জাতীয়

সারা বাংলাদেশে ৪২৭টি ফায়ার সার্ভিস স্টেশন রয়েছে: মহাপরিচালক

এস, এম, মনির হোসেন জীবন : বাংলাদেশ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স এর মহাপরিচালক (ডিজি) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ সাজ্জাদ হোসাইন (এনডিসি, এএফডব্লিউসি, পিএসসি, এমফিল) বলেছেন, সারা বাংলাদেশে ৪২৭টি ফায়ার সার্ভিস স্টেশন আমাদের রয়েছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে অগ্নি নিরাপত্তায় ১৩ থেকে ১৪ হাজার লোকের জন্য গড়ে একজন করে ফায়ার ফাইটার রয়েছেন। অথচ বিশ্বের অন্যান্য দেশে ৪শ থেকে ৫শ জন লোকের জন্য একজন ফায়ার ফাইটার নিয়োজিত আছেন।

সোমবার (১০ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত রাত ৮টা থেকে ৯টা পর্যন্ত বেসরকারী টেলিভিশন চ্যানেল একাত্তর (টিভি’তে) টকশো মানুষের নিরাপত্তা প্রশ্ন (লাইফ) অনুষ্ঠানে আলোচক হিসেবে তিনি এসব কথা বলেন।

এসময় টকশো অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন-বুয়েটের প্রফেসর ড. মেহেদী আহম্মেদ আনসারী ও ইলেকট্রিক এ্যান্ড সেফটি এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ইসাব) এর সভাপতি মো: মোতাহার আলী।

এক প্রশ্নের জবাবে দি লাইফ সেভিং ফোর্স বাহিনীর ডিজি ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ সাজ্জাদ হোসাইন বলেন, ঢাকা শহরে যদি ৭ থেকে ৮ উচচ মাত্রার ভুমিকল্প কখনও হয় তাহলে ঢাকা শহরের অনেক বহুতল ভবন থাকবেনা। সেগুলো ধসে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ঢাকা শহরে কোথায় আগুন লাগলে সেখানে পানিবাহী গাড়ি ঢুকার কোন রাস্তা না থাকলে বিকল্প হিসেবে ওই সরু রাস্তা দিয়ে ফায়ার সার্ভিসের রিমোট কন্ট্রোল গাড়ি ২শ মিটার দূর থেকে পানি ছুটতে সক্ষম হয়।

এক প্রশ্নের জবাবে ডিজি ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ সাজ্জাদ হোসাইন বলেন, গত ১৫ বছরের তুলনায় ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স বাহিনীতে অনেকটাই উন্নতি হয়েছে। পর্যায়ক্রমে সরকার এই বাহিনীকে আধুনিকায়ন করার লক্ষ্যে কাজ করছেন।

এসময় তিনি আরও বলেন, গত এক বছরের সরকারের পক্ষ থেকে এই বাহিনীর উন্নয়নে ১৮ কোটি টাকার কাজ করেছেন। ভবিষ্যতে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত থাকবে।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালক মোঃ সাজ্জাদ হোসাইন বলেন, ফায়ার সার্ভিস অগ্নিকান্ড প্রতিরোধে জনগনকে সচেতন করতে কাজ করে যাচেছন।

ঢাকা শহরের খালগুলো পরিস্কার নয়- দীর্ঘ দিন ধরে সেগুলো সংস্কার করা হচেছনা। খাল ও নালা গুলো জরুরী ভিত্তিতে সংস্কার করা প্রয়োজন বলে তিনি মনে করেন।

তিনি বলেন, তবে, আমাদের অনেক সমস্যা এখনও আছে। এসকল সমস্যা থেকে আমাদেরকে বের হয়ে আসতে হবে।

জানা গেছে, বর্তমানে ঢাকা মহানগরীতে প্রায় ২ থেকে আড়াই কোটি লোকের বসবাস। এখানে প্রশাসনের পক্ষ থেকে ৫৩ থেকে ৫৪টি প্রশাসনিক থানা গড়ে উঠলেও ঢাকা নগরবাসির অগ্নিনিরাপত্তায় মাত্র ১৫টি ফায়ার সার্ভিস স্টেশন রয়েছে। প্রতিটি ফায়ার স্টেশনে সবোর্চ্চ ৩২ থেকে ৩৫জন জনবল রয়েছে। প্রয়োজনের তুলনায় সেটি খুবই অপ্রতুল।

সুত্রে জানা গেছে- ২০১৯ সালে দেশে ৯৯৭টি শিল্পকারখানায় অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। এছাড়া ২০১৮ সালে সারা দেশে ১৯ হাজার ৬৪২টি অগ্নিকান্ড সংঘটিত হয়। তার মধ্যে ১৮ শতাংশ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে চুলার আগুন থেকে। বাকী গুলো বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট ও সিগারেটের আগুন থেকে হয়। ২০১৯ সালে অগ্নিকান্ডের ঘটনায় ১৮৫জন মারা যায়। গত এক বছরে অগ্নিকান্ডের ঘটনায় প্রায় ৩শ কোটি টাকার ও বেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

সংশ্লিস্ট হল মনে করছেন, বাংলাদেশ এখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন পূরণের লক্ষ্যে অদম্য গতিতে এগিয়ে চলেছে। আগামী দিনে বাংলাদেশের দি লাইফ সেভিং ফোর্স বাহিনীর জনবল সংকট থাকলেও সেটি তারা কাটিয়ে আরও একধাপ এগিয়ে যাবে-এমন ভাবছেন সংশ্লিস্টরা।

Comments

comments