ক্যাম্পাস

ছুটির দিনেও উত্তাল বশেমুরবিপ্রবি

ছুটির দিনেও শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে উত্তাল গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি)। ইতিহাস বিভাগের অনুমোদনের দাবিতে একটানা ৯ম দিনের মতো অবস্থান কর্মসূচি অব্যাহত রেখেছে বিশ্ববিদ্যালয়টির ওই বিভাগের শতাধিক শিক্ষার্থী।

আজ শুক্রবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) ছুটির দিনেও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করতে দেখা যায় আন্দোলনকারীদের।

এদিন বেলা ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) নীরব ভূমিকার প্রতিবাদে চোখে কালো কাপড় বেঁধে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থীরা। এসময় তারা ইতিহাস বিভাগের আনুমোদন ছাড়া ঘরে ফিরবেন না বলে দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

পরে বিকেল ৪টায় সুন্দরবন দিবস উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি পালন করেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।

এদিকে, ইতিহাস বিভাগের অনুমোদনের দাবিতে আন্দোলনের কারণে ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েছেন সাধারণ শিক্ষার্থীরা।তারা সেশনজটে পড়ার আশঙ্কা করছেন।

গণিত বিভাগ দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মারুফুল কবির জানান, “আন্দোলনের কারণে আমাদের ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ রয়েছে। এভাবে চলতে থাকলে আমরা সেশনজটে পড়ে যাবো। আমাদের অভিভাবকরা আমাদের নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছেন। ইউজিসির উচিত বিষয়টা দ্রুত সমাধান করা।”

প্রসঙ্গত, ইউজিসির অনুমোদন ব্যতিত বশেমুরবিপ্রবির সাবেক উপাচার্য খোন্দকার নাসিরউদ্দিন ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষ থেকে ইতিহাস বিভাগের শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করেন। প্রায় তিন বছর পর গত ৬ ফেব্রুয়ারী বিভাগটিতে নতুন কোনও শিক্ষার্থী ভর্তি না করার নির্দেশ দেয় ইউজিসি।

ইউজিসির এ সিদ্ধান্ত প্রত্যাখান করে ৬ ফেব্রুয়ারি রাত থেকেই প্রশাসনিক ভবনের সামনে আন্দোলন শুরু করে শিক্ষার্থীরা এবং ৮ ফেব্রুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সব গুরুত্বপূর্ণ ভবনে তালা ঝুলিয়ে দেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। বিভাগটিতে তিন ব্যাচে সর্বমোট ৪১৩ জন শিক্ষার্থী অধ্যায়নরত রয়েছেন বলে জানা যায়।

Comments

comments