের মরদেহ উদ্বার করা হয়। অপর রুমের খাটে ছিল ছেলের মরদেহ।

লাশের সুরতহাল রিপোর্ট শেষে মরদেহ তিনটি ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে পাঠানো হবে। এবিষয়ে প্রয়োজনীয় আইননানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের প্রস্তুতি চলছে বলে জানান পুলিশের এই উর্ধ্বতন কর্মকর্তা।

Comments

comments