সকাল ৯:৩৫ মঙ্গলবার ১২ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

নেত্রকোনায় আওয়ামী যুবলীগের ৪৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত | নেত্রকোনায় জাতীয় পার্টি নেতাদের ঘরে অবরুদ্ধ করে রাখার হুঁশিয়ারি | রামপালে ঘূর্নিঝড় বুলবুল এর প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্থ ৬৩৬ টি ঘরবাড়ি | নেত্রকোনায় হুমায়ুন আহমেদের ৭১তম জন্মবার্ষিকী পালিত | রাবিতে ইসলামের ইতিহাস বিভাগের মাস্টার্সের বিদায় সংবর্ধনা | ‘সুলতান মনসুর একজন বেঈমান’ | আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া প্রধানতঃ শুষ্ক থাকতে পারে | অসুস্থ মতিউর রহমানের পাশে তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান | ছোটোখাটো নেতা হলেই গাড়ি-বাড়ির অভাব হয় না : রাষ্ট্রপতি | কুষ্টিয়ায় যুবলীগের ৪৭তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী অনুষ্ঠানে জননেতা আতাউর রহমান আতা |

এপিআই খাতের উন্নয়নে গবেষণা বাড়ানোর আহ্বান

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : নভেম্বর ২, ২০১৯ , ৯:৪৫ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : অর্থ ও বাণিজ্য
পোস্টটি শেয়ার করুন

ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) আয়োজিত ‘বাংলাদেশে এপিআই খাতের সম্ভাবনা ও চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক সেমিনার ০২ নভেম্বর, ২০১৯ তারিখে ডিসিসিআই অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়। সেমিনারে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিডা)’র নির্বাহী চেয়ারম্যান মোঃ সিরাজুল ইসলাম প্রধান অতিথি এবং ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের পরিচালক মোঃ রুহুল আমিন বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

স্বাগত বক্তব্যে ঢাকা চেম্বারের সভাপতি ওসামা তাসীর বলেন,কাঁচামাল আমদানির উপর বেশিমাত্রায় নির্ভরতা আমাদের ঔষধ শিল্পের অন্যতম একটি প্রতিবন্ধকতা, অপরদিকে দেশীয় এপিআই উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানসমূহমোট আমদানিকৃত এপিআই’র প্রায় ৫% উৎপাদন করতে সক্ষম এবং এটি আমদানিকৃত এপিআই’র চেয়ে তুলনামূলকভাবে স্বস্তা। তিনি বলেন, স্থানীয়ভাবে এপিআই’র উৎপাদন আরো বাড়ানোর জন্য দক্ষ মানবসম্পদ ও প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়ানোর কোন বিকল্প নেই। ঢাকা চেম্বারের সভাপতি উল্লেখ করেন, এখাতে গবেষণা পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠানসমূহরে পাশাপাশি বিশ^বিদ্যালয়গুলোতে পাঠ্যক্রম আধুনিকায়নে সরকার ও বেসরকারীখাতকে একযোগে কাজ করতে হবে। ডিসিসিআই সভাপতি বলেন, ২০৩৩ সালের পরবর্তীতে চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় একটি টেকসই ফার্মাসিউটিক্যাল খাতের বিকাশে আমাদের অবশ্যই এপিআই খাতে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করতে হবে। তিনি বলেন, এপিআই উৎপাদনে আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে স্বনামধ্য প্রতিষ্ঠানসমূহের সাথে স্থানীয় উদোক্তারা যৌথ বিনিয়োগে এগিয়ে আসতে হবে, যা এখাতে দক্ষ মানবসম্পদ তৈরি ও নতুন প্রযুক্তি ব্যবহারের সুযোগ করে দিতে সক্ষম হবে।

বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিডা)’র নির্বাহী চেয়ারম্যান মোঃ সিরাজুল ইসলাম বলেন,বাংলাদেশের ফার্মাসিউটিক্যাল শিল্প আমাদের মোট জনগোষ্ঠীর প্রায় ৯৮% চাহিদা মেটাতে সক্ষম, যা অত্যন্ত আশাব্যঞ্জক। তিনি বলেন, বতর্মানে আমরা প্রায় ১২০টি দেশে ১৩৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের ঔষধ রপ্তানি করছি এবং এটি আমাদের ঔষধ খাতের সক্ষমতা ও আন্তর্জাতিক বাজারে আমাদের দেশে উৎপাদিত ঔষধের গ্রহণযোগ্যতার বহিঃপ্রকাশ। বিডা’র চেয়ারম্যান বলেন, ২০২৭ সালে বাংলাদেশের মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে ফলে আমাদেরট্রিপস (ট্রেড রিলেটেড আসপেক্ট অব ইনটেলেকচুয়্যাল প্রপার্টি রাইটস) চুক্তির আওতায় বিদ্যমান সুবিধা থেকে বঞ্চিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে এবং এজন্য এখনই যথাযথ পরিকল্পনা গ্রহণ করে, তা বস্তবায়নে কাজ করতে হবে। তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, যদি সরকার ও বেসরকারীখাত যৌথভাবে কাজ করতে পারে, তাহলে এ লক্ষ্য বস্তবায়ন অসম্ভব নয়। তিনি ঔষধ খাত বিশেষকরে সম্ভাবনাময় এপিআই খাতের উন্নয়নে গবেষণা কার্যক্রম গতিশীল করার আহ্বান জানান এবং এক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়সমূহ ও বেসরকারীখাতের মধ্যকার সহযোগিতা আরো বৃদ্ধির উপর জোরারোপ করেন। বিডা’র চেয়ারম্যান বলেন, সারা পৃথিবীতে বিশ্ববিদ্যালয়সমূহের গবেষণা পরিচালনায় বেসরকারীখাত উল্লেখযোগ্য অবদান রাখছে এবং এলক্ষ্যে তিনি বাংলাদেশের বেসরকারীখাতকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। তিনি এপিআই খাতের বিকাশের প্রয়োজনে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ হতে সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন।

ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের পরিচালক মোঃ রুহুল আমিন বলেন, মাননীয় প্রধামনন্ত্রী ২০১৯ সালকে ‘এপিআই ও ফার্মাসিউটিক্যাল শিল্পবছর’ হিসেবে ঘোষণা করেছে এবং এক্ষেত্রে আমাদের পিছিয়ে থাকার কোন সুযোগ নেই। তিনি ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের পক্ষ হতে এ খাতের বিকাশে নীতি সহায়তা সহ সকল ধরনের সহযোগিতার আশ^াস প্রদান করেন। তিনি উদ্যোক্তাদের এপিআইতে আরো বেশি হারে বিনিয়োগের পাশাপাশি গবেষণা কার্যক্রম বাড়ানোর তাগিদ দেন।

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন মওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক ড. মোঃ রবিউল ইসলাম। মূল প্রবন্ধে তিনি বলেন, উন্নয়নশীল দেশ হিসেবেও বাংলাদেশের প্যাটেন্ট এপিআই উৎপাদনে কোন আইনী প্রতিবন্ধকতা নেই। তিনি জানান,আভ্যন্তরীনভাবে আমাদের ২০,৫১২ কোটি টাকারঔষধের বাজার রয়েছে, যেটি প্রতিবছর প্রায় ১০% হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং এধরনের একটি সম্ভাবনাময় খাতকে এগিয়ে নিতে হলে সরকার ও বেসরকারীখাতকে একযোগে কাজ করতে হবে।

নির্ধারিত আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেনডিসিসিআই আহ্বায়ক ও এক্টিভ ফাইন কেমিক্যালস্ লিমিটেড-এর চেয়ারম্যান মোঃ জিয়া উদ্দিন, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের ডব্লিউটিও সেল-এর পরিচালক মোঃ হাফিজুর রহমান, এক্মি ল্যাবরেটরীজ লিমিটেড-এর পরিচালক (এপিআই প্রজেক্ট)ড. শেখ মাকসুদুর রহমান এবং ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের প্রাক্তন মহাপরিচালক মেজর জেনারেল ড. জাহাঙ্গীর হোসেন মল্লিক (অবঃ)। আলোচকবৃন্দ একটি টেকসই এপিআই খাতের বিকাশে ক্রমাগত গবেষণা পরিচালনা, স্বল্প সুদে দীর্ঘমেয়াদী ঋণ সুবিধা প্রদান, শুল্কমুক্ত সুবিধা প্রদান,ঔষধ নীতিমালার দ্রুত বাস্তাবয়নের উপর আলোকপাত করেন। তাঁরা বলেন, এলডিসিভুক্ত দেশসমূহের মধ্যে ঔষধ উৎপাদন ও রপ্তানিতে বাংলাদেশ প্রথম স্থানে রয়েছে এবং এখাতের দ্রুত উন্নয়নে আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহারের কোন বিকল্প নেই। আলোচকবৃন্দ ঔষধ খাতে বিদেশি বিনিয়োগের পাশাপাশি বৈদেশিক এপিআই প্রতিষ্ঠানসমূহের সাথে যৌথ বিনিয়োগে দেশীয় উদ্যোক্তাদেরএগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

ডিসিসিআই ঊর্ধ্বতন সহ-সভাপতি ওয়াকার আহমেদ চৌধুরী ধন্যবাদ সমাপনী বক্তব্য জ্ঞাপন করেন।

ডিসিসিআই সহ-সভাপতি ইমরান আহমেদ, পরিচালক আশরাফ আহমেদ, আলহাজ্ব দ্বীন মোহাম্মদ, এনামুল হক পাটোয়ারী, খন্দ. রাশেদুল আহসান, ইঞ্জিঃ মোঃ আল আমিন, নূহের লতিফ খান, মোহাম্মদ বাশীর উদ্দিন এবং শামস মাহমুদ প্রমুখ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

Comments

comments