নির্বাচিত

এইডস প্রতিরাধে চাই অধিক সচেতনতা

বর্তমানে প্রতি দুই মিনিটে একজন কিশোর বা কিশোরী এইচআইভিতে আক্রান্ত হচ্ছে। ইউনিসেফের হিসাব অনুযায়ী ১০ থেকে ১৯ বছর বয়সী আনুমানিক ৭০০ কিশোর-কিশোরী প্রতিদিন নতুন করে এইচআইভিতে আক্রান্ত হয়। জাতিসংঘ শিশু তহবিল-ইউনিসেফের প্রতিবেদন অনুযায়ী এই ধারা অব্যাহত থাকলে এইডসের কারনে ২০১৮ সাল থেকে ২০৩০ সালের মধ্যে প্রায় ৩ লাখ ৬০ হাজার কিশার-কিশোরীর মৃত্যু হতে পারে। যা মানব জীবনের জন্য মারাত্মক হুমকী ও বিপদ সংকেত।

১৯৮১-র দশকের শুরুতে রোগটি চিহ্নিত করার পর থেকে এ পর্যন্ত ৭ কোটি ৮ লক্ষ মানুষ মরণব্যাধি এইচআইভি-তে আক্রান্ত হয়েছে যার মধ্যে এইডস রোগে মোট ৩ কোটি ৫০ লক্ষ লোক মারা যায়। জাতীয় ও আর্ন্তজাতিক হিসাব অনুযায়ী বাংলাদেশে এইচআইভি বা এইডস আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা প্রায় ১৩ হাজার। যা বাংলাদেশের জনসংখার তুলনায় শূন্য দশমিক শূন্য ১ শতাংশ। আপাততদৃষ্টে এর প্রাদুর্ভাব কম হলেও এইডসের ঝুঁকিতে রয়েছে এমন জনগোষ্ঠীর হার ০.৭ শতাংশ। জাতিসংঘের এইডস বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইডসের মতে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় মিয়ানমার অন্যতম ঝুকিপূর্ন দেশ।

মিয়ানমারে মোট জনসংখ্যার মধ্যে হাজারে আটজন এইডস রোগে আক্রান্ত । বিভিন্ন সময়ে আসা রোহিঙ্গাদের কারনে আমাদের এইডসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুকি অনেক বেড়ে গেছে। স্বাস্থ্য অদিপ্তরের হিসাব অনুযায়ী বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গাদের মধ্যে ২৪০ জনকে নিবন্ধিত করা হয়েছে। তবে জাতিসংঘ শরণার্থী সংস্থা এবং বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার দেওয়া প্রতিবেদন অনুযায়ী রোহিঙ্গা এইডস রোগীর সংখ্যা ৬ হাজারের বেশি। যে বিষয়টি আমাদের জন্য উদ্দেগজনক ও মারাত্মক হুমকী। এইডসকে একটি মহামারী ব্যাধি হিসেবে গণ্য করা হয়। সামাজিক ভাবেও এই রোগীর অবস্থান হতাশা ও লজ্জাজনক। সামাজিক ভাবে হেয় প্রতিপন্ন হওয়ার ভয়ে রোগী চিকিৎসা করাতেও ভয় পায় যে কারনে এ রোগ ছড়ানোর সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়। এইডস একটি মারাত্মক রোগ এ রোগে মৃত্যু অবধারিত। তাই জীবনের প্রয়োজন এবং আগামী প্রজ্জম্ম কে বাঁচাতে এইডস সর্ম্পকে জানা ও প্রতিরোধের ব্যবস্থা গ্রহণ করা জুরুরী।

এইডস রোগটি এক ধরনের ভাইরাস এইচ আইভি দ্বারা আক্রান্ত রোগ। এইচআইভি ভাইরাসটি ১৯শ শতকের শেষ বা ২০শ শতকের শুরুর দিকে পশ্চিম –মধ্য আফ্রিকাতে উৎপওি লাভ করে। ১৯৮১ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রন ও প্রতিরোধ কেন্দ্র সিডিসি সর্ব প্রথম রোগটি শনাক্ত করে এবং এই রোগের কারণ হিসিবে এইচআইভি ভাইরাসটি শনাক্ত করে। ইংরেজী শব্দ অওউঝ এর পূর্ণরূপ: অপয়ঁরৎবফ রসসঁহড় ফবভরপরবহপু ংুহফৎড়সব) বা অর্জিত প্রতিরক্ষার অভাব জনিত রোগ। এইডস ঐওঠ ভাইরাস দ্বারা এ রোগ মানুষের শরীরে ছড়ায়। ঐওঠ এর পূর্ণরূপ: যঁসধহ রসসঁহড়ফবভরপরবহপু ারৎঁং)। এ রোগের প্রধান কাজ শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা নষ্ট করে দেওয়া। এর ফলে রোগী খুব সহজে যে কোন সংক্রামক রোগে আক্রান্ত হতে পারে যার শেষ পরিনতি মৃত্যু ঘটতে পারে।

এ রোগের সৃষ্টির কারণ অবাদ অনিরাপদ যৌন সর্ম্পক স্থাপন, একই সিরিজ বিভিন্ন রোগীর কিংবা মাদকসেবীর শরীরে ব্যবহার করলে, এইচ আইভি আক্রান্ত রোগীর রক্ত গ্রহণ করা, এইচ আইভি আক্রান্ত মায়ের দুধ পান করলে সন্তানের হতে পারে, আক্রান্ত ব্যক্তির কোন অঙ্গ দেহে প্রতিস্থাপন করলে এইডস হতে পারে। এছাড়া আক্রান্ত ব্যক্তি সামাজিক অপমানের কারনে এইডসের চিৎকিসা হতে বিরত থাকার কারনে অন্যন্য লোকদের ঝুকি বেড়ে যায়।

এইডসের লক্ষন সমূহ শরীরের ওজন হ্রাস পাওয়া, দীর্ঘদিন ধরে পাতলা পায়খানা, ঘন ঘন জ্বর হওয়া, রাতে শরীরে অতিরিক্ত ঘাম, দীর্ঘদিন কাশি ও শ্বাসকষ্টের সমস্যা শুরু হওয়া, প্রচন্ড মাথা ব্যথা, দেহে লালচে দানা ওঠা, হাড়ের জয়েন্টগুলো ফুলে ওঠা, মুখ কিংবা জিহ্বা বাঁকা হয়ে যাওয়া, দৃষ্টি শক্তি লোপ পাওয়া, প্রচন্ড দূর্বলতা অনুভব করা এইডসের অন্যতম প্রধান লক্ষন। বিশেষ ভাবে উল্লেখ যোগ্য বিষয় হচ্ছে এ লক্ষন গুলো দেখা দিলেই এইডস হিসাবে অনুমান করা যাবে না বরং কালবিলম্ব না করে এইডস পরীক্ষা করা জুরুরী।

এইডস প্রতিরোধের প্রধান উপায় হচ্ছে অধিক জনসচেতনতা। অবাদ অনিরাপদ যৌন সর্ম্পক থেকে বিরত থাকা,একই সিরিজ দ্বিতীয় বার ব্যবহার না করা, গর্ভবতী মা যদি এইডসে আক্রান্ত থাকলে শিশু ভূমিষ্ট হওয়ার সাথে সাথে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা জুরুরী, রক্ত গ্রহনের প্রয়োজন হলে গ্রহনের পূর্বে অব্যশই রক্ত পরীক্ষা করা জুরুরী, অঙ্গ প্রতিস্থাপনের প্রয়োজন হলে অঙ্গ দানকারীর এইডস পরীক্ষা বাধ্যতামূলক। এছাড়া ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চললে এই রোগের থাবা থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব। প্রত্যেক পিতা-মাতা তার সন্তাদের বিশেষ করে কিশোর-কিশোরীদের প্রতি বিশেষ ভাবে লক্ষ্য রাখা অত্যাবশ্যক ও দায়িত্ব। এছাড়া সন্তাদের সাথে বন্ধুত্বপূর্ন সম্পর্ক বজায় রাখলে তাদের এ রোগের হাত রক্ষা করা যেতে পারে। যারা সেলুনে চুল দাড়ি
সেভ কিংবা অন্যন্য যে কোন প্রয়োজনে নরসুন্দরের কাছে যান তাদের বিশেষ ভাবে লক্ষ্য রাখা জুরুরী যে অন্যের ব্যবহার করা ব্রেল্ড ব্যবহার করা না হয় সেদিকে সর্তক থাকা জরুরী।

এইডস কোন ছোঁয়াচে রোগ নয়। এইডস সর্ম্পকে মানুষের ভূল ধারণা প্রতিরোধে বিভিন্ন কার্যক্রম গ্রহণ করা জরুরী। এইডস রোগীর প্রতি সামাজিক অবহেলা নয় বরং তাদের প্রতি সহমর্মিতা ও সহানুভূতি মাধ্যমে তাদের চিকিৎসা গ্রহনে সহায়তা করা আমাদের সকলের দায়িত্ব ও কর্তব্য পালনের মাধ্যমে এইডস প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করা সম্ভব। শুধুমাএ এইডস দিবসে সচেতনতা নয় বরং সারাবছর সংবাদপএ ও টিভি চ্যানেল গুলোর মাধ্যমে এইডসের ভয়াবহতা সর্ম্পকে বেশি বেশি প্রচার করার মাধমে জনসচেতনতা বৃদ্ধি করা যেতে পারে। এছাড়া সরকার এইডস সর্ম্পকে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে নানাবিধি কার্যক্রম গ্রহণ অপরিহার্য। সরকার রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর কারনে আমাদের এইডসের ঝুকি বৃদ্ধির বিষয়টি অগ্রাধিকার দিয়ে যথাযর্থ ভূমিকা পালন এবং কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করে সমৃদ্ধশালী, সুস্থ বাংলাদেশ গঠনে গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করবে বলে আশা করি। বাংলাদেশ ও বাংলাদেশের জনসাধারনসহ আগামী প্রজ্জম্ম এইডস নামক মরনব্যাধী হতে মুক্ত ও নিরাপদ থাকুক।

Comments

comments