সকাল ১০:০৪ মঙ্গলবার ১২ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

নেত্রকোনায় আওয়ামী যুবলীগের ৪৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত | নেত্রকোনায় জাতীয় পার্টি নেতাদের ঘরে অবরুদ্ধ করে রাখার হুঁশিয়ারি | রামপালে ঘূর্নিঝড় বুলবুল এর প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্থ ৬৩৬ টি ঘরবাড়ি | নেত্রকোনায় হুমায়ুন আহমেদের ৭১তম জন্মবার্ষিকী পালিত | রাবিতে ইসলামের ইতিহাস বিভাগের মাস্টার্সের বিদায় সংবর্ধনা | ‘সুলতান মনসুর একজন বেঈমান’ | আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া প্রধানতঃ শুষ্ক থাকতে পারে | অসুস্থ মতিউর রহমানের পাশে তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান | ছোটোখাটো নেতা হলেই গাড়ি-বাড়ির অভাব হয় না : রাষ্ট্রপতি | কুষ্টিয়ায় যুবলীগের ৪৭তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী অনুষ্ঠানে জননেতা আতাউর রহমান আতা |

বিএনপির আরও ‘হাইপ্রোফাইল’ নেতাদের পদত্যাগের গুঞ্জন!

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : নভেম্বর ৮, ২০১৯ , ১:৩৫ পূর্বাহ্ণ
ক্যাটাগরি : রাজনীতি
পোস্টটি শেয়ার করুন

মোরশেদ খানের পর পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান। নিজের হাতে লেখা পদত্যাগপত্র দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের কাছে দিয়েছেন সাবেক এই সেনাপ্রধান। তবে সেই চিঠি মহাসচিব এখনো প্রকাশ করেননি বলে জানা গেছে।

শুধু মোরশেদ খান, মাহবুবুর রহমান নয় আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে বিগত ১০ বছরে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শমসের মবিন চৌধুরী, মোসাদ্দেক হোসেন ফালু, এমএ হাসেমের মতো আলোচিত নেতারা দল ছেড়েছেন।

গুঞ্জন রয়েছে দল থেকে পদত্যাগ করতে পারেন, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন, মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ, মেজর (অব.) শাহজাহান ওমর, আলতাফ হোসেন চৌধুরী, আবদুল্লাহ আল নোমানসহ একাধিক নেতা।তবে যাদের নিয়ে গুঞ্জন উঠেছে তারা সবাই বিষয়টি উড়িয়ে দিয়েছেন। এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপি মহাসচিব কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

একাদশ সংসদ নির্বাচনের পরে বিএনপি থেকে পদত্যাগ করেন কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সাবেক সংসদ সদস্য আলী আসগর লবি। গত ২৪ জানুয়ারি তিনি মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের কাছে অব্যাহতিপত্র জমা দেন।এরপর গত ১৬ মার্চ দল থেকে পদত্যাগ করেন বিএনপির কেন্দ্রীয় অর্থ বিষয়ক সহ-সম্পাদক মোহাম্মদ শাহাব উদ্দিন। ৩ এপ্রিল বিএনপি ছাড়েন নির্বাহী কমিটির সদস্য মোবাশ্বের আলম ভূঁইয়া।

সেনাবাহিনী থেকে অবসর গ্রহণের পর বিএনপির রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হন মাহবুবুর রহমান। ২০০১ সালে অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির মনোনয়নে দিনাজপুর-২ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত তিনি বাংলাদেশের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়-সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ২০০৮ সালে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে একই আসন থেকে নির্বাচন করে আওয়ামী লীগ প্রার্থী খালিদ মাহমুদ চৌধুরীর কাছে পরাজিত হন।

পদত্যাগ প্রসঙ্গে লে. জেনারেল মাহবুবুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমি রাজনীতি করি না। রাজনীতি থেকে সরে এসেছি। দল থেকে আমি রিজাইন করেছি। দলের স্থায়ী কমিটির সদস্যও প্রত্যাহার করে নিয়েছি। দেড় মাস থেকে দুই মাস আগে আমি আর রাজনীতিতে নেই।’

সূত্র জানায়, আরও কয়েকজন সিনিয়র নেতা শিগগিরিই বিএনপি ছাড়ার ঘোষণা দিতে যাচ্ছেন। এর মধ্যে দেশের প্রবীণ রাজনীতিক এরশাদ সরকারের উপ প্রধানমন্ত্রী বর্তমানে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন, মেজর (অব.) হাফিজউদ্দিন আহমেদ বীর বিক্রম, ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর বীর উত্তম ও এয়ারভাইস মার্শাল (অব.) আলতাফ হোসেন চৌধুরীর নাম শোনা যাচ্ছে।এসব নেতা ছাড়াও বিএনপির আরেক সিনিয়র নেতা ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমানের পক্ষ থেকেও বিএনপি ছাড়ার ঘোষণা আসতে পারে।

Comments

comments