আন্তর্জাতিক

করোনাভাইরাসের আতঙ্কে টোকিও অলিম্পিকও

আপাতত করোনাভাইরাস নিয়ে সবচেয়ে বেশি দুশ্চিন্তা চীনের। তবে বিশ্বজুড়েই এর ঝুঁকি বাড়ছে দিনকে দিন। স্বভাবতই চীনের কাছের দেশ জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, থাইল্যান্ডও আছে বড় ঝুঁকিতে।

জাপানেই চলতি বছরের জুলাই-আগস্টে হওয়ার কথা টোকিও অলিম্পিক। অলিম্পিক আয়োজকরাও করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব নিয়ে চিন্তিত। যদিও করোনাভাইরাসের আতঙ্কে টোকিও থেকে অলিম্পিক সরিয়ে নেওয়ার বা বন্ধ করে দেওয়ার কোনও কারণ নেই বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি (আইওসি)।

তবে অলিম্পিক সংযোগকারী কমিটির চেয়ারম্যান জন কোটস বলেছেন, ‘করোনাভাইরাসের জন্য নিয়মিত সকলের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে হচ্ছে। এটা বিশাল কাজ।’

করোনাভাইরাসে বিশ্বজুড়ে এখন পর্যন্ত ৬৪ হাজারের বেশি মানুষ আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু) জরুরী স্বাস্থ্য সতর্কতা জারি করেছে। এখন পর্যন্ত চীনেই মারা গেছেন দেড় হাজারের ওপর মানুষ।

ভাইরাসের কারণে চীনে ইতিমধ্যেই অনেকগুলো স্পোর্টিং ইভেন্ট বাতিল করা হয়েছে। এর মধ্যে ১৩-১৫ মার্চ নানজিংয়ে হওয়ার কথা ছিল ওয়ার্ল্ড অ্যাথলেটিকস ইনডোর চ্যাম্পিয়নশিপ, পরের সপ্তাহে সান্যতে অল ইলেকট্রিক ফর্মুলা ই সিরিজ-দুটো সিরিজই বাতিল হয়েছে।

টোকিও অলিম্পিক ঘিরে মূল শঙ্কাটা অবশ্য অন্য জায়গায়। এই টুর্নামেন্টে সবচেয়ে বেশি অ্যাথলেট অংশ নেয়ার কথা চীন থেকেই (৬০০)। চীনের এখন যে অবস্থা, তাতে এই অ্যাথলেটরা জাপানে গিয়ে খেলতে পারবেন কি না, সেই সংশয় থেকেই যাচ্ছে।

যদিও অলিম্পিক সংযোগকারী কমিটির চেয়ারম্যান জন কোটস মনে করছেন, এটা বড় কোনো সমস্যা নয়। তার ভাষায়, ‘হু যা তথ্য দিয়েছে, তার ভিত্তিতে অলিম্পিক হওয়া নিয়ে কোনও সংশয় নেই। সবচেয়ে বেশি অ্যাথলেট চীন থেকে আসছে। তবে চীনের বেশিরভাগ অ্যাথলেটই এখন দেশে নেই। ফলে জানা নেই, করোনাভাইরাস পরীক্ষায় ক’জন যোগ দেবেন। যদিও অন্য দেশের ক্ষেত্রে কোনই সমস্যা নেই।’

Comments

comments