মোংলার বিপনীবিতান ও হাটবাজরে মানুষের উপচে পড়া ভীড়

0
96

মোঃসোহেল, মোংলা প্রতিনিধিঃ ঈদ উৎসবের আমেজে বদলে গেছে মোংলার শহরের চিত্র। খুলে দেওয়া মার্কেটগুলোতে এখন কোলাহলমুখর পরিবেশ। গায়ে গা মিশিয়ে, পায়ে পা লাগিয়ে অবিরাম চলছেন সবাই। স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা না করেই ঈদের কেনাকাটায় ব্যস্ত মানুষ। বিপনী বিতানগুলোতে বাড়ছে ভিড়। এ পরিস্থিতিতে বাড়ছে করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি।

দীর্ঘ বন্ধের পর সরকার সীমিত পরিসরে মার্কেট খোলার অনুমতি দিয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি ও প্রশাসনিক নানা শর্তে দোকানিরা কিছুটা সতর্কতা অবলম্বন করলেও ক্রেতারা বেপরোয়া। ১৫’মে শুক্রবার মোংলা পৌর শহরের শফিউল্লাহ্ সড়ক,শেখ আব্দুল হাই সড়ক,সিঙ্গাপুর মার্কেট, সহ বেশ কয়েকটি বিপনী বিতান মার্কেটগুলোতে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভীড় লক্ষ্য করা গেছে।

ঘা ঘেষেই মানুষ কেনাকাটা করছেন। এদের মধ্যে বেশিরভাগ নারী এবং নারীর পাশাপাশি রয়েছে অনেক শিশু। অন্যান্য বছরের মতো না হলেও মোটামুটি সেজেছে দোকানগুলো।

স্বাস্থ্যবিধি বা সামাজিক দূরত্বের কথা বলা হলেও বাস্তবে তার কোনো প্রতিফলন দেখা যায়নি। এমনকি ৫০% লোকের মুখে নেই মাস্ক। ফলে কারোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

এসব দেখে কারো মনে হওয়ার উপায় নেই যে দেশে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব চলছে। যেন করোনার আতঙ্ক মিলিয়ে গেছে। জমে উঠেছে বেচাকেনা। পোশাক, মোবাইল ফোনের দোকানসহ প্রায় সব দোকানেই ছিল ক্রেতাদের ভিড়। অন্যদিকে অনেকদিন পর মার্কেট খোলায় প্রশাসনও কিছুটা শিথিল আচরণ করছেন।

মার্কেটে ভিড়ের কারণে মোংলা শহরে প্রতিটি সড়কেই যানজট লেগে আছে। যানবাহনের ভিড়ে পথচারিরাও যাতায়াতে দুর্ভোগে পড়ছেন।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, ক্রেতাদের সাবান-পানি দিয়ে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করেছেন এবং ক্রেতাদের ভিড়ে নিরাপদ সামাজিক দূরত্ব রক্ষাকরে বেচাকেনা করতে হিমশিম পেতে হচ্ছে। কিন্তু ক্রেতাদের ভিড়ে ঝুঁকি নিয়েই কেনাবেচা করতে হচ্ছে। ক্রেতাদের অসন্তষ্ট করে ব্যবসা হবেনা। আর ক্রেতারা বলছেন, ঝুঁকি থাকা সত্বেও ছেলেমেয়ে, পরিবার ও স্বজনদের জন্যই ঈদের নতুন কাপড় এবং অন্যান্য কেনাকাটা করছেন তারা।