বিকাল ৪:৫৫ শুক্রবার ৬ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং

হরিপুরে হঠ্যাৎ লবণের মূল্যবৃদ্ধি; ব্যবসায়ীদের কয়েক বস্তা পেঁয়াজ হরিলুট

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : November 19, 2019 , 10:24 pm
ক্যাটাগরি : রংপুর
পোস্টটি শেয়ার করুন

জে. ইতি, হরিপুর (ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধি: ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুরে গতমঙ্গলবার সকাল থেকে লবণের দাম অস্বাভাবিক ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। বাজারগুলোতে চলছে লবণ কেনার প্রতিযোগিতা। কেউ ২ কেজি, কেউ ৩ কেজি, কেউ ৫ কেজি, কেউবা ১০ থেকে ১৫ কেজি লবণ কিনে বাড়িতে নিয়ে যাচ্ছেন। অনেকে মাঠের কাজকর্ম ফেলে বাজারে আসছে লবণ ক্রয় করতে। লবণের মূল্য বৃদ্ধির গুজবে মঙ্গলবার সকাল থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত লবণ বিক্রির দোকানগুলোতে জনসাধারণের ছিল উপচে পড়া ভিড়।

বাজার নিয়ন্ত্রণে উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ বাহিনী যৌথভাবে হরিপুর উপজেলার বিভিন্ন বাজারের ঝটিকা অভিযান চালিয়ে বাজার নিয়ন্ত্রণ নিয়ে আসে।

মঙ্গলবার (১৯ নভেম্বর) সকালে হঠাৎ লবণের দাম বাড়বে এমন গুজব ছড়িয়ে পড়ে পুরো হরিপুর এলাকার বিভিন্ন বাজারে। আর এগুজবের সূত্র ধরেই মূলত গ্রামের মানুষগুলো ছুটতে থাকে লবণ কেনার জন্য হাট-বাজারের লবণের দোকানগুলোতে। এই সুযোগে ব্যবসায়ীরাও পেঁয়াজের মত লবণের দাম বৃদ্ধি করে। ১৫ (খোলা) থেকে ৩৫ (প্যাকেটজাত) টাকার টাকার লবণ ঘণ্টার ব্যবধানে দাম বেড়ে দাঁড়ায় ৫০ থেকে ৮০ টাকা কেজিতে।

অপরদিকে যাদুরানী বাজার থেকে মঙ্গলবার বেলা ১টার সময় কয়েক বস্তা পেঁয়াজ হরিলুট হওযার ঘটনা ঘটে বলে ব্যবসায়ীদের অভিযোগ উঠেছে।

হরিপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল কায়ুউম পুষ্প বলেন, লবণ বাজরে উপজেলা প্রশাসনের লোকজন নিয়েন্ত্রণ করার সময় পেঁয়াজ বাজারে ভিড় জমায়, কিছু অসাধু ব্যবসায়ী পেঁয়াজের মূল্য বেশি রাখার কারণে উপজেলা প্রশাসনের কাছে অভিযোগ জানালে প্রশাসনের লোকজন পেঁয়াজ বাজারে আসার পর মানুষের প্রচন্ড ভিড় হয় এবং ভয়ে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী দোকানে পেঁয়াজ রেখে পালিয়ে চাই। এসময় পেঁয়াজ বাজার থেকে কয়েক বস্তা পেঁয়াজ হারিয়ে গেছে বলে জানা গেছে।

ভাতুরিয়া ইউনিয়ন বাসি ফেরদৌস, লতিফুর রহমান জানান, গুজবকে কাজে লাগিয়ে মঙ্গলবার সকাল থেকেই লবণ ব্যবসায়ীরা দাম বৃদ্ধি শুরু করে। এলাকার সাধারণ মানুষদের ৩ কেজি, ৫ কেজি এমনকি ১০ কেজি পর্যন্ত লবণ কিনতে দেখা গেছে। অনেক অসাধু ব্যবসায়ী লবণ মজুদের অজুহাত দেখিয়ে চড়া মূল্যে বিক্রিও করেছেন।

লবণ ব্যবসায়ী জহির, হায়দার, মাইনুল, হাবিব, সুলতান, খালেক মহরীসহ আরো অনেকে জানান, মঙ্গলবার সকাল থেকে লবণের চাহিদা ব্যাপক। গত ৬ মাসেও এমন লবণ বিক্রি হয়নি। আমি প্যাকেটের মূল্য অনুযায়ী গ্রাহকদের কাছ থেকে লবণের দাম নিচ্ছি। বাকিদের বিষয়ে আমার জানা নেই। তবে লবণ সঙ্কট হবে এমন একটা গুজব ছড়ানোর ফলে এই প্রভাব পড়েছে।

হরিপুর থানার ওসি আমিরুজ্জামান বলেন, বিভিন্ন মানুষ সকাল থেকে মুঠোফোনে অনেক অভিযোগ করছেন লবণের বিষয়ে। এটি একটি নিছক গুজব। গুজবে কান না দিয়ে ন্যায্যমূল্যে লবণ কেনার পাশাপাশি কোনো ব্যবসায়ী লবণের অতিরিক্ত মূল্য দাবি করলে তার কাছ থেকে রশিদ নিয়ে লবণ কেনার জন্য বলেন। সেই রশিদ থানায় দেখালে ওই লবণ ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

হরিপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুল করিম বলেন, বিভিন্ন মাধ্যমে লবণের বাজার বৃদ্ধি কথা জানতে পারার সঙ্গে সঙ্গে উপজেলার বিভিন্ন বাজারে পুলিশ পাঠানো হয়েছে এবং ইউপি চেয়ারম্যানদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বাজার নিয়ন্ত্রণে এবং জনগণকে লবণের মূল্য বৃদ্ধির গুজবে কান না দিতে মাইকিং করতে বলা হয়েছে। বর্তমানে লবণের বাজার নিয়ন্ত্রণ রয়েছে। আমি নিজেই বাজারের গিয়ে এই গুজবে কান না দেওয়ার জন্য মাইকিং করেছি। কেউ বাজার মুল্য চেয়ে বেশি নিলেই তাঁর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে এবং যাদুরাণী বাজারে লবণ বাজার নিয়েন্ত্রণ করার সময় কয়েক বস্তা পেঁয়াজ পাওয়া যাইনি বলে মুঠোফুনে জানা গেছে। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।বাজারে পেঁয়াজের মতো লবণের দাম বেড়েছে এমন গুজব ছড়ালে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এদিকে ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক ড. কামরুজ্জামান সেলিম সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফেসবুকের মাধ্যমে সতর্ক করে জানিয়েছেন, লবণসহ সকল নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য সরবরাহ স্বাভাবিক আছে। কেউ গুজব ছড়ালে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Comments

comments