রাবিতে পর্দা উঠলো সাংবাদিকতা বিভাগের ভার্চুয়াল লুডু টুর্নামেন্টের

0
127

রাবি প্রতিনিধি: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থীরা ভিন্নধর্মী এক ভার্চুয়াল লুডু টু্র্নামেন্টের আয়োজন করেছে। রবিবার দুপুরে দুই গ্রুপের বাছাই পর্বের মাধ্যমে পাঁচ দিনব্যাপী টু্র্নামেন্ট শুরু হয়েছে।

জানা যায়, সামাজিক মাধ্যম ফেসবুক মেসেঞ্জারে বিভাগের বর্তমান ও প্রাক্তন লুডুপ্রেমী শিক্ষার্থীরা মিলে এই খেলাটিতে অংশগ্রহণ করছেন। বাছাইপর্ব সহ মোট ৪০জন খেলোয়াড় নিয়ে প্রথমবারের মত এরকম ভিন্নধর্মী টুর্নামেন্টের আহ্বায়ক ও আয়োজকের দ্বায়িত্ব পালন করছেন বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী সৈয়দ নাফিউল আলম অনিক এবং যুগ্ন আহ্বায়ক হিসেবে আছেন তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আসিফ আহমেদ দিগন্ত। পুরষ্কার এবং দিক নির্দেশনা প্রদানের দ্বায়িত্বে আছেন বিভাগ হতে সদ্য মাস্টার্স শেষ করা শিক্ষার্থী মোল্লাহ মোহাম্মদ সাইদ, নাজ্জার হোসেন, তাসনিম রহমান, আবদুর রহমান আশিক সহ আরো কয়েকজন প্রাক্তন শিক্ষার্থী।

“শুরুটা কেমন ছিলো?” প্রশ্নের উত্তরে সৈয়দ নাফিউল আলম অনিক জানান, করোনা মহামারীর এই সময়ে দীর্ঘদিন যাবৎ বাসায় অবস্থান করায় মানসিক ভাবে সকলেই খুব একাকীত্ব বোধ করছিলো। শুরুতে সবাই খুব ছন্নছাড়া হয়ে মেসেঞ্জারে লুডু খেলছিলো। তাতে হঠাৎ তার মনে হয় সবাইকে এক করে কিছু একটা করা যায় কি না। প্রথমে মেসেঞ্জারে গ্রুপ খোলা হয় লুডু খেলার জন্য। পরবর্তীতে তিনি এবং দিগন্ত মিলে এরকম টু্র্নামেন্টের উদ্যোগ গ্রহণ করেন। সবাই তাদের গৃহীত উদ্যোগের প্রশংসা করছে এজন্য তারা খুব খুশি।

ভার্চুয়াল এই খেলার পরিচালনা বিষয়ে যুগ্ন আহ্বায়ক আসিফ আহমেদ দিগন্ত বলেন, আমি খুবই খুশি এমন একটা আয়োজনে প্রশাসনের দায়িত্ব পালন করতে পেরে। ভার্চুয়ালি এরকম লুডুর আয়োজন করা আসলেই খুব কঠিন কাজ। তবে, আমি এবং আমার আহ্বায়ক মিলে আশা করছি এই প্রতিযোগীতাটি সুন্দর ভাবে পরিচালনা করতে পারবো।”

বিভাগের ২২তম ব্যাচের শিক্ষার্থী রাফি ফাইজ বলেন, অনেক বছর পর বিভাগের কোন আয়োজনের সাথে আবারো যুক্ত হতে পেরে খুব ভালো লাগছে। বাছাই পর্বের খেলার টানটান উত্তেজনা খুব উপভোগ করলাম। শেষপর্যন্ত খেলায় নিজের জয়টা আশা করছি।

খেলার আমেজ প্রসঙ্গে মোল্লাহ মোহাম্মদ সাইদ জানান, করোনা আতংকের মধ্যেও সবার সাথে এমনভাবে লুডু খেলার মাধ্যমে সংযুক্ত থাকতে পেরে তিনি খুবই আনন্দিত বোধ করছেন। করোনার ভয় কিছুটা হলেও ভুলে থাকার পরিস্থিতি তৈরি করেছে এই টুর্নামেন্ট। তাই আয়োজক সহ সকলকে তিনি ধন্যবাদ জানান।

প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী ও বাছাই পর্বের খেলোয়াড় এমিন তিথি বলেন, এটা খুব দারুণ একটা আয়োজন। এই হোম কোয়ারেন্টাইনে আলাদা অবস্থানে থেকেও বিভাগের লোকজন মিলে বাসায় বসে একসাথে আনন্দ করছে। বাছাই পর্বে অংশগ্রহণ করেছিলাম, যদিও হেরে গেছি তবুও ভালো লাগা কাজ করছে।

ভার্চুয়াল জাকজমকপূর্ণ সারাদিনব্যাপি এই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সন্ধ্যার পর ভার্চুয়াল মিটিংয়ে উপস্থিত ছিলেন সদ্য মাস্টার্স শেষ করা রাহিনুল ইসলাম রিংকু, মর্তুজা নূর এবং মাস্টার্সের আরাফাত রহমান সহ আরো অনেকেই।