সকাল ৬:৫৮ শনিবার ১৬ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

তুরাগ থানা আওয়ামী যুবলীগের দিকপাল ও ইতিহাসের আরেক নাম বাবু নিত্য চন্দ্র ঘোষ

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : অক্টোবর ৩০, ২০১৯ , ২:০৪ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : বিশেষ প্রতিবেদন
পোস্টটি শেয়ার করুন

এস. এম. মনির হোসেন জীবন: ঢাকা মহানগর উত্তর তুরাগ থানা আওয়ামী যুবলীগের আহবায়ক বাবু নিত্য চন্দ্র ঘোষ বলেছেন, যারা দেশ ও নিজের দলের জন্য রাজনীতি করে তাদের জনগনের কাছে যাওয়ার অধিকার আছে। তৃণমূল পর্যায়ের দলের পরিক্ষিত নেতাদেরকে অবশ্যই আমাদেরকে মূল্যায়ন করা উচিত। এর কোন বিকল্প নেই।

বাবু নিত্য চন্দ্র ঘোষ এর (তার) রাজনৈতিক কর্মকান্ড, দিকপাল, দুদর্শিতা, বিচক্ষণ স্বচছ রাজনীতিক কর্মী আর সঠিক নেতৃত্বেও কারণে তুরাগ থানা যুবলীগ আজ তিলে তিলে সুসংগঠিত হয়েছে। সে কারণে আজ তুরাগ থানা আওয়ামী যুবলীগের দিকপাল ও ইতিহাসের আরেক নাম বাবু নিত্য চন্দ্র ঘোষ। তার নেতৃত্বের ফলে আজ দলটি অনেক দূর পর্যন্ত এগিয়ে গেছে।

আজ বুধবার সকালে রাজধানী তুরাগের ডিয়াবাড়িতে আমাদের বিশেষ প্রতিনিধি এস. এম. মনির হোসেন জীবনের সাথে এক বিশেষ সাক্ষাতকারে তুরাগ থানা আওয়ামী যুবলীগের আহবায়ক বাবু নিত্য চন্দ্র ঘোষ এসব কথা বলেন।

তুরাগ থানা আওয়ামী যুবলীগের আহবায়ক বাবু নিত্য চন্দ্র ঘোষ বলেন, রাজধানীর তুরাগ থানা ও ডিএনসিসি ৫৪ নম্বর ওয়ার্ড ধউর গ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা। তার পিতার নাম মৃত হীরা লাল ঘোষ । জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে মনেপ্রাণে ভালবেসে এবং তার আদর্শকে বুকে ধারণ করে আজো আওয়ামীলীগ রাজনীতিতে বিশ্বাসী তিনি। তার রাজনীতিতে আসার পিছনে হরিরামপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও বর্তমানে তুরাগ থানার আওয়ামী লীগের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্বা মো: আবুল হাসিম চেয়ারম্যানের হাত ধরে জাতীয় পার্টি শাসনামল থেকে আমার রাজনীতিতে হাতে ঘড়ি হয়।

রাজনীতিতে কিভাবে আগমন ঘটে এমন প্রশ্নের জবাবে নিত্য চন্দ্র ঘোষ বলেন, ১৯৯৩ সালে আমি হরিরামপুর ইউনিয়ন পরিষদ এর সাবেক ৩ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রলীগের প্রথম প্রচার সম্পাদক নির্বাচিত হই। এরপর আমাকে দুই বার সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়। ২০০৬ সালে আমাকে হরিরামপুর ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগের সহসভাপতি করা হয়। এরপর ২০১২ সালে আমাকে দল মূল্যায়ন করে তুরাগ থানা যুবলীগের আহবায়ক করা হয়। এভাবে আমার রাজনীতিতে পথচলা শুরু হয়।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, দলীয় কর্মকান্ড, নিজের রাজনৈতিক দূরদর্শিতা ও দলের পারফর্ম দিয়ে একজন দলের কর্মী কিংবা নেতাকে মনে রাখতে হবে তার আগামী দিনের পথচলা। নিজের যোগ্যতা আর রাজনৈতিক অভিঞ্জতার মধ্য দিয়ে একজন সৎ ও ত্যাগী নেতা তৈরী করা।

তিনি বলেন, দলের একজন স্বচছ রাজনীতিক কর্মী হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করার ক্ষেত্রে আসন্ন ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী যুবলীগের সম্মেলনে দলের শীর্ষ পর্যায়ের নেতৃবৃন্দরা সংগঠনের তৃণমূলের ও ত্যাগী নেতাদেরকে মূল্যায়ন করবেন বলে আশা আশাবাদী।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রাজনীতি করতে হলে তৃণমূল পর্যায়ে প্রতিযোগিতা থাকবে এটাই স্বাভাবিক। আমি দলের হাইকমান্ডের নির্দেশ মেনেই স্বচছ ভাবে রাজনীতি করি। আর রাজনীতিকে রাজনীতি ভাবেই মোকাবেলা করা উচিৎ।

তিনি বলেন, আমি রাজনীতি করি মানুষের কল্যানের জন্য। জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের গড়া সোনার বাংলাদেশ ও দেশের আপামর জনগনকেই নিয়েই আমার রাজনীতি। দেশের মানুষের কল্যানের জন্যই আমি নিরলস ভাবে কাজ করে যাচিছ। রাজনীতি করার ক্ষেত্রে যত ধরনের বাঁধা আসুন না কেন, সকল বাঁধা অতিক্রম করে ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্বে রাজনৈতিক মাঠে এসব কিছু মোকাবেলা করবো।

আমার পরিবার হল রাজনৈতিদক দলের পরিবার উল্লেখ করে বাবু নিত্য চন্দ্র ঘোষ বলেন, আমি ও আমার পরিবারের সদস্যরা বিএনপি সরকারের শাসনামলে বিভিন্ন সময় মিথ্যা মামলা সহ অহেতুক ভাবে হয়রানীর শিকার হই। আমার পরিবার হল নির্যাতিত পরিবার।

তিনি বলেন, তখন পুলিশের ভয়ে বাড়ি থেকে পালিয়ে ছিলাম। রাজনীতি করায় আমার বিরুদ্বে গাড়ি ভাংচুরের মামলায় আসামী করা হয়। আজকে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ক্ষতায় আসলে ও নব্য ও হাইব্রিড নেতারা তুরাগে পদে পদে সয়লাব হয়ে গেছে। আওয়ামীলীগের দু:সময়ে কাউকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। সেই দিন কোথায় ছিলেন এই সব হাইব্রিডরা।

এক প্রশ্নের জবাবে নিত্য চন্দ্র ঘোষ বলেন, যুবলীগের নাম ভাঙ্গিয়ে যদি কেউ অপরাধ মূলক কর্মকান্ড-যেমন চাঁদাবাজী, সন্ত্রাসী, মাদক ব্যবসা, দখলবাজী সহ অপরাধমূলক কর্মকান্ডের সাথে জড়িত থাকে, যদি তার সুনিদিষ্ট তথ্য প্রমান পাওয়া যায়, তাহলে দল তাকে ছাড় দিবেনা। তার ভার দল গ্রহন করবেনা। যিনি অপরাধ করবেন শুধু তাকেই নিতে হবে।

নিত্য চন্দ্র ঘোষ বলেন, ২০০১ সালে বিএনপি শাসনামলে আমার ধউর গ্রামে নিজ বাসার পাশে সাবেক ৩ নম্বর ওয়ার্ড ইট দিয়ে ছোট একটি অফিস ঘর ছিল। সেটি রাতের অন্ধকারে ভাংচুর করা হয়। এছাড়া ঢাকা-১১ আসনের বিএনপি’র সংসদ সদস্য এসএ খালেকের সময় পুলিশী ভয়ে নদীর পাড়ে ঘুমিয়ে অনেক রাত কাটিয়েছি।

তুরাগ থানা আওয়ামী লীগের ঘাঁটি উল্লেখ করে তিনি বলেন, তুরাগ থানা আওয়ামী লীগকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে হরিরামপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও বর্তমানে তুরাগ থানার আওয়ামী লীগের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্বা মো: আবুল হাসিম চেয়ারম্যানের অবদান সব চেয়ে বেশি। স্বাধীনতার উত্তরসরি হিসেবে তার কথা এলাকাবাসি সারাজীবন সবাই মনে রাখবে। তুরাগ থানা ও হরিরামপুর ইউনিয়নকে আওয়ামী লীগের ঘাঁটিকে পরিণত করতে হাসিম চেয়ারম্যানের কৃতিত্বকে মানুষ মনে রাখবে। দলের জন্য একজন বর্ষিয়ান নেতা হিসেবে তার কোন বিকল্প নেই।

নিত্য চন্দ্র ঘোষ বলেন, একটি স্বার্থান্বেষী ও কুচক্রিমহল তুরাগ থানা যুবলীগকে ধবংস করার জন্য গভীর ভাবে বিভিন্ন ধরনের চক্রান্ত ও ঘড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। দলের কতিপয় ত্যাগী নেতার বিরুদ্বে বিভিন্ন ধরনের মিথ্যা অপপ্রচার চালাচেছ। আমি তুরাগ থানা যুবলীগের আহবায়ক হিসেবে তাদেরকে আহবান জানাচিছ- তারা যেন সব কিছু জেনে শুনে যাচাই-বাচাই করে সঠিক তথ্যটি প্রকাশ করেন। যাতে কোন রাজনৈতিক নেতার মানহানী না হয়, সে দিকে খেয়াল রাখেন।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে বাবু নিত্য চন্দ্র ঘোষ বলেন, ঢাকা-১৮ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য ও সাবেকমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন (এমপি) একজন স্বচছ রাজনীতিবিদ। আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়ামের সদস্য সাহারা খাতুন (এমপি) একজন সারা দনের মানুষ। আগামী দিনে তার হাতকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে তুরাগ থানা আওয়ামী যুবলীগ বদ্বপরিকর। দেশ উন্নয়নে সাহারা খাতুন এমপি’র কোন বিকল্প নেই।

এ বিষয়ে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি) ৫৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও তুরাগ থানা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি বীরমুক্তিযোদ্বা আলহাজ মো: নাছির উদ্দিন এই প্রতিবেদককে বলেন, কাঁদা ছোড়াছুড়ির রাজনীতি এখন থেকে সবাইকে পরিহার করতে হবে। নিজেকে দলের নেতা হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে চাইলে ভালো কাজের সামনে প্রমান করতে হবে।

বীরমুক্তিযোদ্বা আলহাজ মো: নাছির উদ্দিন বলেন, তুরাগ থানা আওয়ামী যুবলীগ একটি সুসংগঠিত দল। দলের পরীক্ষিত, ত্যাগী তৃণমূল পর্যায়ের নেতারা দলের জন্য নিরলস ভাবে কাজ করছেন। দলকে শক্তিশালী করার লক্ষে দিন রাত পরিশ্রম করে যাচেছন। আগামী দিনের দলের পরিক্ষিত নেতাদেরকে অবশ্যই দল মূল্যায়ন করবে।

তিনি আরও বলেন, যারা রাজনীতি করে তাদের জনগনের কাছে যাওয়ার অধিকার আছে। ধৈর্য্য, সাহস, বুদ্ধিমত্বা, ভাল ও সুন্দর কর্ম ছাড়া কেউ রাজনীনিতে এগিয়ে যেতে পারেনা।

নিজেকে পারিবারিক জীবনে সুখি ও ব্যবসায়ীক পরিবার দাবী করে তিনি বলেন, আমার পরিবার হল ঘোষ বংশের মধ্যে একটি সুখি পরিবার। বাবু নিত্য চন্দ্র ঘোষ ১৯৬৮ সালে রাজধানী তুরাগের ধউর গ্রামে ঘোষ বংশে জন্ম গ্রহন করেন। তুরাগের ধউর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে ৫ম শ্রেনী পাস করে অলল্পিয়া উচচ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাস করেন। তার পিতার নাম মৃত হীরা লাল ঘোষ । এক পুত্র ও এক কণ্যা সন্তানের জনক তিনি। তার মেয়ের নাম সংগীতা ঘোষ। (বিবাহিতা) ও ছেলের নাম সৌরভ ঘোষ। সৌরভ বিবিএ শিক্ষার্থী। সংগীতা ও বিবিএ পাস। বাবু নিত্য চন্দ্র ঘোষ এর স্ত্রীর নাম মুক্তা ঘোষ। ৪ ভাই ২ বোনের মধ্যে নিত্য চন্দ্র ঘোষ চতুর্থ। বর্তমানে পরিবারের সদস্যদেরকে নিয়ে তিনি ধউর ৬৬ নম্বর মেইন রোডে নিজ বাড়িতে বসবাস করে আসছে।

Comments

comments