দুপুর ২:৪৭ মঙ্গলবার ১৯শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং

উলিপুরে কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে লাপাত্তা প্রতারক চক্র দরিদ্র মহিলাদের সেলাই মেশিন দেয়ার প্রলোভন

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : অক্টোবর ২৯, ২০১৯ , ৪:৫৫ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : অপরাধ ও দুর্নীতি
পোস্টটি শেয়ার করুন

হাফিজুর রহমান সেলিম, উলিপুর (কুড়িগ্রাম) উপজেলা সংবাদদাতা: কুড়িগ্রামের উলিপুরে কর্মহীন মহিলাদের সেলাই মেশিন দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে প্রায় কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে লাপাত্তা হয়েছে একটি প্রতারক চক্র। গত সাতদিন ধরে ওই প্রতারক চক্রটি উধাও হওয়ায় বিপাকে পড়েন অসহায় মহিলারা। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী মহিলাগণ বিভিন্ন দপ্তরে সোমবার (২৮ অক্টোবর) বিকালে অভিযোগ করেছেন।

অভিযোগ ও ভুক্তভোগীদের সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার দূর্গাপুর ইউনিয়নের দূর্গাপুর বাজারে জনৈক আলহাজ্ব সৈয়দ আলীর বাড়ি ভাড়া নিয়ে ৫মাস পূর্বে প্রতারক চক্রটি করতোয়া কারিগরী প্রশিক্ষন প্রকল্প নামে কর্মহীন মহিলাদের দর্জি প্রশিক্ষনের প্রকল্প খুলে বসেন। তারা (তাদের প্যাডে করতোয়া কারিগরী প্রশিক্ষন প্রকল্প, আইএইচ.আর.জে.এস, প্রধান কার্যালয় ৫০/ডি ইনার সার্কুলার ভিআইপি রোড, নয়া পল্টন ৫ম তলা, ঢাকা-১০০০, রেজিঃ নং ১০২৭২-২০০৯ ব্যবহার করেন) প্রতারনার মাধ্যমে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের ৬৫জন মহিলা কর্মীকে সহকারী প্রশিক্ষক হিসাবে নিয়োগ করেন এবং তাদেরকে গত দুই মাসে ৩ থেকে ৫ হাজার টাকা করে বেতন প্রদান করেন। সহকারী প্রশিক্ষকদের মাধ্যমে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে গ্রুপ গড়ে তোলেন। একজন সহকারী প্রশিক্ষক ৩০ থেকে ৩৫ জনের দশ-বারোটি করে গ্রুপ তৈরি করে। তাদেরকে দর্জি প্রশিক্ষনের জন্য কাঁচি ও ফিতা সরবরাহ করা হয়। এরপর সেলাই মেশিন দেয়ার নাম করে গ্রুপের সদস্যদের কাছে ১৩শত ৩০ টাকা করে নগদ ও বিকাশের মাধ্যমে হাতিয়ে নেন প্রতারক চক্রটি। এভাবে প্রায় সাত হাজার জন মহিলার কাছ থেকে ৯৩ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে সটকে পড়ে প্রতারক চক্রটি।

ভূক্তভোগী হাতিয়া ইউনিয়নের নতুন অনন্তপুর গ্রামের বাসনা আক্তারের কাছে ২ লাখ ৬৭ হাজার, মনি আক্তাররে কাছ থেকে ৩ লাখ, দূর্গাপুর ইউনিয়নের হামিদা পারভিনের কাছ থেকে ৩ লাখ, রুজিনা বেগমের কাছে ৫০ হাজার, ঈশিতা আখতারের কাছে ৮৫ হাজার, মনিরা আক্তারের কাছে ৭৬ হাজার, সুমি বেগমের কাছে ১ লাখ ৫০ হাজার, বুড়াবুড়ি ইউনিয়নের শিরিনা বেগমের কাছে ১ লাখ, বিজলী বেগমের কাছে ৭৩ হাজার, থেতরাই ইউনিয়নের রুমি বেগমের কাছে ১ লাখ, ধামশ্রেনী ইউনিয়নের হাফিজা বেগমের কাছে ৩ লাখ ১৯ হাজার ২শত, পৌরসভার পশ্চিম নাওডাঙ্গা গ্রামের মাসুমা বেগমের কাছে ২৪ হাজার ২শ। এছাড়া গুনাইগাছ ইউনিয়নের মেরিনা বেগম, বিলকিছ বানু, বজরা ইউনিয়নের শামছুন্নাহার বেগমসহ বিভিন্ন এলাকার দরিদ্র মহিলাদের কাছ থেকে ওই ৬৫জন সহকারী প্রশিক্ষকের মাধ্যমে ৯৩ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে উধাও হয়ে যায় প্রতারক চক্রটি।

ভূক্তভোগী হামিদা পারভীন, মনি আক্তার, বাসনা আখতার, সুমি আখতার, বিজলী আখতার, মনিষা আখতার, রুমি আখতার, রুপা আখতার, আফছানা আখতার, লিপি আখতারসহ অনেকে জানান, করতোয়া কারিগরী প্রশিক্ষন প্রকল্পের ম্যানেজার মাহফুজ আহম্মেদ মিলন, প্রোডাকশন ম্যানেজার চন্দন সরকার, সিনিয়র সুপারভাইজার সাকিল সরকার সুজন, এ্যাসিসটেন্ট সুপার ভাইজার রুবেল সরকার, সিনিয়র ট্রেইনার আবুল হোসেন এই ৫জন পাঁচমাস পূর্বে এলাকায় অফিস খুলে আমাদের নিয়োগ দেন। আমাদের মাধ্যমে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে গ্রুপ তৈরি করা হয়। এতে দরিদ্র ও কর্মহীন প্রায় ৭ হাজার জন মহিলা অর্ন্তভূক্ত হলে প্রশিক্ষনের জন্য কাাঁচি ও ফিতা বিতরন করা হয়। এরপর সেলাই মেশিন দেয়ার কথা বলে আমাদের মাধ্যমে জনপ্রতি ১৩শ ৩০ টাকা উত্তোলন করে জমা নেন। কিন্তু হঠাৎ করে এক সপ্তাহ ধরে অফিসে তালা ঝুঁলিয়ে ওই প্রতিষ্ঠানের সবাই লাপাত্তা। মোবাইল ফোনও বন্ধ রেখেছেন। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে গ্রুপের সকল দরিদ্র ও অসহায় মহিলারা টাকা ফেরৎ দেয়ার জন্য আমাদের চাপ দিচ্ছেন। আমরা উপায় না পেয়ে ঘটনার প্রতিকার চেয়ে বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করেছি। বাড়ির মালিক আলহাজ্ব সৈয়দ আলী জানান, মাহফুজার রহমান মিলন নামের এক যুবক আমার কাছে দর্জি প্রশিক্ষণের কথা বলে বাড়ি ভাড়া নেয়।

ওই এলাকার ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলাম বলেন, বাড়ির পাশেই অফিস কিন্তু আমি কিছুই জানি না। আমি খোঁজ খবর নিতে চাইলে প্রতারকরা ধরা দেয়নি। এ বিষয় কথা বলতে চাইলে অফিসের কর্মকর্তারা আমাকে এড়িয়ে চলতেন একারনে বিরক্ত হয়ে আমি আর খোঁজ খবর নেয়নি।

প্রকল্পটির ম্যানেজার মাহফুজার রহমান মিলনের সাথে একাধিকবার মুঠো ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তার মোবাইল ফোন (০১৭৪৪৪৬২৪১১) বন্ধ পাওয়া যায়।

উলিপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) আনোয়ারুল ইসলাম জানান, ঘটনাস্থলে গিয়ে অফিসটি তালাবদ্ধ অবস্থায় দেখতে পাই। ঘরের মালিক সৈয়দ আলীকে ডেকে তালা খুলে কিছু কাগজপত্র জব্দ করা হয়। অফিসের আসবাবপত্র ঘর মালিকের জিম্মায় রাখা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, বিষয়টি তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আব্দুল কাদের অভিযোগ পাওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Comments

comments